২৯ মার্চ ২০২০, ১৫ চৈত্র ১৪২৬, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

সমাজ ভাবনা ॥ বিষয় ॥ সেলফি ভয়ঙ্কর!

প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • ডিজিটাল মাদক
  • আজিজ আহমেদ

সেলফি বর্তমানে তরুণ, শিশু, বৃদ্ধ সবার কাছে অত্যন্ত পরিচিত একটা নাম এবং এর প্রিয়তা তরুণ, তরুণী ও কিশোর, কিশোরীদের কাছে সবচেয়ে বেশি। ‘সেলফি’ যার বাংলা প্রতিশব্দ স্বালোকচিত্র। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এখন পৃথিবী এক ভিন্ন জগতের মধ্যে পতিত হয়ে যাচ্ছে দিনকে দিন। ‘ভার্চুয়াল জগত’ নামের এক অদ্ভুত জগতে আমরা ডুবে যাচ্ছি প্রতিনিয়তই। সেলফি ও সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যম মানুষের এখন রীতিমতো ডিজিটাল নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে এই সেলফি তোলার অভ্যেস আমাদের সবার মধ্যেই আছে। কারণ আমরা সবাই স্মৃতি ধরে রাখতে চাই। সময়কে আটকে রাখা যায় না, তাই তো আমরা আনন্দের মুহূর্তটাকে আটকে রাখতে সেলফি বা ছবি তুলে রাখি। কিন্তু এটা যখন অতিরিক্ত মাত্রায় কারণে অকারণে আমরা অপব্যবহার করতে থাকি তখন এটা একটা অভ্যেসে রূপান্তরিত হয়ে যায়। এই যে আমরা বদলে যাচ্ছি এটা খুবই উদ্বেগজনক। কারণ এই রূপান্তরে আমরা মানসিক ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছি।

মোবাইল দিয়ে বার বার নিজের ছবি তুলে দেখে এমন কিছু মানুষ সম্পর্কে গবেষকরা বলেছেন, স্মার্টফোনে বেশি বেশি সেলফি তোলার এই অভ্যাসে তারা ভয়ঙ্কর বিপজ্জনক ও মানসিক ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে। মার্কিন গবেষকরা দাবি করেছেন, অতিরিক্ত সেলফি তোলার অভ্যাসের সঙ্গে মানসিক ব্যাধির প্রকট সম্পর্ক রয়েছে। এতে নিজের চেহারার প্রতি অতি আকর্ষণ অনুভব করা মানসিক স্বাস্থ্যকে ঝুঁকির মুখে ফেলে দিতে পারে। এছাড়াও ভার্চুয়াল জগতের এসব বিষয়কে গবেষকরা ‘ডিজিটাল কোকেন’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। এই সেলফি নেশায় আকৃষ্ট মানুষগুলো মানসিক ব্যাধিতে আক্রান্ত। তার প্রমাণ আমরা বিভিন্ন সময়ে দেখতে পারি, সেলফি তুলতে গিয়ে দুর্ঘটনায় শিকার হয়, এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হয়ে যায় এই সেলফির কারণে। রেল লাইনের পাশে দাঁড়িয়ে চলন্ত ট্রেনের সঙ্গে সেলফি তুলতে গিয়ে ভারতের দিল্লীতে ও বাংলাদেশে পৃথক দুটি ঘটনায় দুই কিশোরের মৃত্যু হয়। এমন ঘটনা এখন প্রায়ই ঘটে থাকে। এই অসুস্থ অভ্যেসের কারণে এই পর্যন্ত অনেক মানুষের প্রাণ গিয়েছে। এছাড়াও অনেক বিপজ্জনক জায়গাতে সেলফি তুলতে দেখা যায়, যা দেখে ভয়ে আপনার গায়ের লোম অবধি দাঁড়িয়ে যাবে। আর এই সেলফির প্রতি সবচেয়ে বেশি পরিমাণের আকৃষ্ট কিশোর, কিশোরীরা। অতএব এই সেলফি নেশায় আক্রান্ত এসব বিপদগ্রস্ত মানুষদের পরামর্শ প্রয়োজন। গত এক দশক আগেও মানুষ এতটা নেশাগ্রস্ত ছিল না এটার প্রতি। কিন্তু বর্তমানে এটা এতটাই বেড়ে গেছে যে প্রতিনিয়তই সেলফির প্রতি মানুষ আকৃষ্ট হচ্ছে। মানুষ এতটাই আকৃষ্ট হচ্ছে যে শুধু আনন্দের মুহূর্ত নয়, সব রকম অবস্থাতেই এটা করে থাকে সেদিন দেখা গেল কিছু কিশোরকে মৃতের জন্যে কবর খোঁড়া অবস্থায় সেলফি তুলতে। যা খুবই উদ্বেগজনক। এই ধরনের ভার্চুয়াল নেশায় মানুষের মস্তিষ্ক অসুস্থ হয়ে যায়, বিকৃতি হয়ে যায় মস্তিষ্ক। যার ফলে প্রতিদিনের কাজের মধ্যে ব্যাপক প্রভাব পড়ে। শখের বশে আমরা সেলফির প্রতি নেশায় আকৃষ্ট হয়ে যাই নিজেদের অজান্তেই। আসুন নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করি, উপভোগ করি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। প্রযুক্তিকে অপব্যবহার না করে এর সঠিক ব্যবহারে সচেষ্ট হই।

টাঙ্গাইল থেকে

প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

২৭/০২/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: