মঙ্গলবার ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৬ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

কদম্বতলে বংশী আর বাজে না, তবু ডেকে যায় নীপবন

কদম্বতলে বংশী আর বাজে না, তবু ডেকে যায় নীপবন
  • প্রিয় ফুলে আবার সেজেছে চারপাশ

মোরসালিন মিজান ॥ বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান...। হ্যাঁ, কদম বাদল দিনের ফুল। বর্ষায় ফুটে। একই সময় আরও অনেক ফুল ফুটে। সে যতই ফুটুক, কদম স্পেশাল। বর্ষাকে বাঙালী এ ফুল দিয়েই চেনে। ফুলটি ফুটলেই বোঝা যায়, বর্ষার কাল চলছে। অথবা বর্ষা শুরু হলেই চোখ খুঁজে বেড়ায় কদমের ফুল।

তবে এখন শরত। বর্ষা বিদায় নিয়েছে অনেক আগে। তাহলে এই সময়ে এসে কেন কদমের কথা? কারণ আছে। সম্প্রতি বর্ষায় ফুলটিকে তেমন দেখা যাচ্ছে না। রাজধানী শহরে তো একদমই নয়। বর্ষা যাই যাই করছিল যখন, অল্প স্বল্প ফুটতে শুরু করে। আর এখন শরতের কালে এসে দেখা যাচ্ছে গাছ ভর্তি ফুল। বর্ষার কাল বিদায় নিলেও, বৃষ্টি অব্যাহত আছে। বৃষ্টির জলে ধোয়া ফুল মুগ্ধ করে রেখেছে প্রকৃতিকে।

ঢাকার রমনা পার্ক, চন্দ্রিমা উদ্যান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, বলধা গার্ডেনে আছে কদম গাছ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেও কম বেশি দেখা যায়। বিভিন্ন রাস্তার ধারে, ঝিলের পাড়ে আছে। আর মিরপুরের জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে তো আছেই। এখন অধিকাংশ গাছেই ফুল। উপরের দিকে তাকাতেই মন ভাল হয়ে যায়। কানে বাজে : এসো নীপবনে ছায়াবীথিতলে, এসো করো স্থান নবধারা জলে...। আর সে জনপ্রিয় লোকসঙ্গীতের কথা তো না উল্লেখ করলেই নয়, যেখানে প্রেয়সী কদম্ব তলে ছুটে আসতে মরিয়া। প্রেমিক পুরুষের জন্য আকুতি প্রকাশ করতে গিয়ে গ্রামীণ নারী গাইছে : প্রাণ সখিরে/ঐ শোন কদম্ব তলে বংশী বাজায় কে/বংশী বাজায় কে রে সখী/বংশী বাজায় কে/আমার মাথার বেনী বদল দেব/তারে আইনা দে...।

নারী প্রিয় কদম ফুল খোঁপায় পরে। শহরেও দেখা যায় এমন দৃশ্য। দুরন্ত কিশোরের দল উঁচু গাছ থেকে কদম ফুল সংগ্রহ করে গুচ্ছ আকারে বিক্রি করে। এখন আশপাশে একটু খেয়াল করলেই পেয়ে যাবেন তাদের।

কদম নামে সবাই চিনলেও এর আছে আরও কিছু নাম। এই যেমন : বৃত্তপুষ্প, মেঘাগমপ্রিয়, কর্ণপূরক, ভৃঙ্গবল্লভ, মঞ্জুকেশিনী, পুলকি, সর্ষপ, প্রাবৃষ্য, ললনাপ্রিয়, সিন্ধুপুষ্প ও সুরভি।

কদম গাছ দীর্ঘাকায় বৃক্ষ। সরল কা- উপরের দিকে বহু দূর পর্যন্ত উঠে যায়। শাখা-প্রশাখাও অনেক। এগুলো ভূমিভাগের সমান্তরালে প্রসারিত হয়। কদম ফুল দেখতে গোলাকার। ছোট টেনিস বলের মতো। মাংসল অংশটিকে আড়াল করে রাখে অপরূপ মঞ্জরি। পূর্ণ প্রস্ফুটিত মঞ্জরিতে কমলা ও সাদা রং স্পষ্ট। ফুলের বৃতি সাদা। দল হলুদ। ফুলটিই পরে ফলে পরিণত হয়। কাঠবিড়ালীর বেশ মজা করে খায়। এমনকি গ্রামের দুরন্ত ছেলেদের ফলটি খেতে আমি নিজেও দেখেছি। পাতাও বেশ সুন্দর। বড় এবং কিছুটা ডিম্বাকৃতির। বড় ও ঘন পাতার কারণে গাছের নিচটা ছায়াঘন ও সুশীতল থাকে।

কদমের ভেষজ গুণও আছে। এখন করোনার কাল। প্রচুর জ্বর হচ্ছে মানুষের। কিন্তু অনেকেই জানেন না যে, কদম গাছের ছাল জ্বরের ওষুধ হিসেবে বেশ উপকারী।

তবে সবার আগে ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করা চাই। বলা চলে মৌসুম চলছে এখন। ফুলপ্রেমীরা আশপাশে তাকান উপভোগ করুন কদমের সৌন্দর্য।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৬         রফতানি পণ্যের উৎপাদন বাড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর         অপপ্রচার করাই বিএনপির শেষ আশ্রয়স্থল ॥ কাদের         ইউপি নির্বাচন : ৮৮ ইউনিয়নে নৌকার প্রতীক থাকছে না         সাক্ষ্য অইনের ১৫৫(৪) ধারা বাতিলে নারীর মর্যাদাহানি রোধ করবে : আইনমন্ত্রী         নিম্ন আয়ের পরিবারের সদস্যরা সরকারের সকল সেবা সম্পর্কে অবগত নয় : মেয়র খালেক         আন্দোলন থেকে সরে এলেন বিমানের পাইলটরা         ডেঙ্গু : হাসপাতালে ভর্তি ১৮২, মৃত্যু ১         জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করবে অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশ         গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘বি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ         ‘শিগগিরই পূজামণ্ডপে সহিংসতায় ইন্ধনদাতাদের নাম প্রকাশ’         দেশের সম্প্রীতি বিনষ্টে পরিকল্পনা হয়েছে লন্ডনে বসে ॥ তথ্যমন্ত্রী         সমিতির নামে ‘কর্ণফুলী মাল্টিপারপাসের প্রতারণা, টার্গেট নিম্নবিত্তরা         মাদক মামলায় পরীমনির জামিন মঞ্জুর         ইতালির উপকূল থেকে ৩৩৯ অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার         খালেদা জিয়াকে কেবিনে স্থানান্তর         নতুন রাজনৈতিক দল ঘোষণা করলেন নুর         রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যা ॥ তিন আসামি ২ দিনের রিমান্ডে         ঢাবি থেকে নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার         মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ইসমাইল হোসেনের নাম অন্তর্ভুক্তির দাবি