ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯

ডায়াবেটিস রোগীদের ত্বকের সমস্যা

ডা. জাহেদ পারভেজ

প্রকাশিত: ০১:৪৫, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২

ডায়াবেটিস রোগীদের ত্বকের সমস্যা

ডায়াবেটিস রোগীদের ত্বকের সমস্যা

ডায়াবেটিস খুব মারাত্মক একটি রোগ। বিশ্বজুড়ে এ রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। এমনকি আমাদের দেশে এর অবস্থাও প্রকট থেকে প্রকটতর হচ্ছে।
জনসাধারণ এই রোগ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী সোচ্চার। ডায়াবেটিস দেখা দিলে যাপিতজীবনে পরিবর্তন আনতেই হবে। খাদ্যাভ্যাস বদলে ফেলতে হবে। চিনি কিংবা চিনি জাতীয় খাবার পরিহার করে ওজনও নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। মেদ-ভুঁড়ি ঝেটে বিদায় করতে হবে। নিয়মিত শরীরচর্চা বা হাঁটার অভ্যাস তৈরি করতে হবে। নিজেকে রাখতে হবে সচল, কর্মময়। অতিরিক্ত স্ট্রেস থেকে মুক্ত রাখতে হবে শরীর-মন। ঘুমাতে হবে দৈনিক ৭/৮ ঘণ্টা করে। ধূমপান কিংবা মদ্যপানের বদাভ্যাস থেকে মুক্ত থাকতে হবে।

নিয়মিত ওষুধ সেবন করে রক্তের চিনির মাত্রা কাক্সিক্ষত সীমার মধ্যে রাখতে হবে। নিয়মিত পরখ করে দেখতে হবে শরীরে কোন জটিলতা তৈরি হচ্ছে কিনা। ডায়েট (খাদ্যাভ্যাস), ডিসিপ্লিন (শৃঙ্খলা) এবং ড্রাগ (ওষুধ) এই তিন ‘ডি’ দিয়ে মোকাবেলা করতে হবে; বড় ডি তথা ডায়াবেটিসকে।
তবে এ ভয়াবহ ডায়াবেটিসে আমাদের ত্বকেও কিন্তু বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। ডায়াবেটিস ও ত্বক উভয়েই শরীরের জন্য মারাত্মক লছ করে, তাই এ রোগে আক্রান্ত রোগীদের ত্বকের বাড়তি যতœ নেয়া এখনই একান্ত প্রয়োজন। চোখের পাতায় বা দেহের যে কোন জায়গায় ফোঁড়া, ফুসকুড়ি দেখা দিতে পারে। এ কারণে নখের গোড়ায় প্রদাহের সৃষ্টি হয়। দেহের যে কোন ভাঁজে, কুঁচকিতে ছত্রাকের আক্রমণ হয়ে ত্বকে মারাত্মক চুলকানি দেখা দেয়। রক্তে উচ্চমাত্রায় সুগার ত্বক পানিশূন্য করে ফেলে।

