ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯

রংপুরে বজ্রাঘাতে দু’জনের মৃত্যু ॥ আহত ৫০

প্রকাশিত: ০২:৩৬, ৩০ মার্চ ২০১৮

রংপুরে বজ্রাঘাতে দু’জনের  মৃত্যু ॥ আহত ৫০

নিজস্ব সংবাদদাতা, রংপুর ॥ রংপুর জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রচন্ড ঝড় ও শিলাবৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার দুপুর ১২টার সময় বজ্রাঘাতে দু’জন মারা গেছে। অপরদিকে ঝড়ে ঘর বাড়ি ও গাছ পালা উপড়ে কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছে। বজ্রাঘাতে মারা যাওয়া শামিমের বাড়ি বদরগঞ্জ ও নয়া মিয়ার বাড়ি তারাগঞ্জ। তারা দু’জনই ক্ষেতমজুর। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে প্রচন্ড ঝড় রংপুর নগরী ছাড়াও গঙ্গাচড়া, পীরগঞ্জ, মিঠাপুকুর, তারাগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আঘাত হানে। বিশেষ করে পাথরের মতো শিলা বৃষ্টিতে বোরো ধানক্ষেত, ভুট্টাসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে বেশি ক্ষতি হয়েছে পীরগঞ্জ ও মিঠাপুকুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। আকস্মিক এ কালবৈশাখীর ঝড় আঘাত হানে। প্রায় ৪০ মিনিট ধরে একটানা চলা এ শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ে ভুট্টা, ধান, উঠতি গম ও তরমুজের ব্যাপক ক্ষতিতে মাথায় হাত পড়েছে কৃষকের। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, শিলার আঘাতে ভুট্টার গাছ, খেতের পাকা গম ও গজিয়ে ওঠা সবুজ বোরো ধানের চারা মাটিতে শুয়ে পড়েছে। পীরগঞ্জের জাফরপাড়া, মোনাইলসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার বিঘা জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা জানান, ধানের গাছ এখন বেশ বাড়ন্ত। ধানও গজাতে শুরু করেছে। কিছুদিন পরই দৃশ্যমান হতো ধান। কিন্তু শুক্রবার দুপুরের এই শিলাবৃষ্টিতে মাটির সঙ্গে ধান মিশে গেছে। ঝরে গেছে আমের গুঁটি; আধ পাকা কিংবা পাকা গম আর ভুট্টা মাটিতে শুয়ে পড়েছে। এগুলো থেকে ফলন পাওয়া এবং গম থেমে বীজ পাওয়ার কোনো ভরসা দেখছেন না স্থানীয় কৃষকেরা। পীরগঞ্জের মোনাইল গ্রামের ৭৫ বছর বয়সী রফিক মন্ডল বলেন, একেকটা শিলার ওজন আধা কেজি থেকে এক কেজি। গত ৩০ থেকে ৪০ বছরে এমন বড় বড় শিলা দেখিনি। ৪০ মিনিটের মতো স্থানীয় ওই ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে ফসলের সর্বনাশ হয়ে গেছে। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে আম ও লিচুর ফলনে। পীরগঞ্জ উপজেলার কাবিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম, টুকুরিয়ার চেয়ারম্যান আতোয়ার রহমান ও চতরা ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক শামীম জানান, ঝড়ের চেয়ে শিলাবৃষ্টিতে তাদের এলাকায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে। কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৮ জনকে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে রংপুর আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ মোহাম্মদ আলী জানান, ঝড়ের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৬৫ কিলোমিটার। এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড.মোঃ সরওয়ারুল হক জানান, শিলা বৃষ্টিতে কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা তাৎক্ষণিক নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি। রংপুরের জেলা প্রশাসক এনামূল হাবীব জানান বজ্রাঘাতে ২জন মারা গেছে । শিলা বৃষ্টিতে কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে পরে জানা যাবে।