ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

গরমে মেঝেতে ঘুমাচ্ছেন, জেনে নিন নিজের কত বড় ক্ষতি করছেন

প্রকাশিত: ১২:৩৭, ২২ এপ্রিল ২০২৪

গরমে মেঝেতে ঘুমাচ্ছেন, জেনে নিন নিজের কত বড় ক্ষতি করছেন

তীব্র গরমে অনেকেই একটু ঠান্ডা পেতে মাটিতে শুয়ে পড়েন

এই তীব্র গরমে অনেকেই একটু ঠান্ডা পেতে মাটিতে শুয়ে পড়েন, এতে অনেকটা আরামও পাওয়া যায়। কিন্তু শরীরের জন্য এটি কেমন, এতে শরীরে কেমন প্রভাব পড়ে, সেটি জেনে রাখা দরকারি। একটা সময় ছিল যখন অনেকেই মাটিতে বা মেঝেতে ঘুমোতেন। তবে এখন খাট আর ম্যাট্রেসেই বেশির ভাগ মানুষ ঘুমান। কিন্তু মেঝেতে ঘুমালে শরীরে বেশ কিছু প্রভাব পড়ে।


জেনে নিন মেঝেতে ঘুমালে শরীরে যে প্রভাব পড়ে-
পিঠের ব্যথা কমতে পারে: অনেকেই বলেন, মাটিতে ঘুমালে মেরুদণ্ড ভালোভাবে সোজা হয়ে থাকে। এতে যাদের পিঠে ব্যথার সমস্যা আছে, তারা কিছুটা উপকার পেতে পারে। এমনকী কোমরের ব্যথাও এতে কমতে পারে। তাই এঠি মোটেই খারাপ অভ্যাস নয়।

আরও পড়ুন : স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসেছিলেন জ্বর নিয়ে, ফিরলেন লাশ হয়ে

ঘুমের সমস্যা কমতে পারে: গরমে অনেকেরই ভালো করে ঘুম হয় না। মাটিতে ঘুমালে ইনসোমনিয়া বা ঘুম না হওয়ার সমস্যা কিছুটা প্রতিরোধ করা যায়। তাই গরমকালে এটি মোটেই খারাপ অভ্যাস নয়।

ঘাড়ে ব্যথাও কমতে পারে: ঘাড় সোজা করে না ঘুমালে ঘাড় ও পিঠে ব্যথা হতে পারে। বিশেষ করে আকাবাঁকা হয়ে ঘুমালে ঘাড়ে ব্যথা হতে পারে। তবে মেঝেতে ঘুমালে এই ব্যথা এড়ানো যায়। কারণ এক্ষেত্রে ঘাড় সোজা থাকে।

রক্ত সঞ্চালন ভালো হয়: মেঝেতে ঘুমোলে রক্ত সঞ্চালন অনেক ভালো হয়। শরীর ভালো রাখতে ভালো রক্ত সঞ্চালন জরুরি। তাই মেঝেতে শুলে সেই হিসাবেও শরীর ভালো থাকে।

তবে এর পাশাপাশি মেঝেয় শুলে শরীরে কিছু সমস্যাও হতে পারে। সেই বিষয়েও ভালো করে জেনে রাখা দরকার। বিশেষ করে যাদের কিছু শারীরিক সমস্যা আছে, তাদের মেঝেয় শোওয়া উচিত নয়।

জেনে নিন কারণগুলো-
অ্যালার্জির সমস্যা বাড়তে পারে: মেঝেতে প্রায়শই বেশি ধুলোবালি ও ময়লা জমে। বিশেষ করে কার্পেটের ওপর ঘুমানোর অভ্যাস থাকলে এর থেকে হাঁচি, সর্দি, চুলকানি, চোখ লাল হওয়া, শ্বাসকষ্ট ও কাশির মতো অ্যালার্জির সমস্যা বাড়তে পারে।

ঠান্ডা লেগে যেতে পারে: গরমে ঠান্ডা মেঝেতে ঘুমোলে আরাম পেতে পারেন, তবে ঠান্ডা মেঝেয় ঘুমোনোর কারণে সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হতে পারেন। এক্ষেত্রে শরীরের তাপ দ্রুত কমাতে পারে ও স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ঠান্ডা অনুভূত হয়। ফলে জ্বর হতে পারে।

তাই মেঝেয় ঘুমোনো আপনার জন্য ঠিক কি না, তা নিজে নিজে সিদ্ধান্ত নেবেন না। আর আরাম পেতে গিয়ে কোনও ভুল কাজ করবেন না। প্রয়োজনে অবশ্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। তার থেকে ভালো করে জেনে নিয়ে তবেই মেঝেতে শোবেন।

এবি 

×