বুধবার ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৫ আগস্ট ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

দেশে বছরে ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ হারে দারিদ্র্য কমছে

  • সংসদে প্রশ্নোত্তর

সংসদ রিপোর্টার ॥ নানান ধরনের দরিদ্রবান্ধব কর্মসূচী ও পরিকল্পনা নেয়ার কারণে দেশে প্রতিবছর ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ হারে দারিদ্র্য কমে আসছে। এরপরও প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও নদী ভাঙ্গনসহ বিভিন্ন কারণে জনসংখ্যার একটি অংশ এখনও দারিদ্র্য সীমার নিচে রয়েছে। সোমবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে এ তথ্য জানান পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল)।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য আব্দুল মতিনের প্রশ্নের জবাবে পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, বর্তমান সরকার নানা ধরনের দরিদ্রবান্ধব কর্মসূচী ও পরিকল্পনা গ্রহণ করায় দেশে দারিদ্র্যের হার বহুলাংশে কমে এসেছে। ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য আগের তুলনায় কমেছে। দেশের সর্বস্তরের জনগণের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে। সরকারের সার্বিক প্রচেষ্টায় প্রতিবছর প্রায় ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ হারে দেশে দারিদ্র্য কমে আসছে।

দেশের প্রবৃদ্ধি প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমামের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, সবকিছু বিচার-বিশ্লেষণ করেই আমরা বলছি এবার আমাদের দেশের প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ০৫ ভাগ অর্জিত হবে। বিশ্বব্যাংকসহ দাতা সংস্থাগুলো অনেক সময় প্রবৃদ্ধি নিয়ে কিছুটা অনুমাননির্ভর তথ্য দেয়। তিনি বলেন, গত বছরও বিশ্বব্যাংক বলেছিল আমাদের প্রবৃদ্ধি ৬ ভাগের ওপর যাবে না। কিন্তু আমরা তখন বলেছিলাম প্রবৃদ্ধি সাড়ে ৬ ভাগ হবে, পরে বিশ্বব্যাংক তা মানতে বাধ্য হয়। এবারও বিশ্বব্যাংক প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ০৫ ভাগই মেনে নেবে। তিনি এ প্রসঙ্গে আরও বলেন, বিশ্বব্যাংক একবারের জন্যও আশঙ্কা ব্যক্ত করেনি যে, প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগের ওপরে যাবে না।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য এস এম মোস্তফা রশিদীর প্রশ্নের জবাবে পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, বর্তমান সরকার দারিদ্র্য নিরসনে প্রভূত উন্নয়ন করেছে। এরপরও জনসংখ্যার একটি অংশ এখনও দারিদ্র্য সীমার নিচে রয়েছে। কারণ হিসেবে বিভিন্ন সময়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, নদী ভাঙ্গন ইত্যাদি বিষয়গুলোকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশকে কারিগরি প্রশিক্ষণের আওতায় এখনও আনতে না পারায় জনসংখ্যার একটি অংশ দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করছে। কারিগরি প্রশিক্ষণ সম্প্রসারণ করে কর্মস্থানের ব্যবস্থার মাধ্যমে তাদের দারিদ্র্য সীমার ওপরে আসার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

মন্ত্রী আরও জানান, বর্তমান সরকার জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলের আওতায় মোট ২৩টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে সম্পৃক্ত করে ১৪২টি কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর বিপরীতে চলমান কর্মসূচীর অনুকূলে গত অর্থবছরে ৩০ হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল। চলতি ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে এ বরাদ্দের পরিমাণ ৩৭ হাজার ৫৪৬ কোটি টাকা।

শীর্ষ সংবাদ:
বৈরুতে বিস্ফোরণে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৯ সদস্য আহত         বৈরুতে জোড়া বিস্ফোরণে নিহত ৭৮, আহত প্রায় ৪০০০         বৈরুতে তিন দিনের শোক, জারি হচ্ছে জরুরি অবস্থা         সাবরিনা-আরিফসহ আট জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিচ্ছে ডিবি         লেবাননে বিস্ফোরণে কয়েকজন বাংলাদেশি আহত         রাশিয়ার ভ্যাকসিন নিয়ে সতর্ক করলো ডব্লিউএইচও         বিস্ফোরণে প্রাণ হারালেন লেবাননের কাতায়েব পার্টির মহাসচিব         সমগ্র কাশ্মীরকে অন্তর্ভুক্ত করে পাকিস্তানের মানচিত্র প্রকাশ         টাইমস স্কয়ারে দেখানো হবে না রামমন্দিরের ভূমিপূজার ছবি         বৈরুতে বিস্ফোরণ ॥ সহায়তার আশ্বাস দিলেন সমব্যথী বিশ্বনেতারা         নরওয়ের ফ্যালকন-২০’র গতিবিধি আটকে দিল রাশিয়ার মিগ-৩১         ২৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট থেকে ভয়াবহ বিস্ফোরণ         চামড়ার বাজারে ধস ॥ প্রধান চার কারণ চিহ্নিত         মানুষের উন্নত জীবন ধারা নিশ্চিত করাই মূল লক্ষ্য         ষড়যন্ত্রকারীদের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে সতর্ক থাকুন ॥ কাদের         নরেন দাস ছিলেন বঙ্গবন্ধুর একনিষ্ঠ সৈনিক ॥ আইনমন্ত্রী         জুলাইয়ে রেমিটেন্সে রেকর্ড         টেকনাফে পুলিশের গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা নিহত         আজ শহীদ শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী         এক সপ্তাহের মধ্যে বন্যার পানি কমবে        
//--BID Records