ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে অভিযান জরিমানা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২৩:২৭, ২৫ মার্চ ২০২৩

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে অভিযান জরিমানা

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে বাজার মনিটরিং জোরদার করা হয়েছে

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে বাজার মনিটরিং জোরদার করা হয়েছে। সরকারের বিভিন্ন সংস্থা প্রতিদিন বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করছে। দোকানে মূল্য তালিকা না টানিয়ে পণ্যের দাম বেশি রাখা, ভেজালখাদ্য বিক্রি, ওজনে কম দেয়া, নি¤œমানের পণ্য বিক্রি, কিংবা কৃত্রিম সংকট তৈরি করার অভিযোগে অসাধু ব্যবসায়ীদের তাৎক্ষণিক জরিমানা করছে সরকারি সংস্থাগুলো। রমজানের  দ্বিতীয় দিনে ঢাকার নিউমার্কেটে অভিযান চালায় ভোক্তা অধিদপ্তর। এ সময় বেগুনের ৎদাম বেশি রাখায় একজন সবজি বিক্রেতাকে এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া নিত্যপণ্যের দাম স্বাভাবিক রাখা ও অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি বন্ধে অভিযানে নেমেছে ঢাকা
মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।  
বাজারে অভিযান জোরদার করতে সরকারের নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে মাঠে রয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তর, জেলা প্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাব, গোয়েন্দা সংস্থা ও ঢাকা সিটি করপোরেশন। এছাড়া জেলা পর্যায়ে স্থানীয় প্রশাসন ও ভোক্তা অধিদপ্তর কাজ করছে। সরকারি সংস্থাগুলোর পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের সংগঠনগুলোও বাজার তদারকি করছে। ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই এবং বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির প্রতিনিধিরা সরকারি অভিযানগুলোতে প্রতিনিধি হিসেবে যুক্ত থাকছেন। এছাড়া পৃথকভাবেও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ এই দুই সংগঠন থেকে বাজার কমিটিগুলোকে সতর্ক করা হচ্ছে।

শনিবার রাজধানীর নিউমার্কেটে অভিযান চালায় জাতীয় ভোক্তা অধিদপ্তর। বেলা ১১টার দিকে অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে কর্মকর্তারা নিউমার্কেটের কাঁচাবাজার, মাছ বাজারসহ মুরগির বাজার ঘুরে দেখেন। সরেজমিনে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলতেও দেখা যায় তাদের। বেগুনের দাম বেশি রাখার বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় এক দোকানিকে এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। কেউ যাতে ব্রয়লার মুরগির দাম বেশি না রাখেন সে বিষয়ে সতর্ক করা হয় ব্যবসায়ীদের।

অভিযানকালে মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার আরও বলেন, দেশবাসীকে আমরা আশ্বস্ত করতে চাই- সরবরাহে কোনো প্রকার কমতি নেই। তবে মূল্যে নিয়ে কেউ যদি কারসাজি করেন, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তিনি বলেন, রমজান শুরু হয়েছে। এই রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সারাদেশে আমাদের তদারকি চলছে। রাজধানী ঢাকায় মোট ১১টি টিম তদারকি করছে। এর মধ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে চারটি টিম এবং আমাদের সাতটি টিম কাজ করছে। এছাড়া সারাদেশে আরও ৬৫টি টিম কাজ করছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিচালক আরও বলেন, বাজারে যদি এবার কোনো অনিয়ম হয়, তাহলে সংশ্লিষ্ট বাজার কমিটিকে দায়বদ্ধতার মধ্যে আনা হবে।

মাছ বাজারে অনেকেই ক্রয় রশিদ সংগ্রহ করছেন না জানিয়ে মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, ক্রয় রসিদ রাখার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। বাজার কমিটির সঙ্গে কথা বলেছি। বিক্রেতাদের জন্য ক্রয় রসিদগুলো রাখার ব্যবস্থা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 
এ অভিযানে ভোক্তা অধিদপ্তরের টিমের সঙ্গে ছিলেন, নিউমার্কেট বনলতা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির আহ্বায়ক মো. বাদল মিয়া। তিনি বলেন, পবিত্র মাহে রমজান ঘিরে আমরা ব্যবসায়ীদের মূল্য তালিকা প্রদর্শনসহ চালান রসিদ রাখার নির্দেশনা দিয়েছি। কোনো ক্রেতা যেন ক্ষতির মধ্যে না পড়েন, সে বিষয়ে সতর্ক করেছি। চালান রসিদ না রাখার বিষয়ে জানতে চাইলে বাদল মিয়া বলেন, আমাদের ব্যবসায়ী সমিতি থেকে চালান রসিদ রাখতে বলা হয়েছে।

মাইকিংসহ সরেজমিন ঘুরেও বাজার তদারকি করে সচেতন করেছি। অনেক ক্ষেত্রেই খুচরা ব্যাবসায়ীরা যেখান থেকে পণ্য ক্রয় করেন, তারাই মালের রসিদ দেয় না বলেও দাবি তার। অভিযানে অন্যদের মধ্যে জাতীয় ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মন্ডলসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।
অভিযানে ডিএমপি ॥ রমজান উপলক্ষে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে ঢাকা জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে রাজধানীতে বিভিন্ন স্থানে বাজার মনিটরিংয়ে নেমেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। সংস্থাটি জানিয়েছে, এককভাবে বাজার মনিটরিং এখনও শুরু করেনি তারা। বর্তমানে সমন্বয় করে কাজ করছে। শনিবার সকাল থেকে রাজধানীর নিউমার্কেট, কাওরান বাজার, পুরান ঢাকার বিভিন্ন স্থানে বাজার মনিটরিং পরিচালিত হচ্ছে। 
ডিএমপি সূত্র বলছে, রমজানের প্রথম দিনেই ম্যাজিস্ট্রেটকে সঙ্গে নিয়ে ডিএমপি আলাদাভাবে বাজার মনিটরিং করার কথা ছিল। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ পেতে দেরি হচ্ছে বলে এককভাবে এখনো বাজার মনিটরিংয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি তাদের। তবে এ বিষয়ে ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (অপারেশন) বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, রমজানের শুরুতে শুক্রবার-শনিবার ছুটির দিন পড়ে গেছে। ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ পত্র হাতে আসতে বিলম্বিত হচ্ছে। আশা করি, আগামী সোমবারের মধ্যে এ সমস্যার সমধান হয়ে যাবে। ইতোমধ্যে ঢাকা জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে রাজধানীতে ডিএমপির পুলিশ সদস্যরা বাজার মনিটরিংয়ের কাজ শুরু করেছে।

×