এতে ডায়াবেটিস রোগীর ত্বক শুষ্ক, ফেঁটে যায় ও চুলকানির সৃষ্টি হয়। গলার পেছনে, কুঁচকিতে এ ধরনের কালো, খসখসে আবরণ হয়, যা এ্যাকানথোসিস নেগ্রিকানস নামে পরিচিত। পায়ের সামনের ত্বকে গোলাকৃতি কালো-ছোপ দাগ থাকে। ত্বকের গভীর স্তরে চর্বি ও অন্যান্য স্তর ক্ষয় হতে থাকে। কারও কারও ইনসুলিন দেয়ার স্থানে ত্বক মোটা, উঁচু বা পাতলা হয়ে যায়। ইনসুলিন এ্যালার্জিও হতে পারে।
ত্বকের যতেœ সতর্কতা ও করণীয়
ত্বকে কাটা-ছেঁড়া, প্রদাহ, ফুসকুড়ি বা ঘা দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কাটলে বা আঘাত পেলে আক্রান্ত জায়গা সাবান-পানি দিয়ে ধুয়ে এ্যান্টিবায়োটিক ক্রিম ব্যবহার করুন। প্রতিদিন পায়ের যতেœ চিকিৎসকের কাছে গিয়ে পা পরীক্ষা করিয়ে নিন। ফুসকুড়ি বা ফোঁড়া ফাটানোর চেষ্টা করবেন না। গোসলে বা ত্বক ধোয়ার জন্য অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহার করবেন না। আঙুলের ফাঁকে লোশন ব্যবহার করবেন না।
ডায়াবেটিসজনিত জটিলতায় শরীরের যে কোন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ আক্রান্ত হতে পারে, ত্বকও এর ব্যতিক্রম নয়। ডায়াবেটিস থাকলে ত্বকের সুস্থতা রক্ষায় বাড়তি সতর্কতা দরকার।
ত্বকের নানাবিধ সমস্যা
১. চোখের পাতার প্রদাহ-ফোঁড়া, দেহের যে কোন জায়গায় ফোড়া-ফুসকুড়ি, ত্বক ও ত্বকের নিচে প্রদাহ, নখের গোড়ায় প্রদাহÑ এসবই ডায়াবেটিসে বেশি আক্রমণ করে।
২. ছত্রাকের আক্রমণে ত্বকের ভাঁজে, যেমন স্তনের নিচে, কুঁচকি ইত্যাদি স্থানে ফুসকুড়ি-চুলকানি ইত্যাদি হয়।
৩. রক্তের উচ্চ শর্করা ত্বককে পানিশূন্য করে দেয়। ফলে ডায়াবেটিক রোগীর ত্বক বেশি শুষ্ক, ত্বক ফেটে যায় ও চুলকানি হয়।
৪. এ্যাকানথোসিস নেগ্রিকানস এক ধরনের কালো খসখসে ত্বক আবরণ, যা ডায়াবেটিস ও স্থূল রোগীদের গলার পেছনে, ঘাড়ে, বাহুমূলে, কুঁচকিতে দেখা যায়।
৫. পায়ের সামনের ত্বকে গোলাকৃতি কালো-ছোপ দাগ থাকে।
৬. ত্বকের গভীরতর স্তরে চর্বি ও অন্যান্য স্তর ক্ষয় হয়ে ত্বকে ঘা হতে পারে।
৭. কারও কারও ইনসুলিন এ্যালার্জি, ইনসুলিন দেয়ার জায়গায় ত্বক মোটা-উঁচু বা পাতলা হয়ে যায়।
ডায়াবেটিসে ত্বকের যতœ কিভাবে নেবেন
*ত্বকে কাটা-ছেঁড়া, প্রদাহ, ফুসকুড়ি বা ঘা ইত্যাদি লক্ষ্য করলেই দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
*কাটলে বা আঘাত পেলে দ্রুত সাবান-পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং এ্যালকোহল বা আয়োডিনযুক্ত কিছু না লাগিয়ে বরং এ্যান্টিবায়োটিক ক্রিম ব্যবহার করুন।
*বছরে অন্তত দুবার চিকিৎসকের কাছে পা পরীক্ষা করিয়ে নিন। ডায়াবেটিক রোগীদের উপযোগী মোজা-জুতা-স্যান্ডেল ব্যবহার করুন, প্রতিদিন পায়ের যতœ নিন।
* নিজে ফুসকুড়ি বা ফোড়া ফাটানোর চেষ্টা করবেন না।
?. ত্বক ভেজা বা আর্দ্র রাখবেন না।
*শীত ভেবে গোসল বা ত্বক ধোয়ার জন্য অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহার করবেন না। মৃদু ক্ষারযুক্ত সাবান ব্যবহার করুন এবং গোসলের পর আর্দ্রতা রক্ষাকারী লোশন ব্যবহার করুন। আঙুলের ফাঁকে লোশন ব্যবহার করবেন না। সর্বপ্রিয় ডায়াবেটিসের রোগীরা সব বিষয়ে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা খুবই দরকার।

 লেখক : চীফ কনসালট্যান্ট
চর্ম, যৌন ও এ্যালার্জি রোগ বিভাগ। ডাঃ জাহেদ’স হেয়ার এ্যান্ড স্কিনিক, সাবামুন টাওয়ার
পান্থপথ মোড়, ঢাকা।
প্রয়োজনেÑ ০১৫৬৭৮৪৫৪১৯, ০১৭৩০৭১৬০৬০