ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

হাওড়ে পানি বাড়ছে অকাল বন্যার আভাস

প্রকাশিত: ১০:৪৬, ২৯ জুন ২০১৯

হাওড়ে পানি বাড়ছে অকাল বন্যার আভাস

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দেশের সব প্রধান নদনদীর পানি সমতলে বাড়লেও এই মুহূর্তে বন্যার আশঙ্কা দেখছে না পানি উন্নয়ন বোর্ড। যদিও তারা বলছেন উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও ভারি বৃষ্টিপাতে ইতোমধ্যেই উত্তর পূর্বাঞ্চলের সিলেট সুনামগঞ্জে নিম্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ওই এলাকার পাঁচটি নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে বইতে শুরু করেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে সিলেট সুনামগঞ্জের নিম্ন এলাকা প্লাবিত হলেও ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পরিস্থিতির উন্নতি হবে। বন্যার স্থায়িত্ব হবে স্বল্পমেয়াদী। এদিকে আবহাওয়া অফিস বলছে মৌসুমি বায়ু বর্তমানে সারাদেশের ওপরই সক্রিয়। উত্তর বঙ্গোপসাগরেও দুর্বল থেকে মাঝারি অবস্থায় বিরাজ করছে। মৌসুমি বায়ুর কারণে সারাদেশে বৃষ্টি শুরু হলেও আজ থেকে বৃষ্টি আবার কমে আসবে। এই সময়ের মধ্যে সাগরে লঘুচাপের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে ১ জুলাই থেকে বৃষ্টির পরিমাণ ফের বেড়ে যাবে। আজ শনিবার ময়মনসিংহ, রংপুর এবং সিলেট বেশিরভাগ এলাকায় ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। দেশের অন্য এলাকায়ও মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টি হবে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী সরদার উদয় রায়হান জনকণ্ঠকে বলেন বর্তমানের দেশের প্রধান সব নদীর পানি সমতলে বৃদ্ধি পাচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্বল্পমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী যে পর্যবেক্ষণ তাতে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের বন্যার পূর্বাভাস নেই। ভারত থেকেও এখন পর্যন্ত বন্যার বিষয়ে কোন সতর্কতার আভাস পাওয়া যায়নি। তবে, তিনি বলেন, সব নদীর পানি বাড়ায় কোন কোন এলাকায় স্বাভাবিক বন্যা হতে পারে। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং ভারতের অসম মেঘালয়ে আজ ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। এতে ব্রহ্মপুত্র পদ্মা যমুনার পানি সমতলে আগামী ৭২ ঘণ্টায় বৃদ্ধি পেতে পারে। গঙ্গার পানিও সমতলে এ সময়ে বাড়বে। উত্তর পূর্বাঞ্চলের সুরমা কুশিয়ার পানি ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত বাড়ার কথা বলা হয়েছে। এ কারণে সিলেট ও সুনামগঞ্জের নিম্নাঞ্চলে আগামী ২৪ ঘণ্টায় স্বল্পমেয়াদী বন্যা দেখা দিতে পারে। ভারি বৃষ্টির কারণে এই এলাকার পাঁচটি নদীর পানি ইতোমধ্যে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৮২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে। গত দু’দিনের টানা বৃষ্টিতে পাঁচ নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। সুনামগঞ্জের শেষ সীমান্তে ভারতের মেঘালয় রাজ্য হওয়ায় পাহাড়ী ঢলে নদীর পানি দ্রুত বাড়ছে। টানা বৃষ্টিপাতের কারণে শহরের বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে জলাবদ্ধতা। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সুনামগঞ্জে গড় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ৪১৫ মিলিমিটার। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, প্রতি ঘণ্টায় সুরমা নদীর পানি গড়ে ৮ সেন্টিমিটার করে বাড়ছে। শহরের সুরমার তীরে অবস্থিত কিছু এলাকার সড়কে পানি উঠলেও মূল শহরে এখনও পানি ঢুকতে পারেনি। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায় ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পানি কমে আসবে। এদিকে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে মৌসুমি বায়ুর বর্ধিতাংশ ভারতের পূর্ব-উত্তরপ্রদেশ, বিহার পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। এটি বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে অসম পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করেছে। দেশের ওপর বেশ সক্রিয় অবস্থায় রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে রয়েছে মাঝারি অবস্থায়। মৌসুমি বায়ু সক্রিয় হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার থেকেই সারাদেশে বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট সুনামগঞ্জে ১৩৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। আবহাওয়া অধিদফতরের আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস জনকণ্ঠকে বলেন, মৌসুমি বায়ু সক্রিয় হওয়ায় বৃষ্টি শুরু হলেও আজ থেকে প্রবণতা কমে আসবে। তিনি জানান সাগরে একটি লঘুচাপ সৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এ কারণে দু’দিন বৃষ্টি কম হবে। তবে ১ জুলাই থেকে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে। এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে উল্লেখ করা হয়েছে আজ রংপুর ময়মনসিংহ সিলেট বিভাগের বেশির ভাগ এলাকায় এবং ঢাকা রাজশাহী চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায়, খুলনা বরিশালের কোথাও কোথাও অস্থায়ীভাবে সদমকা হাওয়াসহ মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে। রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে।