ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

বাংলাদেশ

ঝিনাইদহে কালবৈশাখী ঝড়ে ফসলের ব্যপক ক্ষতি, নারীর মৃত্যু

প্রকাশিত: ১৪:১২, ২১ মে ২০২২

ঝিনাইদহে কালবৈশাখী ঝড়ে ফসলের ব্যপক ক্ষতি, নারীর মৃত্যু

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝিনাইদহ ॥ ঝিনাইদহে হটাৎ করে কালবৈশাখী ঝড় ও বজ্র বৃষ্টি হয়েছে। আজ শনিবার সকালে এ বজ্রবৃষ্টি ও কালবৈশাখী ঘড়ে আঘাত হানে। সেসময় বজ্রপাতে শৈলকুপা উপজেলার কুলচারা গ্রামে রুপা বেগম (৩৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ডেফলবাড়ি গ্রামে এক কৃষকের ২টি মহিষ বজ্রপাতে মারা গেছে। কালবৈশাখী ঝড়ে কালীগঞ্জ উপজেলার ৩ টি ইউনিয়ন, হরিণাকুন্ডু উপজেলার ১টি ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের বাড়ি-ঘর ও মাঠের ফসলের ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম ক্ষতিগ্রস্তদের খোঁজখবর নিয়ে সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আজ শনিবার সকাল ৬টার দিকে প্রচন্ড ঝড় বজ্র বৃষ্টি শুরু হয়। কালবৈশাখী ঝড়ে কালীগঞ্জ উপজেলার রায়গ্রাম, নিয়ামতপুর, রঘুনাথপুর, মনোহরপুর, দুলাল মুন্দিয়া, খামার মুন্দিয়া, বাবরা গ্রামের বেশকিছু কাঁচা ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড হয়ে গেছে, গাছপালা উপড়ে গেছে। ফসলের ব্যপাক ক্ষতি হয়েছে। হরিণাকুন্ডু উপজেলার ভায়না ইউনিয়নের তৈলটুপি, দোবিলা ও হরিয়াঘাটের পানের বোরজ, কালাগছসহ মাঠের ফসলের ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ের সময় বজ্রপাতে শৈলকুপা উপজেলার কুলচারা গ্রামের গোলাম নবীর স্ত্রী রুপা বেগম মারা গেছে। তারা স্বামী স্ত্রী বাড়ির পাশের সবজি ক্ষেতে ছিল। সেসময় স্বামী গোলাম নবীও আহত হয়েছে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ডেফলবাড়ি বাড়ি গ্রামে গোলাম আলীর গোয়ালঘরে বজ্রপাতে তার ২টি মহিষ মারা গেছে। যার দাম ৬ লাখ বলে তিনি জানান। মহিষ ২টির মৃত্যুর পর তিনি শোকের কাতর হয়ে পড়েছেন। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম জানান, কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে খবর পেয়েছি। ক্ষতির পরিমান নিরুপন করা হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে।