শনিবার ৯ মাঘ ১৪২৮, ২২ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের অপকর্মের জবাব দেবে জনগণ ॥ খালেদা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে জনগণ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অপকর্মের জবাব দেবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ভারতের দিকে ইঙ্গিত করে খালেদা জিয়া বলেন, এবার তাদের সুর একটু বদল হয়েছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্রতিবেশী দেশ আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিয়েছে। এবার তারা তাদের ভুল বুঝতে পেরেছে। তিনি বলেন, আগামীতে বিএনপি ও ২০ দল ছাড়া দেশে কোন নির্বাচন হবে না। আওয়ামী লীগ কোন নির্বাচন করতে পারবে না। খালেদা জিয়া বলেন, পরবর্তী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের মানুষ বিএনপিকে ভোট দেবে। আর এ জন্যই আওয়ামী লীগ সুষ্ঠু নির্বাচনে ভয় পায়।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে। সেই নির্বাচনে বিএনপি জিতবে। আমরা সহায়ক সরকারের কথা বলেছি, সহায়ক সরকারের অধীনেই নির্বাচন হতে হবে। সহায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন হবে না, হতে দেয়া হবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুইডেন সফরের বিষয়ে খালেদা জিয়া বলেন, পাহাড়ে সেনাসদস্যসহ দেড় শতাধিক মানুষ মারা গেছে। দেশের মানুষ জীবন দিচ্ছে আর প্রধানমন্ত্রী আনন্দ ভ্রমণে আছেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, এ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডাঃ এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।

গণতন্ত্রের জন্যই সংবাদপত্রের

স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বলেছেন গণতন্ত্রের জন্যই সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। ১৬ জুন বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কালো দিন উল্লেখ করে এ দিবস উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের মূল তাগিদ ছিল বাংলাদেশের ভৌগলিক স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র। গণতন্ত্রে মানুষের নাগরিক স্বাধীনতা নিশ্চিত হয়। মানুষের স্বাধীনতার মূল শর্ত হচ্ছে বাক, চিন্তা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা। সংবাদপত্রের স্বাধীনতার মধ্যে যার বহিঃপ্রকাশ ঘটে। কিন্তু স্বাধীনতাত্তোর ক্ষমতাসীনরা স্বাধীনতা যুদ্ধের মূল-স্পিরিটের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে বহুদলীয় গণতন্ত্রের পথচলাকে আটকিয়ে একদলীয় বাকশাল ব্যবস্থা কায়েম করে।

শীর্ষ সংবাদ:
মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেন ৯০ হাজার কোটি টাকা         অতিরিক্ত আইজিপি হলেন ৭ কর্মকর্তা         করোনা টেস্ট ॥ চাপ বাড়ছে হাসপাতালে         বর্তমানে মজুদ রয়েছে ৯ কোটি টিকা ॥ তথ্যমন্ত্রী         রাজধানীতে ৯ কেজি গাঁজাসহ আটক ১         প্রতারকের খপ্পরে পড়ে ১৮ দিনের সন্তান বিক্রি         দেখানোর জন্য নয়, নিজের স্বার্থেই পরতে হবে মাস্ক         ইয়েমেনের কারাগারে সৌদি হামলায় নিহত ৭০         নীলক্ষেত থেকে সরে গেলেন শিক্ষার্থীরা         ৩ বিভাগে বৃষ্টির পূ্র্বাভাস         মুম্বাইয়ে বহুতল ভবনে আগুন, নিহত ৭         রাজধানীতে জাল টাকাসহ গ্রেফতার ১         মা হলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া         বিশ্বে একদিনে করোনা শনাক্ত ৩৬ লাখ, মৃত্যু ৯ হাজার         সাকিবের হাসিতে শুরু বিপিএল         ফের বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ॥ করোনার লাগাম টানতে পাঁচ জরুরী নির্দেশনা         বাবার সম্পত্তিতে পূর্ণ অধিকার পাবেন হিন্দু নারীরা ॥ ভারতীয় সুপ্রীমকোর্ট         উচ্চারণ বিভ্রাটে...         বাণিজ্যমেলার ভাগ্য নির্ধারণে জরুরী সিদ্ধান্ত কাল         আলোচনায় এলেও আন্দোলনে অনড় শিক্ষার্থীরা