বুধবার ৪ কার্তিক ১৪২৮, ২০ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চৌগাছায় আর্সেনিকমুক্ত প্লান্ট দু’বছর বন্ধ

  • স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে উপজেলাবাসী

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ চৌগাছা উপজেলার পাতিবিলা ইউনিয়নের হয়াতপুর গ্রামে স্থাপিত আর্সেনিকমুক্ত পানি সরবরাহ প্লান্টটি প্রায় দুই বছর ধরে বন্ধ রয়েছে। ভয়াবহ আর্সেনিক এলাকা হিসেবে পরিচিত ওই এলাকার মানুষ প্লান্টটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম সমস্যায় পড়েছেন। ভুক্তভোগী এলাকাবাসী প্লান্ট থেকে আবারও পানি সরবরাহ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

জানা গেছে, চৌগাছা উপজেলার পাতিবিলা হয়াতপুর গ্রাম এলাকা জুড়ে ভূগর্ভস্থ পানিতে ভয়াবহ আর্সেনিক দেখা দেয়। এলাকাবাসীর মধ্যে আর্সেনিকমুক্ত পানি সরবরাহের লক্ষ্যে বে-সরকারী সংগঠন ঢাকা আহছানিয়া মিশনের উদ্যোগে হয়াতপুর গ্রামে একটি প্লান্ট স্থাপন করা হয়। ২০০৯ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর এর উদ্বোধন করা হয়। প্রায় ৯ বছর ধরে এলাকাবাসী ওই প্লান্ট থেকে পানি সংগ্রহ করে তা খাওয়াসহ সংসারের সব কাজ করতেন। শুধু হয়াতপুর পাতিবিলা এলাকাবাসী নয়, ওই আর্সেনিকমুক্ত পানি সংগ্রহের জন্য চৌগাছার আরও কয়েকটি গ্রামের মানুুষ সেখানে যেতেন এবং পানি সংগ্রহ করতেন। কিন্তু প্লান্টের সব কিছু ঠিক থাকলেও কিছু সমস্যার কারণে প্রায় দুই বছর ধরে সেটি বন্ধ। এলাকাবাসী জানিয়েছেন, বিদ্যুত ও মেডিসিনের জন্য এটি বন্ধ রয়েছে। ফলে স্থানীয়সহ এলাকার মানুষ চরম সমস্যায় পড়েছেন। আবারও আর্সেনিকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে মানুষের মাঝে। সম্প্রতি ওই গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে প্লান্টটি বন্ধ রয়েছে। এ সময় গৃহিনী আবিরন নেছার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, প্রায় নয়-দশ বছর ধরে প্লান্ট থেকে আমরা পানি খেয়ে বেশ সুস্থ ছিলাম। কিন্তু দুই বছর ধরে এখান থেকে আর পানি পাওয়া যায় না। এখন বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে একটি টিউবওয়েল থেকে পানি নিয়ে আসতে হয়। এখন শুনেছি ওই টিউবওয়েলের পানিতেও আর্সেনিক ধরা পড়েছে। বিকল্প নিরাপদ পানির ব্যবস্থা না থাকায় আমরা বাধ্য হয়ে এই বিষাক্ত পানি পান করছি।

প্লান্ট স্থাপনের জমিদাতা হয়াতপুর গ্রামের বজলুর রহমান জানান, এলাকাবাসীর স্বার্থে নিজের জমিতে এই প্লান্টটি স্থাপন করতে দিয়েছিলাম। মানুষ এখান থেকে আর্সেনিকমুক্ত পানি সংগ্রহ করত। কিন্তু দুই বছর ধরে প্লান্ট থেকে পানি সরবরাহ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। বিদ্যুত ও ওষুধের কারণে এটি বন্ধ। এ বিষয়ে কথা হয় প্লান্ট নির্মাণের সময় দায়িত্বে থাকা বর্তমানে সিটকো লিমিটেডের ব্যবস্থাপক নূরুল হুদার সঙ্গে। তিনি বলেন, পানি উত্তোলনের জন্য এক ধরনের ওষুধ ব্যবহার করা হতো সেটি নষ্ট হয়ে গেছে। এখন যদি স্থানীয়রা ওই ওষুধ কেনার ব্যবস্থা করেন তাহলে প্লান্টটি পুনরায় চালু করা সম্ভব। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান লাল বলেন, প্লান্টটি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ওই এলাকার মানুষ সুপেয় পানি পাচ্ছে না। এটি এখন চালু করতে গেলে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা প্রয়োজন। এত টাকা জোগাড় করা অসম্ভব। বিষয়টি নিয়ে আমি উপজেলা মাসিক সমন্বয় সভায় আলোচনাও করেছি। কিন্তু কোন ফল পাইনি। যদি সরকারীভাবে কোন বরাদ্দ পাওয়া যায় তাহলে ওই প্লান্টটি পুনরায় চালু করা সম্ভব হবে।

শীর্ষ সংবাদ:
কঠোর ব্যবস্থা নিন ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ         টিকে থাকার লড়াইয়ে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ         আজ পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী         ধর্ম নিয়ে কেউ বাড়াবাড়ি করবেন না         কেন এই সহিংসতা উত্তর এখনও মেলেনি         ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধের ডাক ॥ সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে মাঠে আওয়ামী লীগ         মাঝিপাড়ায় এখন সুনসান নীরবতা, আতঙ্ক কাটেনি         প্রধানমন্ত্রী নিজের হাতে সাজিয়েছেন ফরিদপুর         পিএসসির প্রশ্ন ফাঁসে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ড         মুছা কালু ভোলা-তিন জনের গ্রেফতারেই খুলতে পারে জট         স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বে আঘাত হানতেই সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস         একযুগে আরেকটি স্বপ্নপূরণ         রাজনৈতিক সুবিধা আদায়ে মরিয়া সরকার ॥ ফখরুল         বাংলাদেশের মানুষ তার ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে : প্রধানমন্ত্রী         করোনা : আরও এলো ২০ লাখ টিকা, বৃহস্পতিবার আসবে ৫৫ লাখ         প্রতিমাসে তিন কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৭         অপ্রীতিকর ঘটনা রোধে সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ         পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য একশ বান্ডিল টিন ও নগদ অর্থ বরাদ্দ         সয়াবিন তেলের দাম লিটারে বাড়লো ৭ টাকা