রবিবার ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৯ আগস্ট ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চীন-মার্কিন দ্বন্দ্ব যে পরিণতি ডেকে আনতে পারে

চীন-মার্কিন দ্বন্দ্ব যে পরিণতি ডেকে আনতে পারে

অনলাইন ডেস্ক ॥ বেশ কিছুদিন ধরেই পারমাণবিক শক্তিধর এই দুই দেশ যুক্তরাষ্ট্র আর চীনের মধ্যে উত্তেজনা বাড়ছে। তবে গত এক সপ্তাহের ঘটনায় তাদের সম্পর্ক একেবারে যেন তলানিতে এসে ঠেকেছে। কিন্তু নতুন এই মার্কিন-চীন দ্বন্দ্বের পেছনে কী উদ্দেশ্য কাজ করছে? এই উত্তেজনা-বৃদ্ধি কী পরিণতি ডেকে আনতে পারে?

গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টনে চীনা কনস্যুলেট বন্ধ করে দেয়ার আদেশের পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে চেংডুর মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে বেইজিং। এর মধ্যেই চেংডু কনস্যুলেট ছাড়তে শুরু করেছেন আমেরিকান কূটনীতিকরা।

হিউস্টনের কনস্যুলেট থেকে চীন বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ ''চুরি'' করার তৎপরতা চালাচ্ছিল বলে অভিযোগ আনে মার্কিন প্রশাসন।

‘বিরল এবং নাটকীয়’ পদক্ষেপ

যুক্তরাষ্ট্রের দিক থেকে একটি বিদেশি মিশন বন্ধ করে দেয়া নজিরবিহীন কিছু নয়। তবে এ ধরনের পদক্ষেপ সচরাচর ঘটে না এবং একবার ঘটে গেলে তা থেকে পিছিয়ে আসা কঠিন।

মনে রাখতে হবে চেংডুতে যা বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে তা একটি কনস্যুলেট, দূতাবাস নয়। তাই এখানে পররাষ্ট্র নীতিসংক্রান্ত কাজকর্ম হয় না। কিন্তু বাণিজ্য এবং বৈদেশিক কর্মকাণ্ডের আওতা বাড়ানোর ক্ষেত্রে এর একটি ভূমিকা আছে।

যেহেতু হিউস্টনে চীনা কনস্যুলেট বন্ধ করে দেবার প্রতিশোধ হিসেবে চেংডুর মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে-তাই এতে যে কূটনৈতিক অবকাঠামোর মাধ্যমে দুই দেশের যোগাযোগগুলো হয়-তার একটা ক্ষতি তো হচ্ছেই।

এর আগে পাল্টাপাল্টি ব্যবস্থা হিসেবে দুদেশকে ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ, কূটনৈতিক ভ্রমণের নতুন নিয়মকানুন, আর বিদেশি সংবাদদাতাদের বহিষ্কারের মত পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে। এবং সাধারণভাবে বলা যায়, যুক্তরাষ্ট্রই বেশি আক্রমণাত্মক ভূমিকা নিয়েছে।

গুপ্তচরবৃত্তি সীমা ছাড়িয়ে গেছে

সব দেশেই বিদেশি মিশনগুলো থেকে কিছুটা গুপ্তচরবৃত্তি চালানো হয়ে থাকে-এটা মোটামুটি ধরেই নেয়া হয়। কিন্তু মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন হিউস্টনে যা হচ্ছিল তা গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে অনেক বেশি।

মার্কিন প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, হিউস্টন কনস্যুলেটটি অর্থনৈতিক গুপ্তচরবৃত্তি এবং প্রভাব বিস্তারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে খারাপ দৃষ্টান্ত স্থাপন করছিল এবং তাদের মতে সবগুলো চীনা কূটনৈতিক স্থাপনাতেই এটা চলছে। সে কারণেই এই কর্মকর্তারা বলছেন, তারা চীনকে একটা শক্ত বার্তা দিতে চেয়েছিলেন যে এগুলো আর সহ্য করা হবে না।

