মঙ্গলবার ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০২ জুন ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

হালদায় মা মাছ ডিম ছেড়েছে

হালদায় মা মাছ ডিম ছেড়েছে

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফটিকছড়ি ॥ দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র চট্টগ্রামের হালদা নদীতে ডিম ছেড়েছে মা মাছ। প্রতি বছরের মত এবারও হালদা নদীতে উৎসবের আমেজে ডিম সংগ্রহ করছেন স্থানীয় জেলেরা ।শুক্রবার সকাল ৭ টা থেকে মা মাছ হালদা নদীতে পরিপূর্ণভাবে ডিম ছাড়তে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন।

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি, রাউজান ও হাটহাজারী উপজেলার প্রায় ৯০ কিলোমিটার দীর্ঘ এলাকাজুড়ে আছে এ হালদা নদী। উক্ত তিন উপজেলার মধ্যে রাউজান ও হাটহাজারী অংশে হালদা নদীর সত্তার ঘাট, অংকুরী ঘোনা, মদুনা ঘাট, মদুনাঘাট, গড়দুয়ারা, কান্তার আলী চৌধুরী ঘাট, নাপিতের ঘোনা ও মার্দাশা এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে মা মাছ ডিম ছেড়েছে। আর ডিম সংগ্রহকে কেন্দ্র করে হালদা নদী পাড়ে বসেছে হাজার হাজার মানুষের মিলনমেলা। প্রশাসনের কর্মকর্তারাও আছেন তাদের সঙ্গে।

প্রায় ৩ শতাধিক নৌকায় দেড় হাজার মৎস্যজীবী ডিম সংগ্রহ করছেন। অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে, ভালো পরিমাণে ডিম এবার সংগ্রহ হচ্ছে।’ এবার ডিম ছাড়ার পরিমান বেশী। সকালের ছেয়ে দুপুরে আরো বেশী পরিমান ডিম আহরণ করা হচ্ছে বলে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন জনকন্ঠকে জানান।

তবে এবার অমাবস্যা তিথি থাকলেও বর্ষণ এবং পাহাড়ি ঢল ছাড়াই মা মাছ ডিম ছেড়ে দিয়েছে। প্রথমে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে নমুনা ডিম ছাড়ে মা মাছ। সকালে পূর্ণমাত্রায় ছেড়ে দেয়া হয়।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হালদা রিভার রিচার্স ল্যাবরেটরির কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, ‘সাধারণত পূর্ণিমা বা অমাবস্যার তিথিতে ভারি বর্ষণ এবং পাহাড়ি ঢল নামলেই মা মাছ ডিম ছাড়ে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানিয়েছেন, সংগ্রহ করা ডিম থেকে রেণু ফোটানো হবে। পরিচর্যার মধ্য দিয়ে সেই ডিম থেকে পোনা হবে। ডিম ফোটানোর জন্য তিনটি হ্যাচারি ও ৬০টি কুয়া প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়া, ব্যক্তিগত পর্যায়ে আরও কুয়া প্রস্তুত আছে। তিনি আরো জানান, ডিম আহরণ অব্যাহত আছে । আহরিত ডিমের পরিমান এবার কত হবে তা সন্ধ্যা নাগাদ জানা যাবে।

এর আগে, ২০১৯ সালে প্রায় ৭ হাজার কেজি ডিম সংগ্রহ করা হয়েছিল হালদা থেকে। ২০১৮ সালে স্থানীয়রা ডিম সংগ্রহ করেছিলেন ২২ হাজার ৬৮০ কেজি। ২০১৭ সালে এর পরিমাণ ছিল মাত্র ১ হাজার ৬৮০ কেজি, ২০১৬ সালে ৭৩৫ (নমুনা ডিম) কেজি, ২০১৫ সালে ২ হাজার ৮০০ কেজি। মৎস্য বিজ্ঞানীরা জানান, প্রতি বছর হালদা নদীর এ মৎস্য প্রজনন খাতে রাজস্ব পাওয়া যায় ৮'শ কোটি টাকা।

শীর্ষ সংবাদ:
স্বাস্থ্যসেবা দিতে অবহেলা করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে : তথ্যমন্ত্রী         সব জেলা হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর         ২০২০-২১ অর্থবছরে মোবাইল ফোনের কল রেট বাড়ছে         নটর ডেমসহ ৪ কলেজে নিজস্ব প্রক্রিয়ায় ভর্তির অনুমতি         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৯১১         ন্যাশনাল ব্যাংকের ৬০ লাখ টাকা উদ্ধার, গ্রেফতার ৪         করোনা ভাইরাস দুর্বল হওয়ার প্রমাণ নেই ॥ ডব্লিউএইচও         আইসিইউতে ভর্তি মোহাম্মদ নাসিম, শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল         দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের হাতে বাংলাদেশি নিহত         কঙ্গোতে ছয়জনের ইবোলা শনাক্ত, চারজনের মৃত্যু         জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু শ্বাসকষ্টে হয়েছে         উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়ল লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন করা চীনের যুদ্ধবিমানের ছবি         হোয়াইট হাউসের সামনে সংঘর্ষ, সেনা নামানোর হুমকি ট্রাম্পের         পশ্চিম তীর দখল নিয়ে ইসরাইলকে সতর্ক করল আরব আমিরাত         রেড, ইয়েলো, গ্রীন ॥ করোনা ঠেকাতে তিন জোনে ভাগ হচ্ছে         মানব পাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা হাজী কামাল গ্রেফতার         করোনায় আয় কমেছে ৭৪ শতাংশ পরিবারের ॥ ১৪ লাখের বেশি প্রবাসী শ্রমিক বেকার         পরিস্থিতির অবনতি হলে কঠিন সিদ্ধান্ত ॥ কাদের         ৬০ বছরের বেশি বয়সী রোগীর মৃত্যুহার সর্বোচ্চ         করোনা মোকাবেলায় ৪ প্রকল্প একনেকে উঠছে আজ        
//--BID Records