ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

জাতীয়

সাগরে মাছ ধরার ওপর ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু

প্রকাশিত: ২৩:৩০, ২০ মে ২০২২

সাগরে মাছ ধরার ওপর ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ বাংলাদেশের সামুদ্রিক জলসীমায় মাছের সুষ্ঠু প্রজনন, উৎপাদন এবং সামুদ্রিক মৎস্যের টেকসই উন্নয়নে মাছ ধরার ওপর ৬৫ দিনের সরকারী নিষেধাজ্ঞা শুরু হচ্ছে আজ শুক্রবার। সমুদ্রে কোন প্রকার নৌযান দিয়ে যাতে অবৈধভাবে মাছ ধরতে না পারে সেজন্য বাংলাদেশ কোস্টগার্ড ও বাংলাদেশ নৌপুলিশ এবং বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বিশেষ নজরদারি করবে। প্রতিবছরের ন্যায় ইতোমধ্যে সরকারীভাবে প্রচার প্রচারণা ও সভা করে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে মৎস্য বিভাগসহ স্থানীয় প্রশাসন। এদিকে, একই সময়ে ভারতের জলসীমানায় মাছ ধরা বন্ধ না থাকায় ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে বাংলাদেশী জেলেদের মধ্যে। সরেজমিনে চট্টগ্রামের বিভিন্ন ঘাট ও মৎস্য অবতরণকেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, বেশিরভাগ মাছ ধরার নৌযান ঘাটে ভিড়েছে। সাগরের মাছ নিয়ে গভীর সমুদ্র থেকে নগরীর ফিসারিঘাটে ফেরা এফভি মায়ের দোয়ার জেলেরা জানিয়েছে, ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞার সময়ে অলস শুয়ে বসে কাটানো ছাড়া কোন কাজই নেই। প্রায় দুই মাসের এই ধাক্কা কাটিয়ে উঠা কঠিন। সোনালী যান্ত্রিক মৎস্য শিল্প সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক বাবুল সরকার জানিয়েছেন, এই নিষেধাজ্ঞা মৎস্য সম্পদ সমৃদ্ধ করে। তবে বাজারে সাগরের মাছের সঙ্কট হবে কিছুদিন পর। কেননা স্বাভাবিকভাবেই দুই মাসের বেশি এই নিষেধাজ্ঞায় পুকুর ও চাষের মাছের ওপর নির্ভর করতে হবে। জাহাজে যেসব মাছ নিষেধাজ্ঞার আগে এসেছে তা দিয়ে আপাতত চলবে। উল্লেখ্য, মাছের সুষ্ঠু প্রজনন, উৎপাদন, সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণ এবং টেকসই মৎস্য আহরণের জন্য ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত মোট ৬৫ দিন বাংলাদেশের সামুদ্রিক জলসীমায় সব ধরনের মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। প্রতিবছরই এমন নিষেধাজ্ঞা জারি হয়।