ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

লক্ষ্মীপুর আদালত প্রাঙ্গনে বিচার প্রার্থীকে আইনজীবীদের মারধর নি

নিজস্ব সংবাদদাতা, লক্ষ্মীপুর

প্রকাশিত: ২০:৪১, ৮ আগস্ট ২০২২

লক্ষ্মীপুর  আদালত প্রাঙ্গনে বিচার প্রার্থীকে আইনজীবীদের মারধর  নি

আদালত প্রাঙ্গনে বিচার প্রার্থীকে আইনজীবীদের মারধর

লক্ষ্মীপুর আদালত প্রাঙ্গণে বিচার প্রার্থী একই পরিবারের ৪ জনকে মারধর করেছেন আইনজীবীরা। সোমবার সকালে জেলা ও দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আইনজীবী সৈয়দ ফখরুল আলম নাহিদসহ তার ৮-১০ জন সহকর্মী এ হামলা চালান। 

এ সময় তার স্ত্রী আফরোজা বেগম (৫০), মেয়ে মাহিয়া আক্তার (২২) ও ছেলে আব্বাস হোসেন (২৮)। তারা রামগতি উপজেলার পশ্চিম চর কলাকোপা গ্রামের বাসিন্দা। আদালত পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে এজলাসে নিয়ে যায়। 

আইনজীবী নাহিদ জেলা কৃষকদলের সাবেক সদস্য সচিব ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মোহাম্মদ শামছুল আলমের ছেলে। আহতরা জানিয়েছেন, আইনজীবী নাহিদদের সঙ্গে তাদের জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। নাহিদদের একটি মামলায় তারা আদালতে হাজিরা দিতে আসেন। নাহিদ আগে থেকে হামলার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন। পূর্বপরিকল্পিতভাবে আইনজীবীরা তাদের ওপর হামলা করেছেন।

প্রত্যক্ষ দর্শীরা জানান, আদালতে সবাই বিচারের জন্য আসে। কিন্তু আইনজীবীরা ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছেন। তারা বিচার প্রার্থীদের ওপর হামলা চালিয়ে মারধর করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে কার্যকরী ব্যবস্থা নিলে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে না। আদালত প্রাঙ্গণে ৪ বিচারপ্রার্থীর ওপর আইনজীবীদের হামলা

অভিযুক্ত আইনজীবী ফখরুল আলম নাহিদ সাংবাদিকদের বলেন, আমি কিছুই জানি না। কে কারা ওপর হামলা করেছে তাও আমার জানা নেই।

লক্ষ্মীপুর আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির হাওলাদার বলেন, হামলার ঘটনা শুনেছি। এ ঘটনায় আমরা অত্যন্ত মর্মাহত।

উল্লেখ্য, গত ১১ জুন রামগতির চর কলাকোপা গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের সালিসি বৈঠকে প্রতিপক্ষের লোকজন আইনজীবী নাহিদকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতরভাবে জখম করে। ওই ঘটনায় তার পিতা এ্যাড. সৈয়দ শামছুল আলম  থানায় মামলা দায়ের করেন। আর সোমবার মামলার আসামিরা আদালতে গেলে হামলার ঘটনা ঘটে।