ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

গোলোৎসবে স্বপ্নের শুরু নেইমার-কাভানিদের

প্রকাশিত: ০৬:৪৭, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭

গোলোৎসবে স্বপ্নের শুরু নেইমার-কাভানিদের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইউরোপ সেরার আসর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগে এখনও শিরোপার দেখা পায়নি প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন (পিএসজি)। ট্রফি জিতবে কি, এখন পর্যন্ত তো তারা সেমিফাইনালেই খেলতে পারেনি। এ কারণে ফ্রান্সের দলটি ইউরোপ সেরার লড়াইয়ে কখনই হট ফেবারিট থাকে না। তবে এবার প্রেক্ষাপট পাল্টেছে। দলবদলে ইতিহাস গড়ে পিএসজি দলে ভিড়িয়েছে নেইমার, কিলিয়ান এমবাপের মতো তারকাদের। আগে থেকেই আছেন কাভানি, থিয়াগো সিলভা, ডি মারিয়ারা। এ কারণে এবার চ্যাম্পিয়ন্স লীগের অন্যতম ফেবারিট প্যারিসের পরাশক্তিরা। গ্রুপেপর্বের শুরুতেই সে প্রমাণ রেখেছে দলটি। মঙ্গলবার রাতে শুরু হয়েছে ২০১৭-১৮ মৌসুমের গ্রুপপর্বের লড়াই। তাতে ‘বি’ গ্রুপে দুরন্ত শুরু করেছে পিএসজি। এ্যাওয়ে ম্যাচে স্কটল্যান্ডের ক্লাব সেল্টিককে তাদেরই মাঠে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে অতিথি পিএসজি। স্বপ্নপূরণের মিশনটা তাই দুর্দান্তই হয়েছে নেইমার, কাভানি, এমবাপেদের। গ্রুপের আরেক ম্যাচে শুভসূচনা করেছে জার্মান জায়ান্ট বেয়ার্ন মিউনিখ। ঘরের মাঠ মিউনিখের এ্যালিয়েঞ্জ এ্যারানায় বাভারিয়ানরা ৩-০ গোলে হারিয়েছে বেলজিক ক্লাব আন্ডারলেচটকে। বেয়ার্নের হয়ে গোল করেন রবার্ট লেভানডোস্কি, থিয়াগো আলকান্টারা ও জসুয়া কিমিনিচ। ‘এ’ গ্রুপ থেকে সহজ জয়ে শুভসূচনা করেছে ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। নিজেদের মাঠ ওল্ডট্র্যাফোর্ডে রেড ডেভিলসরা ৩-০ গোলে হারিয়েছে সুইস ক্লাব এফসি বাসেলকে। গ্রুপের আরেক ম্যাচে পর্তুগালের বেনফিকাকে ২-১ গোলে হারিয়েছে রাশিয়ান ক্লাব সিএসকেএ মস্কো। সেল্টিকের মাঠ গ্লাসগোর সেল্টিক পার্কে পিএসজির গোল উৎসব শুরু করেন নেইমার। ম্যাচের ১৯ মিনিটে ফরাসী স্ট্রাইকার আদ্রিয়েন র‌্যাবিওটের পাস থেকে বল পেয়ে গোল করেন ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার। প্রায় মধ্যমাঠ থেকে র‌্যাবিওটের বাড়ানো বলটা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে দুজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে গোল করেন তিনি। এর আগে ১৫ মিনিটে কাভানির গোল অফসাইডের কারণে বাতিল হয়। ৩৪ মিনিটে পিএসজিকে আবার এগিয়ে দেন কিলিয়ান এপবাপে। ডি বক্সে ভেতর নেইমার হেড করে বল দিয়েছিলেন এডিনসন কাভানিকে। বলে পা লাগাতে পারেননি উরুগুয়ের তারকা। তবে ভুল করেননি এমবাপে। দারুণ শটে গোল করেন মোনাকো থেকে ধারে খেলতে আসা এই ফরাসী স্ট্রাইকার। এর ফলে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে দুই দলের হয়ে গোল করলেন এমবাপে। গতবার চ্যাম্পিয়ন্স লীগে নকআউট পর্বে ৬ গোল করেই আলোচনার জন্ম দিয়েছিলেন তিনি। ৪০ মিনিটেই নিজেদের ভুলে গোল হজম করে সেল্টিক। অযথাই কাভানিকে ডি বক্সের ভেতর ফাউল করেন জো জো সিমুনোভিচ। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। গোল করে দলকে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন কাভানি। এর ফলে পিএসজির হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ২২ গোল হয়ে গেল কাভানির। আর এতে তিনি ভেঙ্গে দিলেন প্যারিসের ক্লাবটির হয়ে জ¬াতান ইব্রাহিমোভিচের করা গোলের রেকর্ড (২০ গোল)। বিরতির পর আরও দুটি গোল হজম করে স্কটিশ ক্লাবটি। ৮৩ মিনিটে আত্মঘাতী গোলে ৪-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে তারা। এর দুই মিনিট পর দ্বিতীয় গোলে পিএজসির ৫-০ ব্যবধানের জয় নিশ্চিত করেন এডিনসন কাভানি। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ইতিহাসে নিজেদের মাঠে সেল্টিকের এটি সবচেয়ে বড় হার। ২০১৩ সালের অক্টোবরের পর থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গ্রুপপর্বে জয়ের দেখা পায়নি দলটি। ম্যাচ শেষে এমবাপের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন নেইমার। এমবাপেকে নিয়ে ব্রাজিলিয়ান তারকা বলেন, বড় মাপের খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলা সবসময় একটা আনন্দের ব্যাপার, যদিও সে তরুণ। আমার কাছে সে দুর্দান্ত একজন খেলোয়াড় এবং তার আরও উন্নতি করার সম্ভাবনা আছে। এখানে এসে খেলা সবসময়ই অনেক কঠিন। কিন্তু দল হিসেবে আমরা দুর্দান্ত খেলেছি। আমার সব সতীর্থকে অভিনন্দন। এখানে পাঁচ গোল করা মোটেই সহজ নয়। অন্যদিকে কাভানি, নেইমার, এমবাপের প্রশংসা করেছেন সতীর্থ মার্কো ভেরাট্টি। তিনি বলেন, এরা সবাই অসাধারণ খেলোয়াড়। তাদের এখানে পেয়ে আমরা ভাগ্যবান। অন্যান্য দলে আক্রমণভাগের অনেক গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় আছে। কিন্তু আমাদের কেবল নিজেদেরটা নিয়ে ভাবতে হবে। তারা যে কোন সময় ম্যাচ নির্ধারণ করে দিতে পারে।