বৃহস্পতিবার ১৫ আশ্বিন ১৪২৭, ০১ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

আফগান মেয়েরা নাম-হীন জীবন থেকে মুক্তি চান

আফগান মেয়েরা নাম-হীন জীবন থেকে মুক্তি চান

অনলাইন ডেস্ক ॥ বিদেশি ব্যাঙ্ক। আদবকায়দাও আলাদা। অ্যাকাউন্ট খোলার সময় জানতে চাওয়া হয়েছিল মায়ের নাম। অনেক ভেবেও কিছুতেই মনে করতে পারেননি বাতুল মহম্মদি। মনে পড়বে কী করে! কেউ তো কোনও দিন মাকে নাম ধরে ডাকত না। স্কুলের খাতায় মায়ের নাম ছিল না। এমনকী কবরেও শুধু লেখা, অমুকের বৌ, তমুকের মা...। মেয়েদের আবার নাম কীসের? আফগান সমাজে মেয়েদের নাম জানতে চাওয়া শুধু আপত্তিকর নয়, অপমানজনকও বটে। জন্ম থেকে মৃত্যু, কোথাওই নাম থাকে না তাঁদের। জন্মের শংসাপত্রে মায়ের নাম থাকে না। বিয়ের নিমন্ত্রণপত্রে পাত্রীর নাম থাকে না।

এক নাম-হীন জীবনই বরাদ্দ মেয়েদের জন্য।

এ হেন রীতির প্রতিবাদে নেমেছেন নারী অধিকার আন্দোলনের কর্মী-মেয়েরা। ফেসবুক-টুইটারে প্রচারের ঢল, হোয়্যারইজমাইনেম। তাঁদের দাবি, মানুষের মুখেই শুধু নয়, অফিস সংক্রান্ত সমস্ত কাগজপত্রে মেয়েদের নাম থাকা বাধ্যতামূলক করতে হবে। প্রচারের অন্যতম হোতা বাহার সোহালির কথায়, আমাদের দেশে তো মেয়েদের সব কিছু নিয়েই ছুতমার্গ রয়েছে। ইতিমধ্যেই লেখক থেকে সাংবাদিক, গায়ক, দেশের বহু প্রভাবশালী মানুষকে পাশে পেয়েছেন বাহাররা। আফগানিস্তানের জনপ্রিয় গায়ক ফারহাদ দারিয়াই যেমন স্ত্রী-র সঙ্গে নিজের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ফারহাদ ও সুলতানা দারিয়া।

বাহারের মতো আর এক আন্দোলনকারীর আক্ষেপ, আসলে মেয়েদের নাম যে মুখে আনা যায় না, এ রেওয়াজটা আফগান সমাজের রক্তে মিশে গিয়েছে। মেয়েরা যে সমাজের দ্বিতীয় শ্রেণির মানুষ, সেটা বোঝানোর জন্য এর থেকে ভাল উপায় আর কী হতে পারে! তালিবান জমানা শেষ হওয়ার পরে মেয়েরা এখন স্কুলে যায়, তাঁদের ভোটাধিকার এসেছে, কর্মস্থলেও এক জন-দুই জন মেয়ে চোখে পড়ে। কিন্তু যে সন্ত্রাস ঘরের চার দেওয়ালের চৌহদ্দির মধ্যে চলে এসেছে এত দিন, তা কিন্তু বহাল রয়েছে আজও। এখনও পরিবারের যে কোনও সিদ্ধান্ত নেন পুরুষরাই।

এ প্রসঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানালেন আফগান মহিলা চিত্রসাংবাদিক ফরজানা ওয়াহিদি। বললেন, কাজের স্বার্থে বিভিন্ন মহিলার মুখোমুখি হয়েছি। কিন্তু ইন্টারভিউ নিতে গেলে কিংবা ছবি তোলার প্রয়োজন পড়লেই সবাইকে বলতে দেখি, এক বার স্বামীর অনুমতি নিয়ে নিই। এ ছবিটাই বদলাতে চান বাহাররা। বললেন, সরকারের উপর চাপ বাড়াতে হবে। যখনই মেয়েদের অধিকারের প্রশ্ন ওঠে, তখনই আইনের ধ্বজাধারীরা ধর্মের কথা টেনে আনেন। এ বারেও তার অন্যথা হচ্ছে না। কাবুল হাইকোর্টের মুখপাত্র আবদুল্লা আতহি বললেন, জন্মের শংসাপত্র বা অন্য কোনও সরকারি কাগজে মেয়েদের নাম দিতে আমাদের কোনও অসুবিধা নেই। কিন্তু এ দেশের মানুষ কি এতটা আধুনিক হয়েছে? মাঝখান থেকে শুধু-শুধু ঝামেলা হবে।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
৩৩৮৭৫৯৯৩
আক্রান্ত
৩৬৩৪৭৯
সুস্থ
২৫১৭২৯৭১
সুস্থ
২৭৫৪৮৭
শীর্ষ সংবাদ:
মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসি ॥ বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত হত্যা মামলা         ট্রাম্প-বাইডেন প্রথম নির্বাচনী বিতর্কে তিক্ততা, বিশৃঙ্খলা         সরকার দেশের স্বার্থে ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিচ্ছে ॥ অর্থমন্ত্রী         শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ছে         কোমল পানীয়ের নামে আমরা কী খাচ্ছি?         আলোচনার শীর্ষে টিলাগড় ॥ দুই আসামি রিমান্ডে         বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র বিমান চলাচল চুক্তি সই         জাপানী বড় বিনিয়োগের হাতছানি         ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আজ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন         ১৬ কোটি মানুষের একমাত্র আশা ভরসা শেখ হাসিনা         চাকরির প্রলোভনে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক গ্রেফতার         জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ         একাদশ সংসদের ৬১ শতাংশ সদস্যই ব্যবসায়ী         বিকাশের টাকা ডাকাতির ঘটনায় গাড়িসহ ৪ জন গ্রেফতার         বাংলাদেশ কখনো জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয়নি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ৪ থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন পালন করবে ডিএনসিসি’         দেশের স্বার্থে সরকার ব্যবসায়ীদের পক্ষে সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে : অর্থমন্ত্রী         জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে ব্র্যাক ব্যাংক         ফাঁসির রায় ॥ পুলিশ হেফাজতে মিন্নি         ‘বিএনপি আন্দোলন-সংগ্রামের লক্ষ্য নির্ধারণেই ব্যর্থ, আন্দোলন তো সুদূর পরাহত’