মঙ্গলবার ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

রাজশাহীর আনাচে-কানাচে করোনার হানা, স্বাস্থ্যবিধিতে অনীহা

রাজশাহীর আনাচে-কানাচে করোনার হানা, স্বাস্থ্যবিধিতে অনীহা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ রাজশাহী নগরী ও জেলার আনাচে-কানাচে এখন হানা দিয়েছে করোনা। ক্রমেই করোনা পরিস্থিতি ভয়ানক হয়ে উঠেছে। কিছু দিন আগেও পরিস্থিতি বেশ ভালো থাকলেও এখন তা বিপদজনক হয়ে পড়েছে। রাজশাহীর ৯টি উপজেলার চেয়ে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এখন মহানগরীতে বেশি।

রাজশাহীতে আক্রান্তের সংখ্যা এখন দাড়িয়েছে ২৯৯ জন। যার মধ্যে সবচেয়ে বেশী নগরে ১৪৩ জন। আক্রান্তের এসব তথ্য ছাড়াও রাজশাহী মহানগরীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি না মানায় দিনে দিনে রাজশাহী মহানগরীতে করোনা পরিস্থিতি আরো বেশি ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। বাজার, পথে ঘাটে কোথাও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। স্বাস্থ্যবিধিতে বলা হয়েছে তিনফুট দুরত্বের কথা। যানবাহন চলাচলের সময় বাসে সিট প্রতি একজনের বেশি যাত্রী নেয়া যাবে না। অটোরিকশায় চারজনের বেশি যাত্রী নেয়া যাবে না। বাসে বা অটোরিকশায় যাত্রী উঠানোর সময় জীবানুনাশক স্প্রে করতে হবে। দিনে যতবার যাত্রী উঠানো হবে ততবার যানবাহনে জীবাণুনাশক ওষুধ স্প্রে করতে হবে। কিন্তু নগরীতে চলাচল করা অটোরিকশা চালকরা বিষয়টি গুরুত্ব দিচ্ছেন না। নিজের সুরক্ষার জন্য সকালে মাস্ক পরে অটোরিকশা নিয়ে বের হচ্ছেন, ফিরছেন সন্ধ্যায়। যাত্রী উঠানোর সময় কোনো ধরনের স্প্রে করা হচ্ছে না। সকাল থেকে অটোরিকশাগুলো নগরীর এ প্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত পর্যন্ত দাপিয়ে বেড়ালেও তাদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখা যাচ্ছে না। আর এসব ছোট ছোট অসচেতনতাই রাজশাহী নগরীকে ঝুকিপূর্ণ করে তুলছে বলে মনে করা হচ্ছে।

তবে সচেতনরা মনে করছেন নগরীতে চলাচল করা অটোরিকশায় যাত্রী উঠানোর সময় জীবানুনাশক স্প্রে ব্যবহার বাধ্যতামুলক করা দরকার। তা না হলে রাজশাহী নগরী আগামীতে আরো ভয়াবহ অবস্থার দিকে যাবে।

এদিকে, নগরী থেকে যেসব সিএনজি বা বাস জেলা উপজেলা পর্যায়ে চলাচল করছে তাদের মধ্যেও সচেতনতা নেই। ওই যানগুলোতেও ব্যবহার করা হচ্ছে না জীবাণুনাশক স্প্রে। এমনকি বাস বা সিএনজির চালকদেরও নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষা।

এতে একদিকে যানবাহনে চলাচল করা যাত্রীদের যেমন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকছে, তেমনি যাত্রীরাও রয়েছেন ঝুঁকির মধ্যে। আবার নগরীর বাজারগুলো এখন জমজমাট। ব্যবসায়িরা দোকানে কোন ধরনের স্প্রে ব্যবহার করছে না। বেশিরভাগ দোকানেই নেই হ্যান্ডস্যানিটাইজার। মাস্ক ছাড়াই মানুষ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বাজারে।

দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্তের পর রাজশাহী নগরীতেও করোনা ঠেকানোর তোড়জোড় শুরু হয়। জীবাণুনাশক ছিটাতে রাস্তায় নামেন স্বয়ং মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

নগরজুড়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়। বিতরণ করা হয় মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মানবিক সহায়তা ছাড়া করোনা ঠেকাতে এখন দৃশ্যমান কার্যক্রম নেই রাসিকের।