এ মাসের প্রথম দিকে এফবিআইয়ের পরিচালক ক্রিস্টোফার রে একটি ভাষণ দিয়েছিলেন-যাতে তিনি বলেন, গত এক দশকে মার্কিন স্বার্থের প্রতি চীনা হুমকি অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি আরো বলেন, তাকে এখন গড়ে প্রতি ১০ ঘণ্টায়

একটি নতুন কাউন্টার ইনটেলিজেন্স তদন্ত শুরু করতে হচ্ছে-যার সাথে চীন সম্পর্কিত। তবে বেইজিং সবসময়ই এসব অভিযোগকে বিদ্বেষমূলক অপপ্রচার বলে উড়িয়ে দিয়েছে।

তা ছাড়া সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময় মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এশিয়া বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা ড্যানি রাসেল মনে করেন, এটা হয়তো প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের রাজনৈতিক সমস্যা থেকে অন্যদিকে দৃষ্টি ঘুরিয়ে দেবারও একটা চেষ্টা হতে পারে।

তাহলে কি এর সাথে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের একটা সম্পর্ক আছে?

এর উত্তর ‘হ্যাঁ’ এবং ‘না’ দুটোই হতে পারে। ‘হ্যাঁ ’ উত্তরের পক্ষে বলা যায়, ট্রাম্প এখন তার নির্বাচনী প্রচারাভিযানে চীনবিরোধী কথাবার্তা পুরোপুরিভাবে ব্যবহার করছেন। তার প্রচারকৌশলবিদরা মনে করেন এটা ভোটারদের মনে দাগ কাটবে।

ট্রাম্পের ২০১৬ সালের নির্বাচনী বিজয়ের আগেও চীনের ব্যাপারে কঠোর হবার কথা বলা হয়েছিল। এর সাথে এবার যোগ করা হচ্ছে করোনাভাইরাস মহামারির ক্ষেত্রে চীনের ভূমিকা। এই সংকটে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যা করেছেন তাতে তার জনপ্রিয়তার গুরুতর ক্ষতি হয়েছে, কিন্তু তার বার্তাটা হচ্ছে, কোভিড বিপর্যয়ের জন্য তিনি নন-বরং দায়ী হচ্ছে চীন।

আর ‘না’ উত্তরের পক্ষে যুক্তি হলো-ট্রাম্পের প্রশাসনের মধ্যে যারা কট্টরপন্থী-যেমন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও-তারা দীর্ঘদিন ধরেই বেইজিংএর বিরুদ্ধে কঠোর নীতি নেবার জন্য চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন।

এখন যে দৃষ্টিভঙ্গী নেয়া হয়েছে, তার ভিত্তি স্থাপন করেছেন এরাই। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বরং কট্টরপন্থীদের পরামর্শ এবং তার নিজের একটা বাণিজ্য চুক্তি ও চীনা নেতা শি জিনপিংএর সাথে তার ‘বন্ধুত্ব’ বাড়ানোর আকাঙ্ক্ষার মধ্যে একটা দোদুল্যমান অবস্থায় ছিলেন।

তবে এখন কনস্যুলেট বন্ধ করার ঘটনায় আভাস মিলছে যে মার্কিন প্রশাসনের ভেতরে ‘হক‌’ বা কট্টরপন্থীরা এখন শক্তিশালী হয়ে উঠেছে ।

করোনাভাইরাস পৃথিবীতে যে দুর্যোগ নিয়ে এসেছে-তার ব্যাপারে চীনা সরকারের স্বচ্ছতার অভাব ওয়াশিংটনে ক্রোধ সৃষ্টি করেছে। আর এই ক্রোধ মার্কিন প্রশাসনের কট্টরপন্থীদের জন্য সহায়ক হয়েছে।

এর পরিণতি কী হতে পারে?

