ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

সৃষ্টি হচ্ছে নতুন মহাসাগর

কাওসার রহমান

প্রকাশিত: ১২:৩৫, ৭ নভেম্বর ২০২৩

সৃষ্টি হচ্ছে নতুন মহাসাগর

নতুন মহাসাগর

  • বিভক্ত হতে শুরু করেছে আফ্রিকা

আফ্রিকা বিভক্ত হয়ে যাচ্ছে। আর এই মহাদেশটি বিভক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বে সৃষ্টি হচ্ছে নতুন একটি মহাসাগর। গবেষকরা খুঁজে পেয়েছেন ভূমির যে দুটি অংশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং দ্বিতীয় জনবহুল মহাদেশ  তৈরি করেছে তা আলাদা হতে শুরু করেছে। আর এই বিভাজনের মধ্য দিয়ে একটি সম্পূর্ণ নতুন মহাসাগর সৃষ্টির পথ তৈরি হচ্ছে। এভাবে ভূমি যদি পৃথক হতে থাকে তাহলে জাম্বিয়া এবং উগান্ডার মতো দেশগুলো একদিন তাদের নিজস্ব উপকূলরেখার দেখা পাবে। 

আরও পড়ুন :  ময়মনসিংহে বাস-পিকআপ-অটোর ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ৪

এই বছরের শুরুতে একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে, বিজ্ঞানীরা আফ্রিকা বিভক্ত হতে শুরু করার সাথে সাথে একটি নতুন মহাসাগরের গঠন আবিষ্কার করেছিলেন।

জনপ্রিয় জার্নাল জিওফিজিক্যাল রিসার্চ লেটার্স অনুসারে, ভূতত্ত্ববিদরা নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়েছেন যে, আফ্রিকা মহাদেশ অর্ধেক ভাগ হয়ে যাওয়ায় একটি নতুন মহাসাগর তৈরি হচ্ছে। বিজ্ঞানীরা এই মহাদেশ ভাগ হওয়ার সঠিক জায়গাটিও সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন, যেখানে ৩০ মিলিয়ন বর্গ কিলোমিটারের বেশি মহাদেশটির খুব গভীর ভূগর্ভে প্রথম ভাগ হতে শুরু হয়েছিল। 

ফাটলটি তিনটি টেকটোনিক প্লেটের সীমানায় অবস্থিত। এটি এখন ধীরে ধীরে একে অপরের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। ভূতাত্ত্বিকরা লক্ষ্য করেছেন, এই জটিল টেকটোনিক প্রক্রিয়াটি এখন থেকে কয়েক মিলিয়ন বছর পরে সম্পূর্ণ নতুন জলের জন্য জায়গাা তৈরি করবে। টেকটোনিক স্থানান্তরটি সঠিকভাবে নিশ্চিত হওয়ার কারণ হচ্ছে, এটি দুটি সংযুক্ত স্থলভাগের মধ্যে লোহিত সাগর এবং এডেন উপসাগর উভয়কে সৃষ্টি করেছে। 

বিজ্ঞানীরা আরও আবিষ্কার করেছে, ফাটলটি পূর্ব আফ্রিকান রিফট নামে পরিচিত, বর্তমানে ইথিওপিয়ান মরুভূমিতে ২০০৫ সালে প্রথম প্রদর্শিত হওয়ার পর এই ফাটল এ পর্যন্ত ৩৫ মাইল দীর্ঘ হয়েছে। ফাটলটি আফ্রিকান, আরব এবং সোমালি টেকটোনিক প্লেটের সীমানার সীমানায় অবস্থান করছে এবং বিগত ৩০ মিলিয়ন বছর ধরে আরব প্লেট ধীরে ধীরে আফ্রিকা মহাদেশ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। উপরন্তু, সোমালি প্লেটটি পূর্ব আফ্রিকান রিফ্ট ভ্যালির মধ্য দিয়ে আফ্রিকান প্লেট থেকেও দূরে সরে যাচ্ছে।  

লিডস বিশ্ববিদ্যালয়ের ডক্টরেট ছাত্র ক্রিস্টোফার মুর ‘পৃথিবীতে এটিই একমাত্র জায়গা যেখানে আপনি অধ্যয়ন করতে পারেন কিভাবে মহাদেশীয় ফাটল একটি মহাসাগরীয় ফাটল হয়ে উঠছে।’ মুর পূর্ব আফ্রিকান অঞ্চলে আগ্নেয়গিরির ক্রিয়াকলাপ নিরীক্ষণের জন্য উপগ্রহ রাডার প্রযুক্তি ব্যবহার করেছিলেন। তখন তিনি দেখতে পান একটি মহাদেশ ধীরে ধীরে বিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে। 


