মঙ্গলবার ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সেবা বনাম বাণিজ্য

সফিউল্লাহ আনসারী

হাসপাতাল আছে, চিকিৎসা নাই, কারণ চিকিৎসক নাই। চিকিৎসক একটি সেবামূলক পেশা এবং স্বাস্থ্যসেবা মানুষের মৌলিক অধিকারের একটি। মানবসেবার অন্যতম সেবক একজন চিকিৎসক যারা আমাদের সমাজে ডাক্তার হিসেবেই বেশি পরিচিত। স্বপ্ন এবং সেবার মানসিকতায় একজন ডাক্তার নিজেকে নিয়োজিত করেন মানবসেবায়। আমাদের দেশে কয়েক ধরনের স্বাস্থ্যসেবা ও সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে যার বেশির ভাগই সরকারী স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং হাসপাতাল। এসব স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে আমাদের দেশের চিকিৎসকগণ সেবা দিয়ে থাকেন। তাদের নিবিড় পরিচর্যা আর সঠিক নির্দেশনায় একজন অসুস্থ ব্যক্তি সুস্থ হয়ে উঠেন। কিন্তু বর্তমানে যেন এ মহান পেশাটি ব্যবসায়িক মনোভাবে সেবার নামে বাণিজ্যে পরিণত হচ্ছে। সেবা আর খ্যাতি নয় যেন অর্থ উপার্জনের মাধ্যম আজ চিকিৎসক পেশা।

প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকে মোটা অর্থের বিনিময়ে চিকিৎসা পাওয়া গেলেও অনেক ক্ষেত্রেই তা মানহীন। আর এসব প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা সেবার নামে চলছে কিছু চিকিৎসকদের বাণিজ্য। অনেক ডাক্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা একাধিক বিশেষজ্ঞ ডিগ্রীর দাবি করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভিজিট হাতিয়ে নিচ্ছেন যার চাপ পড়ছে অসহায় রোগীর উপর। সরকারী হাসপাতালগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্ত বেশির ভাগ ডাক্তার শহরে থেকে ডিউটি করেন মফস্বলের কোন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। শহরমুখিতার কারণে এসব ডাক্তাগণ অনিয়মিত উপস্থিত থাকেন তাদের কর্মস্থলে, পাশাপাশি হাসপাতালের চেয়ে বাইরের ক্লিনিক বা চেম্বারের গুরুত্ব তাদের কাছে বেশি হওয়ায় চিকিৎসা নিতে আসা সাধারণ জনগণ বঞ্চিত হচ্ছেন স্বাস্থ্যসেবা থেকে। অভিজ্ঞ ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ শহর ছাড়তেই চান না, যেন গ্রামের মানুষের সেবার চেয়ে তাদের বিপুল অর্থ উপার্জনই মুখ্য। তাই সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় গরিব শ্রেণীর রোগীরা দিশাহারা হয়ে উপায়হীনভাবে ছুটছেন প্রাইভেট চিকিৎসা কেন্দ্রে যেখানে চিকিৎসার নামে সেবার চলে বাণিজ্য।

সরকারী চিকিৎসা সেবায় বিভিন্ন ধরনের অব্যবস্থাপনা, চিকিৎসকদের গুরুত্বহীনতা আর চরম দুর্ভোগের সুযোগ নিয়ে রাজধানীসহ সারাদেশে গড়ে উঠেছে অসংখ্য প্রাইভেট হাসপাতাল ও ব্যাঙের ছাতার মতো ক্লিনিক। এসব প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকের দৌরাত্ম্য এখন শহর ছেড়ে মফস্বলের গ্রামাঞ্চলেও। দেখা যায় এসব ক্লিনিক বা হাসপাতালের মালিক ও পরিচালক বেশির ভাগই কোন না কোন সরকারী হাসপাতালের ডাক্তার। চিকিৎসকরাই যেখানে সেবার নামে ক্লিনিক ব্যবসায় ব্যস্ত সেখানে মৌলিক অধিকার সঠিক চিকিৎসা সেবা পাওয়ার আশা করা বোকামি।

ভালুকা, ময়মনসিংহ থেকে

শীর্ষ সংবাদ:
পাটুরিয়া ঘাটে ঈদফেরত যাত্রী-যানবাহনের চাপ বাড়ছে         ৬৫ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শুরু হচ্ছে মিড-ডে মিল কার্যক্রম         স্বাস্থ্যবিধি মেনে জীবন-জীবিকাকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী         বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি শুরু         মুজিববর্ষে সারাদেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করা হবে : বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী         রাত ৮টার মধ্যে দোকানপাট ও শপিংমল বন্ধের নির্দেশ         জামালপুরে নৌকাডুবিতে দুই শিশুসহ তিন জনের মৃত্যু         গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় ৩০ জনের মৃত্যু         চলাচল নিয়ন্ত্রণ থাকবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত         ১৫ আগস্টের ষড়যন্ত্রকারীদের অপচেষ্টা আজও চলমান ॥ কাদের         বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২৫ হাজার মানুষকে সহায়তা দেবে ইইউ         সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ        
//--BID Records