২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

খালেদা জিয়া পাকিস্তানের এজেন্ট ॥ জয়


বিডিনিউজ ॥ খালেদা জিয়াকে ‘পাকিস্তানী এজেন্ট’ আখ্যায়িত করে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, নির্বাচনের জন্য ‘অব্যাহতভাবে আইএসআই এজেন্টদের কাছ থেকে অর্থ’ গ্রহণ করছেন বিএনপির চেয়ারপার্সন। খালেদা জিয়ার পক্ষে ‘পাকিস্তানের ওকালতি’ শিরোনামের একটি প্রতিবেদন ফেসবুকে শেয়ার করে একথা লিখেছেন প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তার তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা জয়।

জয় লিখেছেন, আমি আগেই বলেছি খালেদা জিয়া পাকিস্তানী এজেন্ট। তিনি অব্যাহতভাবে নির্বাচনগুলোর জন্য আইএসআই এজেন্টদের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করে আসছেন। তিনি যুদ্ধাপরাধীদের মন্ত্রী বানিয়েছিলেন। এখন পাকিস্তান সরকার তার পক্ষে প্রকাশ্যে তদবির করছে।

সম্প্রতি কমনওয়েলথের একটি বৈঠকে খালেদা জিয়ার পক্ষে ‘অবস্থান নিয়ে’ বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার প্রস্তাব তুলেছিল পাকিস্তান। তবে লন্ডনে কমনওয়েলথ মিনিস্ট্রিয়াল এ্যাকশন গ্রুপের ওই বৈঠকে সদস্য অন্য দেশগুলোর প্রতিনিধিরা উড়িয়ে দেয়ায় ইসলামাবাদের ওই প্রস্তাব হালে পানি পায়নি বলে এক কূটনৈতিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। ৫৩টি রাষ্ট্রের জোট কমনওয়েলথের মিনিস্ট্রিয়াল এ্যাকশন গ্রুপ সদস্য দেশগুলোর রাজনৈতিক পরিস্থিতির গুরুতর অবনতি ঘটলে তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। কোন দেশে গণতন্ত্র নির্বাসিত হলে তা পুনরুদ্ধারের পদক্ষেপও আসে এই ফোরাম থেকে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কূটনীতিক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা সারতাজ আজিজ বৈঠকে প্রস্তাবটি তুলেছিলেন।

বাংলাদেশে বিএনপিবিহীন ৫ জানুয়ারির নির্বাচন যথাযথ হয়নি বলে বৈঠকে আলোচনায় পাকিস্তানের প্রতিনিধি তুলেছিলেন বলে তিনি জানান। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদার বিরুদ্ধে ৩৩টি ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ মামলার তথ্য তুলে ধরে সারতাজ আজিজ বলেন, বাংলাদেশে রাজনৈতিক মত প্রকাশের অধিকার ‘সঙ্কুচিত’ হয়ে এসেছে।

এর পাশাপাশি বাংলাদেশে বিচার বিভাগের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ চলছে অভিযোগ তুলে তিনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে ‘গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা’ এবং কমনওয়েলথের পক্ষ থেকে বিবৃতির প্রস্তাব রাখেন। কিন্তু অন্য দেশগুলো তার প্রতিবাদ জানায় এবং এর ফলে বিবৃতি দেয়ার কোন ক্ষেত্র তৈরি হয়নি, বলেন ওই কূটনীতিক।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: