১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২ পৌষ ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

সংসদে দাঁড়িয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন রাঙ্গা

প্রকাশিত : ১৪ নভেম্বর ২০১৯

সংসদ রিপোর্টার ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে কটূক্তিমূলক বক্তব্য প্রদানের কারণে সংসদে দাঁড়িয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা। তিনি বলেন, ’আমি একটা ভুল করেছি। তার জন্য শহীদ নূর হোসেনের মায়ের কাছে চিঠি দিয়ে ক্ষমা চেয়েছি। আর বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কোন ভুল কিছু যদি বলে থাকি সেজন্যও সবার কাছে করজোড়ে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বুধবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে কার্যপ্রণালী বিধির ২৭৪ বিধি অনুযায়ী ব্যক্তিগত কৈফিয়ত দিতে দাঁড়িয়ে তিনি এই ক্ষমা প্রার্থনা করেন। মশিউর রহমান রাঙ্গা আত্মপক্ষ সমর্থন করতে গিয়ে বলেন, গত ১০ নবেম্বর জাতীয় পার্টির অভ্যন্তরীণভাবে গণতন্ত্র দিবস পালন নিয়ে একটি সভা ছিল ছোট পরিসরে। মাইক বাইরে ছিল না, ভেতরে সাউন্ডবক্সের মাধ্যমে আমরা কথা বলেছি। পুরান ঢাকা থেকে যখন আমাদের দলের কিছু লোক ওই বৈঠকে আসছিলেন, নূর হেসেন চত্ব¡রে এরশাদ সাহেবকে গালাগালি করে কিছু স্লোগান দেয়া হয়। এসব কথা তারা দলীয় কার্যালয়ে এসে বলেন। দলের মহাসচিব হিসেবে আমি কর্মীদের শান্ত থাকতে বলি। এ সময় সরকারী দলের সংসদ সদস্যরা তীব্র হৈ চৈ করে তার বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাতে থাকেন।

জাপা মহাসচিব বলেন, সংসদে আমার বক্তব্য নিয়ে অনেকে কথা বলেছেন। আমি মনে করি সিনিয়র মন্ত্রী-নেতারা আমাকে শাসন করে বক্তব্য দিয়েছেন। তবে আমি একটা ভুল করেছি, ভুল করার জন্য শহীদ নূর হোসেনের পরিবারের কাছে আমি ক্ষমা প্রার্থনা করেছি এবং বিবৃতি পর্যন্ত দিয়েছি। তিনি বলেন, জাতির পিতা সম্পর্কে এই সংসদে প্রথম দিন ৩৭টি প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলাম। অজস্র বার জয় বাংলা বলেছি, জাতির পিতা সম্পর্কে বলেছি। তাই জাতির পিতা নিয়ে যদি আমার কোন রকম কিংবা কোন কিছু ভুল বলে থাকি সেজন্য আমি নিঃশর্ত ক্ষমা চাচ্ছি।

মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, অনুষ্ঠানে আমি কখনই সন্ত্রাসবাদ, দুর্নীতিবাজ এগুলো বলিনি। আমি বলেছি, বিশ্বজিত হত্যার বিচার হয়েছে, ক্যাসিনো নিয়েও বিচার হয়েছে। আমি বলেছি, ১৯৯০ সালের পর যখন খালেদা জিয়া ক্ষমতায় আসলেন তখন সারের জন্য ১৮ জন কৃষককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে, গ্রেনেড হামলা হয়েছিল। এই অস্ত্র বাইরের দেশ থেকে নিয়ে আসা হয়েছিল তৎকালীন বিরোধী দলের নেতাকে হত্যার জন্য। এই কথাগুলো রেকর্ড আছে।

সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে জাপা মহাসচিব বলেন, তারপরও আমি নিঃশর্তভাবে ক্ষমা চাচ্ছি যদি এটা ভুল করে থাকি। অবশ্যই আমি করজোড়ে তাদের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। আমার সহকর্মী আছেন তারা এটা শুনে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। তিনি বলেন, আমি মনে করি, আমার দল (জাপা) ক্ষমতায় থাকলেও হয়তো মন্ত্রী হতে পারতাম না, প্রধানমন্ত্রী আমাকে মন্ত্রী বানিয়েছেন। আমাকে স্নেহ করতেন, অনেক ভালবাসতেন। আমি কাউকে কটাক্ষ করে কিছু বলতে চাচ্ছি না। আমি সমস্ত দোষ আমার ঘাড়ে নিচ্ছি। আমার হয়তো বলতে ভুলত্রুটি হতে পারে। শহীদ নূর হোসেনের মায়ের কাছে ক্ষমা চেয়ে পত্র দিয়েছি। সকলের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। আমার কোন ভুল-ত্রুটি হয়ে থাকলে সবাই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন, আমাকে ক্ষমা করে দেবেন।

এরপর বিএনপির হারুনুর রশীদ পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গার বক্তব্যে কথা বলতে চাইলে বিধি অনুযায়ী না হওয়ায় তার ফ্লোর বন্ধ করে দেন। হারুনুর রশীদ বলেন, বন্দুক থেকে গুলি বের হয়ে গেলে তাকে আর ফেরত আনা যায় না। অনেক রক্তের বিনিময়ে এদেশে গণতন্ত্র এসেছে। তাই শহীদ নূর হোসেনের পরিবারের কাছে ক্ষমা চাইলেই সবকিছু শেষ হয়ে যায় না। এরপর স্পীকার তার ফ্লোর বন্ধ করে দেন।

প্রকাশিত : ১৪ নভেম্বর ২০১৯

১৪/১১/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: