সোমবার ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৩ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

সাগরিকায় জিততে চায় দুই দলই

সাগরিকায় জিততে চায় দুই দলই
  • বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা প্রথম টেস্ট শুরু আজ

মোঃ মামুন রশীদ, চট্টগ্রাম থেকে ॥ ঠিক এক বছর আগেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ দল। সেটি লঙ্কাভূমিতে! পাল্লেকেলের ব্যাটিং স্বর্গে প্রথম টেস্টে উভয় দলের ব্যাটাররা রানোৎসব করেছেন বলে ফয়সালা হয়নি। কিন্তু একই ভেন্যুতে কিছুটা বদলে যাওয়া উইকেটে সফরকারী বাংলাদেশকে ধসিয়ে দিয়েছেন লঙ্কান স্পিনাররা। এবার লড়াই চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। পাল্লেকেলের মতোই ব্যাটিং স্বর্গ করা হয়েছে সাগরিকাকে। বোলারদের জন্য তেমন সুবিধা না থাকলেও বাংলাদেশী ব্যাটারদের স্পিনের বিপক্ষে দুর্দশা মাথায় রেখে পাল্লেকেলেতে খেলানো স্পিনারদের সঙ্গে আরও এক ঝাঁক স্পিনার যোগ করেই সফরে এসেছে লঙ্কানরা। বরাবরই বাংলাদেশে দারুণ টেস্ট পরিসংখ্যান থাকা শ্রীলঙ্কা এবার অতীত সাফল্যকে ছাপিয়ে দুর্দান্ত কিছু করতে চায়। এমন প্রত্যয়ী ঘোষণা লঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারতেœর। আর বাংলাদেশ দল সাম্প্রতিক ব্যর্থতা কাটিয়ে এবার ঘুরে দাঁড়াতে চায়। অধিনায়ক মুমিনুল হক জানিয়েছেন, ব্যাটিং পারফর্মেন্সে উন্নতি করে জেতার জন্যই নামবে বাংলাদেশ। ম্যাচটি সকাল ১০টায় মাঠে গড়াবে।

আইসিসি বিশ^ টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ২ টেস্টের সিরিজ। তাই উভয় দলই সফল হতে উদগ্রীব। চ্যাম্পিয়নশিপের চলমান দ্বিতীয় চক্রেও তেমন সুবিধাজনক অবস্থানে নেই বাংলাদেশ। ৬ টেস্ট খেলে হেরেছে ৫টি, জয় শুধু মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়ে চরম ভরাডুবি হয়েছে সেই উজ্জীবিত দলটির। গত মাসের শুরুতে শেষ হওয়া প্রোটিয়াদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের উভয় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৩ ও ৮০ রানে গুটিয়ে যাওয়ার লজ্জাও হয়েছে। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর কঠিন চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশ দলের। এ বিষয়ে মুমিনুল বলেন, ‘প্রত্যেক সিরিজেই ব্যাটাররা ওভারকাম করতে চায়। আমরাও এই জিনিসগুলো নিয়ে কাজ করছি। আগের সিরিজে কী হয়েছে না হয়েছে এসব নিয়ে এখন এত চিন্তা করছি না। দুই জায়গার কন্ডিশনও অনেক ভিন্ন। এখানকার কন্ডিশনে কিভাবে মানিয়ে নেব এটাই গুরুত্বপূর্ণ। ঐ সিরিজের শিক্ষা কীভাবে কাজে লাগাচ্ছি এটাও গুরুত্বপূর্ণ।’ স্পিনারদের বিপক্ষে শুধু সাম্প্রতিক সময়েই নয়, সবসময়ই বেশ সমস্যায় ভুগেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। এবার তাই লঙ্কানরা এক ঝাঁক স্পিনার নিয়ে এসেছেন। গত বছর পাল্লেকেলেতে হওয়া টেস্টে অভিষিক্ত বাঁহাতি স্পিনার প্রাভীন জয়াবিক্রমা, অফস্পিনার রমেশ মেন্ডিস ও অফস্পিন অলরাউন্ডার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা কুপোকাত করেছেন বাংলাদেশী ব্যাটারদের। এবার তাদের সঙ্গে অভিজ্ঞ অফস্পিনার লাসিথ এম্বুলদেনিয়া, অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা লেগস্পিনার সুমিন্দা লক্ষণরা আছেন।

সাগরিকায় করা হয়েছে ব্যাটিং স্বর্গ। কিছুটা ঘাসের অস্তিত্ব রাখা হয়েছে যাতে স্পিনাররা সুবিধা করতে না পারেন। এজন্য সাফল্য পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হবে বাংলাদেশী বোলারদের। এ বিষয়ে লঙ্কান অধিনায়ক করুনারতেœ বলেছেন, ‘এখানে ২০ উইকেট নিতে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এই পূর্ণ ফ্ল্যাট উইকেটে বোলারদের দেয়ার জন্য কিছুই নেই। তবে যদি সপ্রতিভ ও কৌশলী হন তাহলেই এখানে উইকেট নিতে পারবেন।’ বাংলাদেশে বরাবরই লঙ্কানরা বেশ ভাল করেছে। ৮ টেস্ট খেলে ৬টিই জিতেছে এবং ২টি ড্র করেছে। সর্বশেষটি এই সাগরিকাতেই ২০১৮ সালে তারা ড্র করে প্রথম ইনিংসে ৯ উইকেটে ৭১৩ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে। সেটি আবার বাংলাদেশের বিপক্ষে লঙ্কানদের সেরা ইনিংস। ওই ম্যাচে ৩ সেঞ্চুরি হাঁকানো ব্যাটারদের মধ্যে শুধু রোশেন সিলভাই নেই। তবে আছেন ধনঞ্জয়া, কুসল মেন্ডিস এবং ৮৭ রান করা অভিজ্ঞ দিনেশ চান্দিমাল। এছাড়া ব্যাটিং লাইনে আছেন অভিজ্ঞ এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস, অধিনায়ক করুনারতেœ ও নিরোশান ডিকভেলা। গত বছর পাল্লেকেলের দুই টেস্টেই সেঞ্চুরি হাঁকান বাংলাদেশে ভাল না করা করুনারতেœ। এবারও অবশ্য প্রস্তুতি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে খেলতে পারেনি তারা। তবু করুনারতেœ আশাবাদী বাংলাদেশে অতীতের সাফল্যকে পেছনে ফেলতে। তিনি বলেছেন, ‘তারা হোম কন্ডিশনে দারুণ করে। কিন্তু আমরা মনে করি যে আমরা আগের বছরগুলোর তুলনায় এখানে ভাল করতে পারব। আগের বছরগুলোয় আমরা এখানে ভাল করেছি তাই আশা করছি এবারও ভাল করব।’

বাংলাদেশ দলের শক্তি অবশ্য বেড়েছে এবার বাঁহাতি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ফেরাপশ। তিনি অবশ্য করোনামুক্ত হয়ে একদিন ৩০ মিনিটের ব্যাটিং অনুশীলন করেই খেলতে নামবেন। এতে করে একাদশে ভারসাম্য আসবে বাংলাদেশ দলের। সে কারণে অভিজ্ঞ তামিম ইকবাল, মাহমুদুল হাসান জয়, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল, মুশফিকুর রহিম, সাকিব, লিটন দাস, তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসানদের সঙ্গে দুই পেসার নিয়ে একাদশ হতে পারে। এবাদত হোসেন, সৈয়দ খালেদ আহমেদ ও শরিফুল ইসলামের মধ্যে থেকে ২ জন খেলবেন। এই টেস্টে বড় স্বাগতিকদের বড় ঘাটতি অফস্পিন অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজ ও ডানহাতি পেসার তাসকিন আহমেদ না থাকা। দুর্দান্ত অফস্পিনের পাশাপাশি সম্প্রতি লেট অর্ডারে দারুণ ব্যাটিং করেছেন মিরাজ। তাসকিনও ছিলেন ফর্মে। তাই মুমিনুল বললেন, ‘তাদের দুজনকে মিস করব। একজন ভাল ব্যাটিংও করে, অলরাউন্ডার। ওদের জায়গায় যারা খেলবে তারা ঐ বার্তা দিতে চাইবে যে আমরাও ভাল অবস্থানে আছি। তাদের ওপর বিশ্বাস আছে।’ ৪ টেস্ট পর বাংলাদেশ দলে ফিরছেন সাকিব। তাই ব্যাটিং গভীরতা বাড়ানো এবং পাশাপাশি অফস্পিন করাতে নাঈমের বদলে শেষ মুহূর্তে মোসাদ্দেক হোসেনকেও খেলানো হতে পারে। কারণ মুমিনুল জানিয়েছেন তিনি ১২/১৩ ওভার বোলিং করার জন্য প্রস্তুত। অনুশীলনেও নিয়মিত তিনি দীর্ঘক্ষণ বোলিং করেছেন। তবে ব্যাটিং উন্নতি নিয়েই ভাবছে বাংলাদেশ। বিশেষ করে পয়মন্ত মাঠে মুমিনুল আবারও ফর্মে ফিরতে উন্মুখ এবং দলের বিপর্যয়ের মুহূর্তে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে বারবার উইকেট বিলিয়ে আসায় মুশফিককে নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে। অধিনায়ক মুমিনুলসহ কোচিং স্টাফরা তার এই শটটিকে সমর্থন করলেও তা একেবারে উপযুক্ত সময় বেছে খেলার পরামর্শই দিয়েছেন। নিজেরা কাজও করেছেন অনেক। ব্যাটিং উইকেট হলেও দিনের শুরুতে নতুন বলে এবং পুরনো বলে যাতে সফলতা আসে সেই কারণে পেস বোলিং কোচ এ্যালান ডোনাল্ড অনেক কাজ করেছেন। এখন লড়াইয়ের অপেক্ষা। ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য মুখিয়ে থাকা মুমিনুলরা এমন উইকেটেও পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলা সর্বশেষ টেস্টে পেসারদের বিপক্ষে ব্যর্থ হয়েছেন ব্যাটিংয়ে। এবার সেটা কাটিয়ে উঠতে পারাটাই চ্যালেঞ্জ।

শীর্ষ সংবাদ: