মঙ্গলবার ১৫ আষাঢ় ১৪২৯, ২৮ জুন ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে সৈকত রানী কক্সবাজারের চেহারা

  • স্থায়ী সেনানিবাসের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী রামু যাচ্ছেন কাল

এইচএম এরশাদ, কক্সবাজার ॥ কক্সবাজারবাসীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে রবিবার রামুতে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রামুর বৌদ্ধ বিহার ও পল্লীতে চরম সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটে। সাম্প্রদায়িক অপশক্তি ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে জেলার রামুতে প্রাচীন ১২টি বৌদ্ধ বিহারে অগ্নিসংযোগ ও বড়ুয়া পল্লীতে সহিংস হামলা চালিয়ে ধ্বংসযজ্ঞে পরিণত করেছিল। ঘটনার পর ৮ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরেজমিনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। কথা বলেন বড়ুয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের সঙ্গে। পরবর্তীতে সেনাবাহিনীর মাধ্যমে এক বছরেই গড়ে তোলা হয় দৃষ্টিনন্দন বৌদ্ধ বিহার। পুনর্নির্মাণ করে দেয়া হয় ক্ষতিগ্রস্ত বসত বাড়িগুলো। ২০১৩ সালের ৩ সেপ্টেম্বর নবনির্মিত বৌদ্ধ বিহার উদ্বোধন করতে প্রধানমন্ত্রী রামু আসলে ওই সময় স্থানীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায় এবং সচেতন লোকজনের পক্ষ থেকে রামুতে একটি স্থায়ী সেনা ক্যাম্প নির্মাণের দাবি তোলা হয়। ঐ দাবির প্রেক্ষিতেই সরকারের তরফ থেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে সেনানিবাস নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়া রামুর নিরাপত্তার স্বার্থে একই বছরের মধ্যে একটি নতুন বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নও (বিজিবি-৫০) স্থাপন করা হচ্ছে। সেই কাক্সিক্ষত রামু সেনানিবাসের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান কাল রবিবার (১ মার্চ)। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানে পতাকা উত্তোলন করবেন।

এদিকে মহান স্বাধীনতা মাসের সূচনালগ্নে জেলার রামুতে স্থায়ী এ সেনানিবাসের আনুষ্ঠানিক পতাকা উত্তোলনকে ঘিরে সেনানিবাস এলাকাসহ রামু এলাকা সাজছে বর্ণিল সাজে। রামুতে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে সর্বস্তরের মানুষের মাঝে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা পরিলক্ষিত হচ্ছে।

সূত্রে প্রকাশ, গত ৬ বছরে কক্সবাজার জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে রাস্তা-ঘাট, কালভার্ট ব্রিজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক উন্নয়নে বদলে গেছে সৈকত রানী কক্সবাজারের চেহারা। এছাড়াও বাংলাদেশকে অপার সম্ভাবনার দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কক্সবাজারে ইতোপূর্বে উদ্বোধন করেন দোহাজারি-ঘুমধুম রেল লাইন। চট্টগ্রামের দোহাজারি থেকে ঘুমধুম পর্যন্ত রেললাইন বাস্তবায়ন হলে চির বসন্তের শহর চীনের কুনমিংয়ের সঙ্গে বাংলাদেশের সংযোগ স্থাপন হবে। আর এতে অর্থনৈতিক মুক্তির দ্বার উন্মোচিত হবে। এই চলমান প্রক্রিয়ায় আরও রয়েছে জেলার মহেশখালীর মাতারবাড়িতে কয়লা বিদ্যুতকেন্দ্র, তরল গ্যাস-টার্মিনাল এবং গভীর সমুদ্রবন্দর বাস্তবায়ন। এর আগে বহু প্রতীক্ষিত কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন, সমুদ্র গবেষণা কেন্দ্র ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণ করে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কক্সবাজারবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন।

Sheikh Rasel

শীর্ষ সংবাদ:
অনিয়ম চলবে না ॥ পদ্মা সেতুর নিরাপত্তায় কঠোর অবস্থান         উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা শিল্পায়ন ত্বরান্বিত করে         তিন জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে টহল জোরদারের নির্দেশ         পদ্মা সেতুর নাটবোল্ট খোলা অন্তর্ঘাত ॥ সিআইডি         ’৫৭ সালের মধ্যেই পদ্মা সেতুর অর্থ উঠে আসবে         পদ্মা সেতুর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীরা দেশের শত্রু         সাভারে ছাত্রের পিটুনিতে আহত শিক্ষকের মৃত্যু         পদ্মা সেতুর পর অপেক্ষা করছে আরেক চমক         পদ্মা সেতুর এ্যাপ্রোচ সড়কে পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক উল্টে আহত ৪         দেশের ৭০ শতাংশ মানুষ পেল করোনার টিকা         পদ্মা সেতু নির্মাণে বিএনপির মুখে চুনকালি পড়েছে         আশ্রয়কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফিরে এখন টিকে থাকার লড়াই         দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ৪০ শতাংশ যানবাহন কমেছে         পাকিস্তানের পক্ষে থাকা এমএনএ এমপিএদের তালিকা করা হবে         পদ্মা সেতুর সার্বিক দায়িত্ব সেনাবাহিনীর হাতে         উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করে : প্রধানমন্ত্রী         যারা আন্দোলন করবে তাদের পেছনে লোক কোথায় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ১৪০ ত্রৈমাসিক কিস্তিতে পদ্মা সেতুর ঋণ শোধ হবে : সেতুমন্ত্রী         ৩০টি সরকারি, ৫৫টি বেসরকারি পাটকল বন্ধ, সংসদে পাটমন্ত্রী         সাংবাদিকদের তৈরি হচ্ছে ডাটাবেজ : তথ্যমন্ত্রী