বলা যেতে পারে, স্বল্পমেয়াদে যা হবে তা হলো মার্কিন নির্বাচনের আগে পর্যন্ত বিপজ্জনকভাবে উত্তেজনা বৃদ্ধি।বিশ্লেষকরা মনে করে চীনারা উত্তেজনা বৃদ্ধি হোক এটা চায় না, এবং প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও খুব গুরুতর সংঘাত চান না, সামরিক সংঘাত তো নয়ই।

ড্যানি রাসেল বলছেন, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনা না বাড়ানোর যে নীতি এতদিন চীন-মার্কিন সম্পর্ককে সংঘাত থেকে রক্ষা করছিল তা এখন ছুঁড়ে ফেলে দেয়া হয়েছে।

নভেম্বরে মার্কিন নির্বাচনে কে জিতবে তার ওপরই আসলে নির্ভর করে দীর্ঘমেয়াদে এ ক্ষেত্রে কী ঘটবে। তবে ডেমোক্রেটিক প্রার্থী জো বাইডেন হয়তো সহযোগিতা বাড়াতে আগ্রহী হবেন কিন্তু প্রচারাভিযানে তিনিও চীনের ব্যাপারে কঠোর নীতি নেবার কথা বলছেন। কারণে হোয়াইট হাউসে ঢোকার প্রতিযোগিতায় এটি একটি জনপ্রিয় ইস্যু।

রক্ষণশীল মার্কিন থিংক ট্যাংকের নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ জিম কারাফানো অবশ্য বলছেন, চীনকে চ্যালেঞ্জ করাটা আসলে উত্তেজনা বাড়াবে না বরং স্থিতিশীলত আনবে। তার কথা-“চীন কোথায় আমাদের স্বার্থের ক্ষতি করছে তা অতীতে আমরা পরিষ্কার করে বলিনি বলেই তাদের বাড় বেড়েছে।

তবে রিপাবলিকান রাজনীতিবিদ, উইলিয়াম কোহেন-যিনি ডেমোক্রেটিক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের সময় প্রতিরক্ষমন্ত্রী ছিলেন-বলেন চীনকে বৈরি হিসেবে দেখাটা বিপজ্জনক।

তার কথায়, “চীনের সামরিক, অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত বিকাশের কারণেই যুক্তরাষ্ট্র বলছে আমরা এতদিন যেভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য করেছি এখন আর সেভাবে পারবো না। কিন্তু তার পরও তো আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য করতে হবে।’

সূত্র: বিবিসি বাংলা।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
১৯৫৬৪৫৮৪
আক্রান্ত
২৫৫১১৩
সুস্থ
১২৫৬০২৯৬
সুস্থ
১৪৬৬০৪
শীর্ষ সংবাদ:
প্রাণ ভিক্ষা চাননি ॥ খুনীদের কাছে         রাজধানী ও আশপাশের এলাকায় কমতে শুরু করেছে পানি         রাঘব বোয়ালরা অধরাই ॥ মানব পাচার         গ্যাসক্ষেত্র কিনে নেয়ার সাহসী সিদ্ধান্ত বঙ্গবন্ধুই নিয়েছিলেন         প্রদীপের প্রাইভেট বাহিনীর তাণ্ডব ওপেন-সিক্রেট         রুশ ভ্যাকসিন আসছে আর মাত্র ৩ দিন পর         বার বার আহ্বান সত্ত্বেও করোনা টেস্টে মানুষের সাড়া মিলছে না         করোনায় আরও ৩২ জনের মৃত্যু         কাল লন্ডন-সিলেট রুটে বিমানের ফ্লাইট চালু হচ্ছে         কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কারিকুলাম আধুনিক করতে হবে         চুয়াডাঙ্গা ও ময়মনসিংহে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঝরল ১৩ প্রাণ         স্রোতে শিমুলিয়ার দুটি ঘাট বিলীন ॥ ফেরি চলাচলে অচলাবস্থা, দুর্ভোগ         কাঁচা চামড়া রফতানি নিয়ে দোটানায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়         ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জনের মৃত্যু         মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুর খুনীর একজনকে দেশে আনার প্রক্রিয়া চলছে ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৬১১ জনের করোনা শনাক্ত, নতুন মৃত্যু ৩২         মির্জাপুরে দুই মোটরসাইকেল আরোহীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার         কাল থেকে শুরু হচ্ছে একাদশে ভর্তি আবেদন         বঙ্গমাতা ছিলেন জাতির পিতার যোগ্য ও বিশ্বস্ত সহচর ॥ প্রধানমন্ত্রী         বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সার্বক্ষণিক রাজনৈতিক সহযোদ্ধা॥ সেতুমন্ত্রী        
//--BID Records