ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১

বিনাইন টিউমার বিপজ্জনক নয়

ডা. মো. ফরহাদ আহমেদ

প্রকাশিত: ০১:১০, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

বিনাইন টিউমার বিপজ্জনক নয়

ক্যান্সার রোগ নিয়ে মানুষ এখন অনেক সচেতন

ক্যান্সার রোগ নিয়ে মানুষ এখন অনেক সচেতন। আবার ক্যান্সার নিয়ে ভীতির কারণও আছে। তাই কোন ধরনের টিউমার ক্যান্সার সৃষ্টি করে আর কোন ধরনের টিউমার ক্যান্সার সৃষ্টি করে না তা জানতে হবে। টিউমার হলো শরীরের অস্বাভাবিক টিস্যু পি-- যার কোষ বৃদ্ধি হয় স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক দ্রুত, অনিয়ন্ত্রিত ও সমন্বয়হীনভাবে। কোষের ধরন ও আচরণ অনুসারে টিউমার দুই ধরনের। বিনাইন এবং ম্যালিগনেন্ট। বিনাইন টিউমার বিপজ্জনক নয়।

এই টিউমারের বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে এটি একটি আবরণ দ্বারা বেষ্টিত, ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায়, আশপাশে বা শরীরের অন্য কোনো স্থানে ছড়ায় না, অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সম্পূর্ণ ভালো হয়। তবে ম্যালিগনেন্ট টিউমার খুবই বিপজ্জনক। এটি স্বভাবতই কোনো অবরণ দ্বারা বেষ্টিত থাকে না। ফলে বৃদ্ধি হয় অনিয়ন্ত্রিত ও অগোছালভাবে, বৃদ্ধি ঘটে দ্রুত, আশপাশের টিস্যুতে ছড়িয়ে পড়ে, রক্তের মাধ্যমে শরীরের অন্য জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে।

এই ম্যালিগন্যান্ট টিউমারকেই আমরা ক্যান্সার নামে জানি। শরীরের অন্য কোথাও ক্যান্সার হলে (যেমন- ফুসফুস, থাইরয়েড, খাদ্যনালী, কিডনি, মহিলাদের ক্ষেত্রে ব্রেস্ট), অনেক ক্ষেত্রেই সেটা মস্তিষ্কে ছড়িয়ে যেতে পারে, যেটাকে মেটাস্টাটিক টিউমার বলে। আবার মস্তিষ্কের নিজস্ব ক্যান্সারও রয়েছে, যেটা ব্রেনের বিভিন্ন অংশকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং খুব দ্রুত বড় হয়। 
লক্ষণ : ক্যান্সার আক্রান্ত হলে ক্ষুধামন্দা, বমিবমি ভাব, রক্তশূন্যতা, অল্প সময়ে ওজন কমে যাওয়া, দিন দিন দুর্বল হয়ে পড়ার লক্ষণ প্রকাশ পায়। একই সঙ্গে মস্তিষ্কের ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীরা প্যারালাইসিস, কথা বন্ধ হয়ে যাওয়া, তীব্র মাথাব্যথা, বমি, ঘনঘন খিচুনি, জ্ঞান হারিয়ে ফেলা- এই ধরনের উপসর্গ নিয়েও ডাক্তারের কাছে আসতে পারে।

চিকিৎসা : এসব ক্যান্সারে দ্রুত সময়ের রেফারেল ও চিকিৎসা না শুরু করলে, রোগীর সার্বিক পরিস্থিতি খুব দ্রুত অবনতি হয়। গবেষণায় দেখা গেছে সার্জারি করে টিউমার বের করে আনলে এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে রেডিওকেমোথেরাপি নিলে, রোগী অনেকদিন বেঁচে থাকেন। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে রোগীদের ফিজিওথেরাপি, স্পিচ থেরাপি, অকুপেশনাল থেরাপিরও প্রয়োজন হয়।
অস্ত্রোপচার : ক্যান্সার আক্রান্ত কোষগুলো এবং তার আশপাশের কোষগুলোকে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কেটে সরিয়ে ফেলা হয়। ক্যান্সার যদি অল্প একটু জায়গাজুড়ে থাকে এবং প্রাথমিক পর্যায়ে থাকে তাহলে এ ধরনের চিকিৎসা দেওয়া হয়।
রেডিওথেরাপি :  নিয়ন্ত্রিতভাবে শরীরের অংশবিশেষে তেজস্ক্রিয় রশ্মি প্রয়োগ করে সেই জায়গার কোষগুলোকে ধ্বংস করে ফেলা হয়।
কেমোথেরাপি : ক্যান্সার কোষকে ধ্বংস করতে অ্যান্টি-ক্যান্সার (সাইটোটক্সিক) ড্রাগস বা ওষুধ ব্যবহার করা হয়। বিভিন্ন ধরনের কেমিওথেরাপি ওষুধ রয়েছে। এগুলোর কোনো কোনোটা ট্যাবলেট বা ক্যাপসুল হিসেবে খেতে হয়। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই ওষুধগুলোকে স্যালাইনের সঙ্গে বা অন্য কোনোভাবে সরাসরি রক্তে দিয়ে দেওয়া হয়। রক্তের সঙ্গে মিশে এই ওষুধগুলো শরীরের যেখানে-যেখানে ক্যান্সার কোষ রয়েছে সেখানে গিয়ে ক্যান্সার কোষগুলোকে ধ্বংস করার চেষ্টা করে।

লেখক : ব্রেন, নিউরোভাসকুলার ও স্পাইন সার্জারি বিশেষজ্ঞ, নিউরো সার্জারি বিভাগ জাতীয় নিউরো সাইন্সেস ইনস্টিটিউট হাসপাতাল, আগারগাঁও
চেম্বার : আলোক হাসপাতাল,
মিরপুর-১০ ঢাকা

×