ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

আবৃত্তিশিল্পী তরুণ রাসেলের এগিয়ে চলা

প্রকাশিত: ১৩:০৯, ২৪ মার্চ ২০২০

আবৃত্তিশিল্পী তরুণ রাসেলের এগিয়ে চলা

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ দেশের তরুণ মেধাবী সংস্কৃতিকর্মী ও বিজ্ঞানী তরুণ রাসেল। শুদ্ধ সংস্কৃতি চর্চায় আত্মনিবেদিত, তারুণ্যে উদ্দীপ্ত সাংস্কৃতিক কর্মী তরুণ রাসেল বাংলাদেশের সংস্কৃতি অঙ্গনের উদীয়মান নন্দিত একজন আবৃত্তিশিল্পী, উপস্থাপক এবং সাংস্কৃতিক সংগঠক। শুদ্ধ ধারার সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের সংগঠন শুভজনের প্রতিষ্ঠাতা তিনি। আবৃত্তি ও উপস্থাপনায় সাবলীল মুখ তরুণ রাসেল নিয়মিত মঞ্চ ও টেলিভিশনে আবৃত্তি করেন। বাচিক শিক্ষক হিসেবে বুলবুল একাডেমি অব ফাইন আর্টস (বাফায়) শিক্ষকতা করছেন। চার বছর আগে অগ্নিবীণার ব্যানারে আবৃত্তিশিল্পী তামান্না জেসমিনের সঙ্গে তার একটি দ্বৈত আবৃত্তির এ্যালবাম প্রকাশ হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক আবৃত্তি সংগঠন ‘সংবৃতা’র সিনিয়র সদস্য এবং ‘শুদ্ধাচার’ নামে তার গড়া একটি শুদ্ধ উচ্চারণ, আবৃত্তি, উপস্থাপনা ও মানবিকতার পাঠশালা আছে। যেখানে ‘প্রকাশটা হোক ভাষার শুদ্ধতায়’ স্লোগানে শুদ্ধভাবে মাতৃভাষা চর্চার মাধ্যমে মানবিক মানুষ হওয়ার দীক্ষা দেয়া হয়। আবৃত্তিতে ১৯৯৮ সালে জাতীয় শিশু পুরস্কারসহ আবৃত্তি ও উপস্থাপনায় ‘বাউল তরী পদক’ এবং ‘শেখ রাসেল স্মৃতি পাঠাগার সম্মাননা’সহ আরও অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। তরুণ রাসেল পেশায় একজন বিজ্ঞানী। বাংলাদেশ বিজ্ঞান এবং শিল্প গবেষণাগার তথা সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে গবেষক হিসেবে কর্মরত তরুণ রাসেল বিজ্ঞানী হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় থেকে ‘শ্রেষ্ঠ উদ্ভাবক’ পুরস্কার পেয়েছেন। স্বাভাবিকতার প্রতি দুর্বার টান থেকে তিনি নিয়মিত লেখালেখিও করে থাকেন। তার লেখা বেশ কিছু গল্প, প্রবন্ধ ও কবিতা বিভিন্ন দেশী-বিদেশী, পত্র-পত্রিকা এবং জার্নালে প্রকাশ হয়েছে। এসবের পাশাপাশি মুক্ত সাংবাদিকতার সঙ্গেও যুক্ত আছেন তিনি। প্রায় পঁচিশ বছর ধরে লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত থাকলেও নিজেকে লেখক নয় বরং পাঠক হিসেবেই পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন তিনি। ১৪ফেব্রুয়ারি ১৯৮৬ সালে পদ্মার পলিদ্বীপ খ্যাত শরীয়তপুরের পালং শহরে তরুণ রাসেলের জন্ম। তার বাবা একাত্তরের মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের একজন বীর গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা। ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং দেশপ্রেমে উদ্দীপ্ত বহুমুখী প্রতিভা, গুণী সাংস্কৃতিক কর্মী তরুণ রাসেলের জন্য নিরন্তর শুভ কামনা।