ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১

তৃণমূল বিএনপির চমক ॥ অন্তরা হুদা এক্সিকিউটিভচেয়ারপারসন

শমসের মবিন চেয়ারপারসন তৈমুর আলম মহাসচিব

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২৩:৩৯, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

শমসের মবিন চেয়ারপারসন তৈমুর আলম মহাসচিব

রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে তৃণমূল বিএনপির প্রথম জাতীয় কাউন্সিলে

তৃণমূল বিএনপির কাউন্সিলে চমক এসেছে। যোগদান করেই দলটির শীর্ষ নেতৃত্বে চলে এলেন বিএনপির সাবেক দুই নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা শমসের মবিন চৌধুরী ও অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। শমসের মবিন চৌধুরী দলটির চেয়ারপারসন ও তৈমুর আলম খন্দকার মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন। আর দলটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার মেয়ে অ্যাডভোকেট অন্তরা সেলিমা হুদা দলটির এক্সিকিউটিভ চেয়ারপারসন নির্বাচিত হয়েছেন। কাউন্সিলে দলটির ২৭ সদস্যের আংশিক কমিটি নির্বাচিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে তৃণমূল বিএনপির প্রথম জাতীয় কাউন্সিলে কাউন্সিলরদের ভোটে নিজ নিজ পদে নির্বাচিত হন তারা।
এ দিন বেলা সাড়ে ১১টায় রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এ কাউন্সিল শুরু হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট অন্তরা সেলিমা হুদা। এর আগে মিলনায়তনের বাইরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে কাউন্সিলের উদ্বোধন করেন তিনি। দলের জাতীয় কাউন্সিলে যোগ দিতে সকাল থেকে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনের বাইরে বিভিন্ন স্থান থেকে তৃণমূল নেতারা সমবেত হন। তারা রেজিস্ট্রেশন বুথে নাম তালিকাভুক্ত করে মিলনায়তনে প্রবেশ করেন। ৬৪ জেলা থেকে যোগ দিয়েছেন তৃণমূল বিএনপির নেতারা।

তৃণমূল বিএনপিতে যোগ দেওয়া দুই নেতা এক সময় বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। একজন দল ছেড়ে চলে গেছেন। অন্যজন বহিষ্কার হয়েছেন। বর্ষীয়ান রাজনীতিক ও কূটনীতিক শমসের মোবিন চৌধুরী আগে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছিলেন; দলটির কূটনৈতিক উইংয়ের দায়িত্বও সামাল দিতেন তিনি। আর গত নারারণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচন করায় বিএনপি থেকে বহিষ্কার হন তৈমুর আলম খন্দকার। ওই সময় তিনি দলটির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পদে ছিলেন। দলছুট ও বহিষ্কার হওয়ার পর দীর্ঘদিন এই দুই নেতার রাজনৈতিক তৎপরতা চোখে পড়েনি। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে তারা সক্রিয় হয়েছেন। যোগ দিয়েছেন বিএনপি সরকারের সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত নাজমুল হুদার প্রতিষ্ঠিত তৃণমূল বিএনপিতে। 
মঙ্গলবার থেকে তৃণমূলে তাদের আনুষ্ঠানিক পথচলা শুরু। তাদেরকে স্বাগত জানিয়েছেন নাজমুল হুদার মেয়ে ও এতদিন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসা অ্যাডভোকেট অন্তরা সেলিমা হুদা। স্বাগত বক্তব্যে অন্তরা সেলিমা হুদা বলেন, ‘বাবার হাতেগড়া তৃণমূল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে এতদিন দায়িত্ব পালন করে এসেছি। কাজ করতে গিয়ে সব সময় একজন অভিভাবকের অভাব অনুভব করেছি। কিন্তু আজ আমি আনন্দের সঙ্গে বলতে চাই, এখন আমার মাথার ওপর দুইজন অভিভাবক এসে দাঁড়িয়েছেন। আমাদের মাঝে আজ উপস্থিত হয়েছেন আমার বাবার প্রিয়ভাজন শমসের মবিন চৌধুরী এবং অপরজন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ তৈমুর আলম খন্দকার। আমি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে তাদের স্বাগত জানাই। তাদের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ও অভিভাবকত্বে আমাদের দল আরও শক্তিশালী ও গতিশীল হবে।’
কাউন্সিলে উপস্থিত থাকতে না পারলেও আমেরিকা থেকে ভিডিও বার্তায় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তৃণমূল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ডা. শেখ হাবিবুর রহমান। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে তৃণমূল বিএনপি আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে। আপনরারা (কাউন্সিলর) যদি সংগঠনটাকে গোছাতে পারেন, তাহলে আগামী নির্বাচনে দেশের তৃতীয় বৃহত্তর শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে তৃণমূল বিএনপি।’ কাউন্সিলে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এলডিপির নাজিম উদ্দীন আল আজাদ, তরিকত ফেডারেশনের এম এ আউয়াল, তৃণমূল বিএনপির ফয়েজ চৌধুরী, রেজাউল করীম কাঞ্চন, কে এম জাহাঙ্গীর সামাজদার, অ্যাডভোকেট মাসুদ, প্রগতিশীল ন্যাপের চেয়ারম্যান পরশ ভাসানী, গণআজাদী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ খান প্রমুখ। 

