শনিবার ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ০৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ভৈরবে কৃষ্ণচূড়া জারুল বাগানবিলাস ছড়িছে রূপ

  • প্রকৃতি সেজেছে নতুন সাজে

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভৈরব, ২৩ মে ॥ দেশের সবস্থানে সবুজের ছায়াঘেরা গাছের আড়ালে জ্বলে ওঠে কৃষ্ণচূড়া। তার মাঝে বনজারুলের বেগুনি ফুল ও রাধাচূড়ার হলুদ ফুলে প্রকৃতি সেজেছে যেন নতুন সাজে। এপ্রিল, মে, জুনের দিনে কৃষ্ণচূড়া রক্তবর্ণ ফুল ফুটিয়ে প্রকৃতিকে সাড়া দেয় তার উজ্জ্বল ডালায়। গ্রামের বাড়ির পাশে সবুজপাতা ঘেরায় মাঝে বেগুনি রঙের জারুল গাছের ফুল উঁকি দিয়ে করে আরও সৌন্দর্য। মাঝে মাঝে হলুদ বর্ণের রাধাচূড়া ফুলে সত্যিই মধুময় দৃশ্যের সৃষ্টি করে। গায়ের মেঠোপথে পথিক ক্লান্তমনে কৃষ্ণচূড়া গাছের নিচে একটু বসে বিশ্রাম নেয়। আর কৃষ্ণচূড়া তার লাল বর্ণ দিয়ে পথিককে ছায়া দিয়ে ক্লান্ত দূর করে। প্রকৃতি কখনও মানুষকে বঞ্চিত করে না। বন্ধুপ্রতিম প্রকৃতি ভালবাসা দিয়ে আপন করে নেয় মানুষকে। তার সৌন্দর্য অবলোকন থেকে বঞ্চিত করে না। কৃষ্ণচূড়ার রক্তিম রূপ মানুষকে মাতোয়ারা করে। কৃষ্ণচূড়ার পাশাপাশি মিষ্টি রং বেগুনি নিয়ে জারুল ও রাধাচূড়া বাসন্তী রং নিয়ে তাদের রূপ ছড়িয়ে দেয়। দেশবাসীকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে তাদের সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য। গ্রাম বাংলার মাঠ-ঘাট, বাড়ির পেছনে, ঝোপে সবখানেই এখন বনজারুল ও রাধাচূড়া গাছের সুন্দর ফুল শোভা পাচ্ছে। কবিরা এই দিনে কৃষ্ণচূড়া, জারুল, রাধাচূড়া ফুল নিয়ে কবিতা লেখে। গ্রামের পথপ্রান্তরে কৃষ্ণচূড়া যেন আগুনেরই উজ্জ্বল প্রতিকৃতি। বসন্তের প্রথম আলোড়নে কৃষ্ণচূড়া জ্বলে ওঠে বিচিত্র এই প্রকৃতির বুকে। এর উজ্জ্বল রং এত অক্লান্ত প্রস্ফুটনের ঐশ্বর্য বৃক্ষকুলে খুবই দুর্লভ। গাঢ়, লাল, কমলা, হলুদ, হাল্কা বর্ণালিতে বিস্তৃত এর পাপড়িরাজি। বাংলাদেশের এমন কোন জায়গা নেই যেখানে কৃষ্ণচূড়া গাছ জন্মে না। অতিপরিচিত এই বৃক্ষটি পাতা ঝরার দলের। এপ্রিল, মে, জুনের দিকে নতুন পাতা গজিয়ে ওঠে এবং ফুল ফোটে। প্রচণ্ড সূর্যের তাপ উপেক্ষা করে আপন মহিমায় কৃষ্ণচূড়া জ্বলে ওঠে তার ঔজ্জ্বলতা নিয়ে। পাতার ঐশ্বর্যও কৃষ্ণচূড়ার অনন্য এক সৌন্দর্র্য। সবুজের ছায়াঘেরা সুন্দর পরিপাটি গ্রামগঞ্জের রাস্তার পাশে সারি সারি বাহারি গাছের সমারোহ। পথচারীকে মগ্ন ও নয়নাভিরাম করা এসব দৃশ্য খুবই সুন্দর। এমন স্বপ্ন লালন করে গ্রামগঞ্জের প্রতিটি মানুষ। সবুজেঘেরা নয়নাভিরাম কোন দৃশ্য উপভোগ করা বড়ই দুরূহ। মানুষ প্রকৃতিকে বঞ্চিত করলেও প্রকৃতি মানুষকে কখনও বঞ্চিত করে না। প্রকৃতি তার বন্ধুপ্রতিম ভালবাসা নিয়ে মানুষকে আপন করে নেয়। বঞ্চিত করে না তার সৌন্দর্য অবলোকন করা থেকে। তাই প্রকৃতি সেজেছে তার আপন সাজে। রূপ, রং, বৈচিত্র্য এবং মায়াময়ী আকর্ষণ ক্ষমতা দিয়ে প্রকৃতি বেঁধেছে সবাইকে।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনার মধ্যে বন্যা মোকাবেলায় মানুষ হিমশিম         পাটকল শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধ করা হবে         অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে চালের দাম বাড়ছে         করোনা মোকাবেলায় এখন নজর চীনা ভ্যাকসিনে         করোনা মোকাবেলায় বহুপাক্ষিক উদ্যোগ জোরদারে গুরুত্বারোপ         ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার রায় আগস্টে         আগামী মাসে করোনা টিকা বাজারে আনবে ভারত         আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলে ভারত নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াল         দক্ষিণ সুদানে ‘বাংলাদেশ রোড’ ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছে         মিয়ানমার থেকে ইয়াবা আসা থামছেই না         এবার রাজধানীর ওয়ারী লকডাউন         করোনার নকল সুরক্ষা পণ্যে বাজার সয়লাব!         সুন্দরবনে বিষ প্রয়োগকারী দস্যুদের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান শুরু         কাল থেকে ওয়ারী ‘লকডাউন’         প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ‘ডেল্টা গভর্ন্যান্স কাউন্সিল’ গঠন         সোমবার থাইল্যান্ডে নেওয়া হচ্ছে সাহারা খাতুনকে         এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে শনিবার থেকে ফের চিরুনি অভিযান ॥ আতিকুল         করোনা ভাইরাসে একদিনে আরও ৪২ মৃত্যু, শনাক্ত ৩১১৪         নিম্ন আদালতের ৪০ বিচারক সহ ২২১ জন করোনায় আক্রান্ত         সৌদি থেকে ফিরলেন ৪১৫ জন, মিসর গেলেন ১৪০ বাংলাদেশি        
//--BID Records