ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯

আসাদ আরও কয়েক বছর ক্ষমতায় থাকবেন ॥ রাশিয়া, তুরস্ক ও ইরানের মতৈক্য

অস্ত্রবিরতির পথে সিরিয়া

প্রকাশিত: ০৫:৫৬, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৬

অস্ত্রবিরতির পথে সিরিয়া

সিরিয়াকে আনুষ্ঠানিকভাবে কয়েকটি আঞ্চলিক প্রভাবাধীন অঞ্চলে ভাগ করা হবে। দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ রাশিয়া, তুরস্ক ও ইরানের এক সাধারণ মতৈক্যের আওতায় অন্তত আরও কয়েক বছর প্রেসিডেন্ট থাকবেন। বিভিন্ন সূত্রে এ কথা বলা হয়। এদিকে মস্কো ও আঙ্কারার মধ্যে আলোচনার পর সিরিয়াব্যাপী অস্ত্রবিরতির ভবিষ্যত বৃহস্পতিবার অস্পষ্টই রয়ে গেছে। যদিও তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা একটি চুক্তি হয়েছে বলে খবর দেয়। খবর এএফপি ও ডনের। এরূপ কোন মতৈক্য এখনও একেবারেই আদি অবস্থায় রয়েছে, এতে রদবদল ঘটতে পারে এবং আসাদ ও বিদ্রোহী বাহিনী এবং শেষপর্যন্ত উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলো ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্মতির প্রয়োজন হবে। এতে আসাদের আলাবিত সম্প্রদায় নিয়ন্ত্রিত এক ফেডারেল কাঠামোর ভিতর আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসন দেয়া হবে। রাশিয়ার চিন্তা-ভাবনার সঙ্গে পরিচিত সূত্রে এ কথা বলা হয়। রাশিয়ান ইন্টারন্যাশনাল এ্যাফেয়ার্স কাউন্সিলের ডিরেক্টর জেনারেল আন্দ্রেকর তুনভ বলেন, একটি আপোসরফার লক্ষ্যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ গবেষণা সংস্থাটি রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঘনিষ্ঠ। তিনি বলেন, কোন চূড়ান্ত চুক্তি করা কঠিন হবে কিন্তু দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ঘটেছে। তিনটি দেশের মধ্যে এক চুক্তির আওতায় আসাদের ক্ষমতা হ্রাস করা হবে বলে কয়েকটি সূত্রে জানানো হয়। রাশিয়া ও তুরস্ক তাকে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার সুযোগ দেবে। সেই নির্বাচনে তিনি এক মধ্যপন্থী আলাবিত প্রার্থীর অনুকূলে ক্ষমতা ছেড়ে দেবেন। ইরানকে এখনও আসাদের বিদায়ের বিষয়ে রাজি করানো যায়নি বলে ওই সব সূত্রে জানানো হয়। কিন্তু যাই ঘটুক, আসাদ শেষপর্যন্ত তার মুখ রক্ষা করার মতো উপায়ে বিদায় নেবেন এবং তার নিজের ও তার পরিবারের নিরাপত্তা পাবেন। করতুনভ বলেন, আসাদের সম্ভাব্য উত্তরাধিকারী হিসেবে কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তবে তিনি তাদের নাম জানাতে অসম্মত হন। এক ব্যাপকভিত্তিক সিরীয় চুক্তি সহজ ও দ্রুত সম্পন্ন করা হবে এবং তা নিশ্চিতভাবেই সফল হবে, এটি কেউই ভাবেননি। এটি স্পষ্ট যে, প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন প্রথমে তুরস্ক ও ইরানের সঙ্গে একটি মীমাংসার লক্ষ্যে মধ্যস্থতা করার চেষ্টায় নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করতে চান। এটি পুতিনের এক বিশ্বশক্তি ও মধ্যপ্রাচ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী হিসেবে রাশিয়ার ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারের দাবিকে জোরদার করবে। মস্কোয় নিযুক্ত সাবেক ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত স্যার টনি ব্রেনটন বলেন, যদি তারা বিশ্বকে বদলে দিতে সামনের কাতারে রয়েছে বলে দেখাতে পারে, তাহলে সেটি তাদের জন্য খুবই বড় পুরস্কার হবে। আমরা যুক্তরাষ্ট্রকেই সেই কাজটি করতে দেখতে অভ্যস্ত। আমরা বরং ভুলে গেছি যে, রাশিয়াও একই পর্যায়ের ভূমিকা পালন করত। রাশিয়া যদি তার ইচ্ছামাফিক কাজ করার সুযোগ পায়, তবে সিরীয় সরকার ও বিরোধীপক্ষের মধ্যে নয়া শান্তি আলোচনা রাশিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র কাজাখস্তানের রাজধানী অস্তানায় মধ্য জানুয়ারিতে শুরু হবে। এ আলোচনা জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় সময়ে সময়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা থেকে পৃথকই হবে এবং এতে প্রথমে যুক্তরাষ্ট্রকে জড়িত করা হবে না। এতে ওয়াশিংটনের কেউ কেউ বিরক্ত হয়েছেন। এদিকে সিরিয়ার আলেপ্পো শহরের অস্ত্রবিরতিকে দেশব্যাপী সম্প্রসারিত করতে রাশিয়া ও তুরস্ক একমত হয়েছে বলে বুধবার রাতে তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদুলো জানায়, কিন্তু আঙ্কারা বা মস্কো কেউই এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেনি। আলেপ্পোর বেসামরিক লোকজনকে অন্যত্র চলে যাওয়ার সুযোগ দিতে চলতি মাসের প্রথমদিকে তুরস্ক ও রাশিয়া শহরটিতে অস্ত্রবিরতি ঘটাতে মধ্যস্থতা করে। একে প্রায় ছয় বছরের যুদ্ধে এক বড় রকমের মোড় পরিবর্তন বলে অভিনন্দন জানানো হয়। যদি সফল হয় তবে সর্বশেষ প্রস্তাবটি দামেস্ক ও বিরোধী পক্ষের মধ্যে আসন্ন রাজনৈতিক আলোচনার ভিত্তি হবে। তুরস্ক ও রাশিয়ার তদারকিতে এ আলোচনা কাজাখ রাজধানী অস্তানায় অনুষ্ঠিত হবে।