ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০

হিযবুত তাহরীরের শীর্ষ নেতা তৌহিদ গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:১৪, ৮ ডিসেম্বর ২০২৩

হিযবুত তাহরীরের শীর্ষ নেতা তৌহিদ গ্রেপ্তার

হিযবুত তাহরীরের শীর্ষ নেতা গ্রেপ্তার

নিষিদ্ধ ঘোষণার ১৪ বছর পর হিযবুত তাহরীরের শীর্ষ নেতা তৌহিদুর রহমান ওরফে তৌহিদ ওরফে সিফাতকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। বুধবার কক্সবাজার থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেছে ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসি)। তৌহিদ হিযবুত তাহরীরের শীর্ষ নেতাদের ২-৩ জনের মধ্যে একজন। 
বৃহস্পতিবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর গেয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার  ও সিটিটিসি প্রধান মো. আসাদুজ্জামান এ তথ্য জানান। গ্রেপ্তারকৃত সিফাতকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
সিটিটিসি প্রধান জানান, ২০০৯ সালে নিষিদ্ধ হলেও সদস্য সংগ্রহসহ সাংগঠনিক নানা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীর। তবে বিভিন্ন সময় সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা গেলেও আড়ালে থেকে গেছেন শীর্ষ নেতারা। কাটআউট পদ্ধতিতে নিজেদের কার্যক্রম পরিচালনা করায় কোনোভাবেই শীর্ষ নেতাদের শনাক্ত করতে পারছিলেন না গোয়েন্দারা। অবশেষে বুধবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজার থেকে তৌহিদ ওরফে সিফাতকে (২৯) গ্রেপ্তার করা হয়।
তিনি বলেন, গত ৩০ সেপ্টেম্বর হিযবুত তাহরীর অনলাইনে একটি সম্মেলন করে। তারা সম্মেলনের জন্য রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পোস্টার টানায়, অনলাইনে প্রচার ও এসএমএস পাঠানো হয়। সম্মেলনে নানা ধরনের বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো হয়েছে।
তিনি জানান, হিযবুত তাহরীর সাধারণত উচ্চবিত্ত ও মেধাবীদের টার্গেট করে প্রচার চালায়। তাদের ভাবনা, যদি এই শ্রেণিকে রিক্রুট করতে পারে তবে প্রতিষ্ঠিত সমাজে সমর্থন পাবে এবং খেলাফত প্রতিষ্ঠা করতে পারবে। তারা সদস্য সংগ্রহের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেও টার্গেট করে।
গ্রেপ্তারকৃত তৌহিদের পরিবারের একজন সদস্য সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তা। এ ছাড়া পরিবারের কয়েকজন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। তৌহিদকে ২০১১ ও ২০১৯ সালে দুই বার গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। জেল থেকে জামিনে বেরিয়ে আবারও সাংগঠনিক কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়েন। দীর্ঘ ১২ বছরে তৌহিদ সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ে চলে আসেন।
আসাদুজ্জামান জানান, তৌহিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করে হিযবুত তাহরীরের ফুলটাইম সদস্য হিসেবে কাজ করে আসছিলেন। ৩০ সেপ্টেম্বর তাদের অনলাইন সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন তৌহিদ। আমাদের তদন্ত অব্যাহত আছে। তাকে গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমরা খুব বেশি সময় পাইনি। 
আনসার আল ইসলামের তিনজন গ্রেপ্তার ॥ নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের দুই সক্রিয় সদস্যসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ)। এরা হচ্ছে, মো. রুহুল আমিন (১৯), মো. রিয়াজুল ইসলাম (২৩) ও আরিফ হোসাইন ওরফে আরিফুল ইসলাম রাহাত (৩১)। বৃহস্পতিবার বিকেলে এটিইউর সহকারী পুলিশ সুপার (মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস উইং) ওয়াহিদা পারভীন এ তথ্য জানান।

×