ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বিয়ে করলেন সংগীতশিল্পী অংকন  

প্রকাশিত: ১৪:২৯, ১২ এপ্রিল ২০২৪

বিয়ে করলেন সংগীতশিল্পী অংকন  

অভিজিৎ জিতু-অংকন ইয়াসমিন

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অনন্যা ইয়াসমিন অংকন বিয়ে করেছেন। পাত্রের নাম অভিজিৎ জিতু। তিনি সংগীতের সঙ্গেই জড়িত। দুই বছর আগে বিয়ে হয়েছে তাদের। তবে গত সপ্তাহে রাজশাহীর গ্রামের বাড়িতে খুবই ছোট পরিসরে দুই পরিবারের সদস্য এবং নিকটাত্মীয় ও বন্ধুদের উপস্থিতিতে একটি গেট টুগেদার হয়। বিষয় নিশ্চিত করেছেন গায়িকা নিজেই।এ গায়িকা বলেন, আমাদের রেজিস্ট্রি হয়েছে ২০২২ সালেল ২৮ মে। সবকিছু পারিবারিকভাবেই হয়েছে। আর এ মাসের শুরুতে ছোট পরিসরে একটি গেট টুগেদার হয়েছে। এতদিন নিজেদের মধ্যে জানাজানি ছিল বিয়ের বিষয়টি। তবে, এখন মনে হলো বিয়ের মতো সুন্দর ও পবিত্র বিষয় সবাইকে জানানো প্রয়োজন। আমাদের নতুন জীবনের জন্য সবার কাছে দোয়া ও ভালোবাসা চাই।

পাত্র অভিজিৎ জিতু পেশায় একজন সংগীত পরিচালক এবং গিটারিস্ট। তিনিও সংগীতের মানুষ। এদিকে গায়িকা অংকনও সংগীতের হওয়ায় স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন উঠে―প্রেমের বিয়ে কিনা? জবাবে হাসতে হাসতে এ তরুণী গায়িকা বলেন, প্রেম তো কিছুটা ছিল বটেই।

অংকন আরও বলেন, একটি পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে প্রথম দেখা হয়েছিল আমাদের। এরপর অবশ্য একসঙ্গে আমাদের কাজ করা হয়েছে। একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের ফোক গানের প্রোগামে তার সঙ্গে কাজ করা হয়েছে আমার। এর বাইরেও অনেক কাজ করা হয়েছে।
 এর আগে, ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে  এক সাক্ষাৎকারে বিয়ে সংক্রান্ত ব্যাপারে এ গায়িকা বলেছিলেন, জন্ম-মৃত্যু-বিয়ে আল্লাহর কাছে। তিনিই জানেন আমার ভাগ্যে কে আছে। তবুও যদি নিজ থেকে কিছু চাওয়ার থাকে তবে সেই বিষয়ে আমার কাছে যেটা মনে হয়, সংগীতে আছে, সংগীত বুঝে এমন কেউ হলে বোধ হয় ভালো হয়।

ওই সময় প্রেমের বিয়ের বিষয়ে তিনি বলেছিলেন, অ্যারেঞ্জড ম্যারেজ আমার কাছে খুব একটা পছন্দের না। কারণ অ্যারেঞ্জ ম্যারেজে মানুষটি (হবু স্বামী) সম্পর্কে আগে থেকে কিছুই জানা থাকবে না আমার। মানুষটিকে জানা ও বুঝে উঠার আগেই তার সঙ্গে বিয়ে হয়ে যাবে আমার। আর আমি অবশ্যই জেনে-বুঝে চিনে তারপরে বিয়ে করব।প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে কলকাতার জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘সারেগামাপা’তে অংশ নিয়েছিলেন অংকন। সেখানে শুরুতে বাংলা ভাষায় পারফর্ম ভালো করলেও পরবর্তী ভাষা পরিবর্তনের জন্য সরে আসতে হয় তাকে। তবে দমে যাওয়ার ছিলেন না তিনি। নিজের চর্চা চালিয়ে যেতে থাকেন। পরবর্তীতে ২০১৬ সালে দেশীয় একটি রিয়েলিটি শো’তে অংশ নিয়ে সেকেন্ড রানার্স আপ হন।

অংকন দুই বছর বিরতি নিয়ে ২০১৮ সালে প্রথম মৌলিক গান ‘ভালো থাকতে দিলি না’ প্রকাশ করেন। প্রথম গানেই দারুণ সাড়া ফেলেন। তারপর পৃথক পৃথক সময়ে ‘বিচ্ছেদের করাত’, ‘আমারে ছাড়িয়া’, ‘তৃষ্ণা’, ‘তালা লাগাইছে’, ‘যে প্রেমেতে’, ‘বন্ধু যায়’, ‘চ্যাংড়া বন্ধুয়ারে’ ও ‘দেবর-ভাবী’ শিরোনামের মতো শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দেন জনপ্রিয় এই তরুণী গায়িকা।

অংকনের শুরুটা রিয়েলিটি শো-এর মাধ্যমে হলেও বর্তমানে টিভি শো, অডিও গানে ব্যস্ত সময় কাটছে। ইতোমধ্যে ত্রিশটির বেশি মৌলিক গান করেছেন তিনি। মূলত সুরেলা কণ্ঠে ফোক গান গেয়ে অল্প সময়ের মধ্যেই শ্রোতামহলে জায়গা করে নিয়েছেন অংকন। আর গানের পাশাপাশি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে পড়াশোনা করছেন তিনি।

শহিদ

×