জিপিএস যন্ত্র ব্যবহারের মাধ্যমে গবেষকরা এই ভূমির গতিবিধির সুনির্দিষ্ট পরিমাপ করতেও সক্ষম হয়েছেন। সামুদ্রিক ভূ-পদার্থবিদ এবং ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ইমেরিটাস অধ্যাপক কেন ম্যাকডোনাল্ড বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বলেছেন, ‘জিপিএস পরিমাপের সাহায্যে, আপনি প্রতি বছর কয়েক মিলিমিটারে চলাচলের হার পরিমাপ করতে পারেন।’ তিনি যোগ করেছেন: আমরা জিপিএস থেকে আরও বেশি পরিমাপ পাই, আমরা কী ঘটছে তার অনেক বেশি ধারণা পেতে পারি।’

ম্যাকডোনাল্ড নিশ্চিত করেছেন, ‘আফার অঞ্চলে এবং পূর্ব আফ্রিকান রিফ্ট উপত্যকায় এডেন উপসাগর এবং লোহিত সাগর প্লাবিত হবে এবং একটি নতুন মহাসাগরে পরিণত হবে সেই সঙ্গে পূর্ব আফ্রিকার সেই অংশটি তার নিজস্ব পৃথক ছোট মহাদেশে পরিণত হবে’।

ভূ-পদার্থবিদরা বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বলেছেন, তিনটি টেকটোনিক প্লেট বিভিন্ন গতিতে একে অপরের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে, কিন্তু আরবীয় প্লেট প্রতি বছর প্রায় এক ইঞ্চি হারে আফ্রিকা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। আফ্রিকান এবং সোমালি প্লেট উভয়ই প্রতি বছর আধা ইঞ্চি থেকে ০.২ ইঞ্চি পর্যন্ত আরও ধীর গতিতে ভেঙে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

অধ্যাপক কেন ম্যাকডোনাল্ড জোর দিয়ে বলেন, শুধু আমি নই, আমাদের মধ্যে আরও অনেকে এ বিষয়ে নিশ্চিত। পৃথিবী একটি সর্বদা পরিবর্তনশীল গ্রহ, এবং এটি আমাদের অনেকের জন্য একটি ভীতিকর সম্ভাবনা হতে পারে। আমরা একশ বছরে আমাদের মহান নাতি-নাতনিদের সম্পর্কে ভাবছি কিনা বা এটি কীভাবে আমাদের প্রভাবিত করতে পারে, আমাদের গ্রহের সঙ্গে কী ঘটছে তা জানা বরং গুরুত্বপূর্ণ। 

তিনি বলেন, একটি মহাদেশ যা নিরন্তর পরিবর্তনশীল গ্রহ দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হচ্ছে তা হল আফ্রিকা। ২০১৮ সালে কেনিয়াতে হঠাৎ বড় ফাটল দেখা দেওয়ার পর, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এই ফাটলটি মিডিয়ার অনেক বেশি মনোযোগ পেয়েছে। এটি দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ সৃষ্টি করেছে এবং একটি স্থানীয় মহাসড়কের প্রধান অংশ ধসে পড়েছে।

যদিও প্রাথমিক বিশ্বাস করা হয়েছিল, এটি পূর্ব আফ্রিকান ফাটলের সঙ্গে যুক্ত এবং এটির যে বৈশিষ্ট দেখা যাচ্ছে, তা সম্ভবত মাটি ক্ষয়ের কারণে হয়েছে। পৃথিবীর লিথোস্ফিয়ার ভূত্বক এবং ম্যান্টলের উপরের অংশ দ্বারা গঠিত। এটি টেকটোনিক প্লেটের একাধিক সংখ্যায় বিভক্ত। এই প্লেটগুলো স্টেশনারী নয়, এবং তাদের চারপাশে চলাফেরার কারণে সৃষ্ট আন্দোলনের কারণেও এটি ফেটে যেতে পারে।

পূর্ব আফ্রিকান রিফ্টে যা ঘটছে তা একটি ফাটল গঠনের দিকে নিয়ে যেতে পারে এবং একটি নতুন প্লেট সীমানা  তৈরি করতে পারে। ফাটলটির ৩,০০০ কিলোমিটার দূরত্ব জুড়ে বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য রয়েছে। দক্ষিণে এলাকাটি একটি সীমিত আগ্নেয়গিরি এবং ভূমিকম্প প্রবণ এলাকা। কিন্তু আপনি যদি আফার অঞ্চলের দিকে যান, তাহলে দেখা যাবে পুরো ফাটল উপত্যকার মেঝে আগ্নেয়গিরির শিলা দ্বারা আবৃত। এর অর্থ হল লিথোস্ফিয়ার প্রায় সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর্যায়ে পাতলা হযে গেছে। 

কয়েক মিলিয়ন বছর ধরে ফাটলটির পুরো দৈর্ঘ্য সমুদ্রতল পর্যন্ত চলে যাবে এবং একটি নতুন মহাসাগর সৃষ্টি করবে, যা দৃশ্যত ইতোমধ্যে ঘটতে শুরু করেছে। তারপরে মহাসাগর প্লাবিত হবে, আফ্রিকা মহাদেশকে ছোট করে রেখে ভারত মহাসাগর দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে ইথিওপিয়া এবং সোমালিয়ার কিছু অংশ মিলে তৈরি করবে একটি বড় দ্বীপ।

এস

×