দল পরিবর্তন করেছি লক্ষ্য পরিবর্তন হয়নি ॥ তৃণমূল বিএনপিতে যোগদানকারী শমসের মবিন চৌধুরী বলেছেন, দল পরিবর্তন হলেও তার রাজনৈতিক লক্ষ্য পরিবর্তন হয়নি। জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তিনি কাজ করবেন। এক প্রশ্নের জবাবে সমশের মবিন চৌধুরী বলেন, তৃণমূল বিএনপি একটি স্বাধীন রাজনৈতিক দল। এই দলের চিন্তাভাবনা নিজেদের। এটি ‘কিংস পার্টি’ নয়, এটি জনগণের পার্টি। কিংস পার্টি গঠিত হয়েছিল এক-এগারোর সময়।
তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর সাত মার্চের ভাষণের কারণেই আমরা পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে লড়েছি। রণাঙ্গনে একজন মুক্তিযোদ্ধার নাম না বলেই পারছি না, তার নাম সিপাহি নায়েব আলী। তার কবর পটিয়াতে রয়েছে। তিনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেছেন, যিনি পদ্মা সেতু তৈরি করতে পারেন, অবশ্যই তিনি সিন্ডিকেটও ভাঙতে পারেন।  আমি আশা করি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবশ্যই এ কাজটি করবেন। 
শমসের মবিন আরও বলেন, দেশে আজ জনসংখ্যা ১৭ কোটিরও ওপরে। সে জন্য সংসদীয় আসন আরও বাড়াতে হবে। দেশে আর কোনো হিংসা দেখতে চাই না। আমরা চাই শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ, শান্তিপূর্ণ রাজনীতি। অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হবে, যদি প্রশাসন নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে। তাহলে বাংলাদেশের পুরনো সেøাগান আমার ভোট আমি দেব, যাকে খুশি তাকে দেব। 
যোগ দেওয়ার কারণ জানালেন তৈমুর ॥ বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা (বহিষ্কৃত) অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার অনুষ্ঠানিকভাবে তৃণমূল বিএনপিতে যোগ দিয়েছেন। এই দলের প্রতিটি সদস্য তৃণমূলের অথরিটি, কেউ কারও ওপরে খবরদারি করতে পারবে না, তাই এই দলে যোগ দিয়েছেন তিনি। আমার দল (বিএনপি) তো আমাকে বহিষ্কার করেছে। এরপর আমি দেড় বছর অপেক্ষা করেছি একটা শোকজ নোটিসের জন্য। কেন বহিষ্কার করেছে আমাকে জানান। সেটার জবাব আমি দেব, আর আপনাদের (সাংবাদিক) মাধ্যমে দেশবাসী সেটা জানতে পারবে। তিনি বলেন, বিভিন্ন আন্দোলন, সংগ্রাম ও অনুষ্ঠানে আমি এই দলের পতাকা বহন করেছি।

আমি মনে করছি, আগে যে রাজনীতি করতাম সেই দলের সঙ্গে, এই নামের ও আদর্শের মিল আছে এবং নাজমুল হুদা বিএনপির প্রতিষ্ঠাকারী সদস্য ছিলেন, তিনিও এই দলের প্রতিষ্ঠাতা, এ জন্যই এই দলে আমি যোগ দিয়েছি। এই দলের প্রতিটি সদস্য তৃণমূলের অথরিটি, কেউ কারও ওপরে খবরদারি করতে পারবে না। তিনি বলেন, তৃণমূল বিএনপি এমন একটি দল, কেউ কারও ওপর খরবদারি করতে পারবে না। আমরা নির্বাচনে যাব। এর আগে আমাদের অবশ্যই আলাপ-আলোচনা করতে হবে। 
যারা কমিটিতে আছেন ॥ তৃণমূল বিএনপির চেয়ারপারসন নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী এবং মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। দলের প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদার মেয়ে সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অন্তরা সেলিমা হুদা নতুন কমিটিতে এক্সিকিউটিভ চেয়ারপারসন নির্বাচিত হয়েছেন। এ ছাড়া সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন মো. আক্কাস আলী খান।

ভাইস চেয়ারপারসন নির্বাচিত হয়েছেন- কে এ জাহাঙ্গীর মজুমদার, মেজর (অ) ডা. হাবিবুর রহমান, মোখলেসুর রহমান ফরহাদী, দীপক কুমার পালিত, মেনোয়াল সরকার, ছালাম মাহমুদ। যুগ্ম মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেনÑ অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম, অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান, ফয়েজ চৌধুরী, তালুকদার জহিরুল হক, রোখসানা আমিন সুরমা। কোষাধ্যক্ষ (ভাইস চেয়ারম্যান পদমর্যাদা) নির্বাচিত হয়েছেন শামীম আহসান। সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন শাহজাহান সিরাজ (বরিশাল), আকবর খান (চট্টগ্রাম )।
এ ছাড়া সহসাংগঠনিক সম্পাদক কামাল মোড়ল, দপ্তর সম্পাদক হিসেবে একে সাইদুর রহমান এবং মো. রাজু মিয়া, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক হিসবে কাজী ইব্রাহীম খলিল সবুজ, যুববিষয়ক সম্পাদক হিসেবে শাহাবউদ্দিন ইকবাল, আইনবিষক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আশানুর রহমান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক স্থপতি নাজমুস সাকিব, প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে সাগর ঘোষ এবং স্বেচ্ছাসেবকবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ফরহাদ হোসেন।
২০১৫ সালে ব্যারিস্টার নাজমূল হুদা তৃণমূল বিএনপি নামে দল প্রতিষ্ঠা করেন। ২০২৩ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি দলটি নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন পায়। তৃণমূল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল হুদা। তিনি ১৯৯১ ও ২০০১ সালে দুই দফায় খালেদা জিয়া সরকারে মন্ত্রী ছিলেন। তবে ২০১২ সালে বিএনপির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে বিএনএফ নামে নতুন দল গঠন করেন।

×