বৃহস্পতিবার ১৮ আষাঢ় ১৪২৭, ০২ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মুক্তিযুদ্ধে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের ভূমিকা চিরস্মরণীয়

  • জাদুঘরে আলোচনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মুক্তিযুদ্ধে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের ভূমিকা বাঙালী জাতি চির কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ রেখেছে। যুদ্ধের প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত তাদের অবদান ঈর্ষণীয়। এমনকি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ বিনির্মাণেও তারা বিশ্বস্ত বন্ধুর মতো পাশে ছিল। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে পুঁতে রাখা মাইন অপসারণে রুশ সেনাদের অবদান কোনভাবেই ভুলে যাওয়ার নয়। তবে ’৭৫-পরবর্তী সময়ে দুই দেশের সম্পর্ক শীতল হয়ে পড়ে। শেখ হাসিনার রাশিয়া সফরের মাধ্যমে সে সম্পর্ক আবারও পুরনো রূপ পায়। মঙ্গলবার রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে ‘মুক্তিযুদ্ধ উৎসব ২০১৫ : থিমকান্ট্রি রুশ ফেডারেশন (সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন)’ অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। বিজয়ের ৪৪ বর্ষপূর্তি লগ্নে রুশ মিত্রদের স্মরণ ও শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করতে যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানে আয়োজন করে মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি, বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর, ঢাকাস্থ রুশ ফেডারেশন দূতাবাস, রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্র এবং সাউথ এশিয়ান মিউজিক ইনস্টিটিউট। অনুষ্ঠানের শুরুতেই দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। পরে ৯ মুক্তিযোদ্ধাকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। পরে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ এবং রুশ নৌবাহিনীর আহত ও শহীদ সৈনিকদের প্রতি দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এছাড়া ওই অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে ডিমাইনিং অপারেশনে অংশগ্রহণকারী রুশ নৌসেনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা স্মারক প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, স্বাধীনতা প্রাপ্তির সময় যেমন অস্ত্র দিয়ে সাহায্য করেছিল ঠিক তেমনি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ বিনির্মাণে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের ভূমিকা ছিল অতুলনীয়। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে আমাদের কোন খাবার ছিল না, তারা খাবার দিয়ে সাহায্য করেছে। আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা ত্বরিত গতিতে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে। তাদের অবদান কৃতজ্ঞার সঙ্গে স্মরণ করছি।

মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বন্ধ করতে জাতিসংঘে প্রস্তাব উত্থাপিত হলে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ভোটে দিয়েছিল। তারা যদি ভোটে না দিত, তাহলে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা হতো। ফলে আমরা আর স্বাধীনতার স্বাদ পেতাম না। এমনকি যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে ৭ম নৌবহর যদি পাঠানো না হতো; তবে যুদ্ধের শেষ পর্যায়টা ভিন্ন রকম হতো পারত। শুধু তাই নয়, জাতিসংঘের সদস্য পদ প্রাপ্তিতেও তাদের অবদান অতুলনীয়।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পর চট্টগ্রাম বন্দর নগরীতে যেখানে হাজার হাজার মাইন পুঁতে রেখেছিল হানাদার বাহিনী, তা অপসারণে রুশ বাহিনীর তিনজন সদস্য জীবন উৎসর্গ করেন। তাদের চিরকৃতজ্ঞতায় স্মরণ করছি।

‘মুক্তিযুদ্ধে সোভিয়েত ইউনিয়নের ভূমিকা’ বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে ড. আনু মাহমুদ বলেন, ’৭৫-এর পর দু’দেশের সম্পর্ক শীতল হয়ে পড়ে। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর বন্ধুত্ব বিকাশে আর কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্রের পরিচালক আলেক্সজেন্ডার পি. ডেমিন তাঁর বক্তব্যে সকল মুক্তিযোদ্ধা ও চট্টগ্রামে মাইন অপসারণে অংশ নেয়া রুশ সেনাদের গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। এ সময় তিনি দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের নানা দিক তুলে ধরেন।

ওই অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী। মুক্তিযুদ্ধ একাডেমির চেয়ারম্যান ড. আবুল আজাদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় জাদুঘরের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান আজিজ, সাউথ এশিয়ান মিউজিক ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান ড. শরীফ আশরাফউজ্জামান প্রমুখ।

শীর্ষ সংবাদ:
সর্বোচ্চ শনাক্তে আক্রান্ত দেড় লাখ, মৃত্যু ১৯’শ ছাড়াল         সকলকে সাথে নিয়ে জনমুখী পু‌লিশ গঠ‌নে কাজ করছি : আইজিপি         করোনা মোকাবেলায় তৃণমূলের ভূমিকা         করোনা ভাইরাস ॥ দেশে ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা গ্লোব বায়োটেকের         রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের উৎপাদন বন্ধের সিদ্ধান্ত         বিজিএমইএর করোনা ফিল্ড হাসপাতাল উদ্বোধন         বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি : জীবিত উদ্ধার সুমনের বক্তব্য অসংলগ্ন         খাদ্যে ভেজালকারীরা আর জরিমানা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারবে না : মেয়র তাপস         প্রবাস ফেরতদের কর্মসংস্থানে জাতিসংঘের সহায়তা চান ড. মোমেন         করোনা ভাইরাস ॥ উপসর্গমুক্ত হওয়ার ১৪ দিন পর কাজে ফেরা যাবে         করোনায় আক্রান্ত হলেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক         গ্রাম পুলিশের চাকরি জাতীয়করণে হাইকোর্টের রায় প্রকাশ         বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে এক মাসে শতাধিক ট্রেন চলাচলের রেকর্ড         ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জরিমানা ছাড়াই হোল্ডিং ট্যাক্স ও ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন         দেড় কোটির বেশি পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা         মিয়ানমারে জেড খনিতে ভূমিধস ॥ নিহত শতাধিক         পুষ্টি সঠিকভাবে না পেলে ওষুধ আর হাসপাতাল দিয়ে কাজ হবে না         পদ্মায় তীব্র স্রোতে ফেরি চলাচল ব্যাহত         ঘুষের কথা স্বীকার করেও নিজেকে ‘নির্দোষ’ বলছেন পাপুল!         সংক্রমণ ঠেকাতে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় পশুর হাট নয় : ডিএনসিসি মেয়র        
//--BID Records