যদিও অবকাঠামো, জনবলসহ রাসিকের রয়েছে আলাদা স্বাস্থ্য দফতর। কিন্তু নমুনা সংগ্রহেই নামতে পারেনি রাসিকের স্বাস্থ্য দফতর। নগর ভবনেও নেই কোনো কার্যক্রম। একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেখানে করোনার নমুনা সংগ্রহ করছেন। এ পরিস্থিতিতে ভরসা কেবল পুলিশ। করোনা শনাক্তের পর থেকেই পাশে রয়েছে নগর পুলিশ। বাড়ি লকডাউন ছাড়াও প্রয়োজনে বাজার করে দিয়ে যাচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা। সার্বক্ষণিক খোঁজখবরও নিচ্ছেন। চিকিৎসা ও পরামর্শ না পাওয়ায় বাড়ছে উদ্বেগ জনমনে।

অন্যদিকে, স্বাস্থ্যবিধি মানাতেও নেই কার্যক্রম উদ্যোগ। ফলে দিনে দিনে নগরজুড়ে ভয়াবহ হচ্ছে করোনা সংক্রমণ। এই পরিস্থিতিতে পুরো দায় সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগের উপর চাপাচ্ছে জেলার সিভিল সার্জনের দপ্তর।

রাজশাহীর প্রবীণ সাংবাদিক আহমেদ সফি উদ্দিন বলেন, সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড পর্যায়ে কিছু স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র আছে। সিটি হাসপাতালও আছে। সিটি করপোরেশনের অর্থ আছে, পর্যাপ্ত জনবল এবং অবকাঠামো আছে। সেগুলোকে করোনা চিকিৎসার জন্য খুলে দেয়া জরুরি। তিনি যোগ করেন, গত এক দশকে রাসিকের স্বাস্থ্য খাত চরম উপেক্ষিত রয়ে গেছে। এ বছর প্রায় হাজার কোটি টাকার বাজেট হয়েছে। তথাকথিত উন্নয়ন বাজেটের দরকার নেই, নজর দেয়া উচিত স্বাস্থ্য খাতেও।

এদিকে রাসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এএফএম আঞ্জুমান আরাকে ফোন কল কিংবা ক্ষুদে বার্তা পাঠালেই বাড়িতে পৌঁছে যাবে রাসিকের নমুনা সংগ্রহকারী দল। কিন্তু দিনভর চেষ্টা করেও স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মুঠোফোর সংযোগ পাচ্ছেন না করোনা আক্রান্তরা।

বন্ধ পাওয়া গেছে তার দাফতরের ফোনও। ফলে অভিযোগ বিষয়ে প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এএফএম আঞ্জুমান আরার মন্তব্য পাওয়া যায়নি। ডা. এএফএম আঞ্জুমান আরার বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ এনেছেন রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক।

তিনি বলেন, নগরীতে করোনায় স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার পুরো দায়িত্ব রাসিকের। সিভিল সার্জন দফতর কেবল সমন্বয় করবে। এই সহযোগিতাটুকুও মিলছে না। এ নিয়ে তিনিও হতাশ।

শীর্ষ সংবাদ:
একনেকে ১০ হাজার কোটি টাকার ৮ প্রকল্প অনুমোদন         অধিদপ্তরের সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের কোনো সমস্যা নেই : স্বাস্থ্যমন্ত্রী         বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ         শাহজাহান সিরাজ আর নেই         যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুলের দাফন সম্পন্ন         ময়ূর-২ লঞ্চের মাস্টার আবুল বাসার তিন দিনের রিমান্ডে         এবার নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে বিদ্যুত উৎপাদনে চীনের বড় বিনিয়োগ আসছে         করোনা ভাইরাসে সুস্থের সংখ্যা লাখ ছাড়াল, মৃত্যু আরও ৩৩ জনের         করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় অনিয়ম সহ্য করা হবে না         ভার্চুয়ালেই চলবে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ         ঈদে শেয়ারবাজার তিন দিন বন্ধ থাকছে         বেসরকারি চাকরিজীবীদেরও ঈদে কর্মস্থলে থাকতে হবে         কোন অপশক্তি জাতীয় পার্টির এগিয়ে চলা রোধ করতে পারবে না : জিএম কাদের         কোরবানি সামনে রেখে টিসিবির বিক্রি কার্যক্রম শুরু         আগামী ১৫ জুলাই সমাহিত করা হবে এন্ড্রু কিশোরকে         কক্সবাজার থেকে সাতক্ষীরা পর্যন্ত সুপার ড্রাইভওয়ে নির্মাণের পরিকল্পনা         বিশেষ ফ্লাইটে ওমান থেকে ফিরলেন ২৫৪ বাংলাদেশি         প্রকল্পের কাজে অনিয়মে নরসিংদী সদরের উপজেলা প্রকৌশলী বরখাস্ত        
//--BID Records