শনিবার ২৭ আষাঢ় ১৪২৭, ১১ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনা ভাইরাস : ১৬ এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিকের বেতন নিয়ে অনিশ্চয়তা

করোনা ভাইরাস : ১৬ এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিকের বেতন নিয়ে অনিশ্চয়তা

অনলাইন রিপোর্টার ॥ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে নেওয়া পদক্ষেপের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বন্ধ হয়ে গেছে কলকারখানা। এ অবস্থায় শ্রমিক ছাঁটাই না করে আগামী ১৬ এপ্রিলের মধ্যে বেতন পরিশোধ করতে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির আহ্বানে সাড়া দিয়েছেন অনেক কারখানার মালিক।

তবে অনেকেই বলছেন, এই সময়ে শ্রমিকদের হাতে বেতন পৌঁছে দেওয়া চ্যালেঞ্জিং হবে। ব্যাংক খোলার এক দিনের মাথায় বেতন দেওয়া সম্ভব নয়। এ অবস্থায় ১৬ এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিকের বেতন নিয়ে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এক বিবৃতিতে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে কারখানা বন্ধ থাকলেও কোনো শ্রমিককে চাকরি থেকে ছাঁটাই করা যাবে না। শ্রমিকদের গত মার্চ মাসের বেতন আগামী ১৬ এপ্রিলের মধ্যে পরিশোধ করতে শিল্প কারখানা মালিকদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

মালিকরা যুক্তি দিয়ে বলছেন, ১৫ এপ্রিল ব্যাংক খুলবে। এর পরে এক দিনের মধ্যে বেতন দেওয়া সম্ভব নয়। কারণ অধিকাংশ শ্রমিক গ্রামের বাড়িতে। অনেকের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই, স্যালারি শিট প্রস্তুত করা সময়সাপেক্ষ। বিকাশের মাধ্যমে একসঙ্গে এত শ্রমিকের বেতন দেওয়ায় নতুন জটিলতা তৈরি হবে। তবে ২০ থেকে ২৫ এপ্রিলের মধ্যে বেতন দেওয়া সম্ভব।

ডিজাইন অ্যান্ড সোর্স গার্মেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘সবকিছুই বন্ধ। শ্রমিকদের স্যালারি শিট তৈরিও সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তাছাড়া ব্যাংক খুলবে ১৫ তারিখে। এই সময়ে টাকা তুলে একদিনের মধ্যে শ্রমিকদের বেতন দেওয়া সম্ভব নয়। সাধারণত আমরা অন্য সময় ২৫ তারিখ থেকে বেতন দেওয়ার প্রস্তুতি নিই এবং ৫ তারিখে বেতন দেই। ফলে আমাদের ১০ দিন সময় লাগে। সেই হিসেবে ১৫ তারিখে টাকা পেলে হয়তো ২৫ এপ্রিল বেতন দিতে পারব।’

অনেকে মনে করছেন, শ্রমিকদের বেতন দিতে হবে। কিন্তু প্রয়োজনীয় কাজ করা যাচ্ছে না। ব্যাংক থেকে টাকা না পেলে দেওয়া সম্ভব না। এটা নিয়ে জটিলতা হয় কিনা দেখার বিষয়। শ্রমিকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই। অধিকাংশই নগদ বেতন নেন।

এজে গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করবো। ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে শ্রমিকদের বেতন দেব।’

তিনি আরও বলে, ‘আমার সব মিলিয়ে ২ হাজার ৮০০ শ্রমিক আছে। আমি একটা পদ্ধতি বের করে টাকা দেওয়ার চেষ্টা করবো। তবে ১৬ তারিখের মধ্যে দেয়া চ্যালেঞ্জিং। ব্যাংক থেকে টাকা পেতে হবে। শ্রমিকদের ১০ শতাংশেরও অ্যাকাউন্ট নেই।’

তবে অনেকে ১৬ এপ্রিলের মধ্যে বেতন দিতে পারবেন বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন। নাইন স্টার অ্যাপারেলরস লিমিটেডর পরিচালক মহসিন হক অপু বলেন, ‘আশা করি আমি পারব। ১৬ তারিখের মধ্যেই পারব। যা করার তাই করব। ব্যাংক খুলবে ১৫ তারিখে। ফান্ড ট্রান্সফার করে দিয়ে দেব। আমার শ্রমিক সাড়ে ৬০০। সবাই আমার ফ্যাক্টরির পাশে থাকেন। যারা আসতে পারবে না তাদের বিকাশে বেতন দেব। আমি আগে থেকেই সব ব্যবস্থা করে রেখেছি।’

শীর্ষ সংবাদ:
‘করোনা সাহেদের’ জমি প্রতারণা         ইতালি ফেরতদের ১৪৭ জন আশকোনায় কোয়ারেন্টাইনে         নির্বাচন কমিশন নিয়ে ফখরুলের বক্তব্য ষড়যন্ত্রমূলক ॥ কাদের         রিজেন্ট সিলগালা করার সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন দিয়েছিল সাহেদ         মায়ের কবরের পাশে সাহারা খাতুনের লাশ আজ দাফন         করোনা রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর         করোনায় দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৮৬,৪০৬ জন         ইরানে ফের সর্বোচ্চ মৃত্যু         আন্তঃজেলা রুটে দোতলা বাস নামাতে পারছে না বিআরটিসি         দ্বিতীয় দফায় বন্যার প্রকোপ শুরু, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত         চট্টগ্রামে ফের কিট সঙ্কট ॥ নমুনা পরীক্ষা নেমে এসেছে অর্ধেকে         হালদায় পোনা উৎপাদনে এবার রেকর্ড সাফল্য         ইলিশে ভর করে কমছে সব মাছের দাম         দেশে ফিরলেন মালদ্বীপে আটকে পড়া ১৫৭ জন         উদ্ভাবনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার ॥ পলক         রাষ্ট্রপতির ছোট ভাই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, সিএমএইচে ভর্তি         সাহেদকে ছাড় দেয়ার প্রশ্নই আসে না ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ইসি নিয়ে ফখরুলের বক্তব্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ষড়যন্ত্রমূলক ॥ কাদের         মাদকদ্রব্যের তালিকায় টাপেন্টাডলকে যুক্ত করে গেজেট প্রকাশ         রূপালী ইলিশে ভর করে কমছে দেশী মাছের দাম        
//--BID Records