ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

সরাসরি পরিবহন শুরু

১৫ টন কার্গো নিয়ে বিমান লন্ডনে

প্রকাশিত: ০৫:৫১, ১৫ মার্চ ২০১৮

১৫ টন কার্গো নিয়ে বিমান লন্ডনে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দুই বছর বন্ধ থাকার পর বুধবার পুনরায় চালু হয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্যে সরাসরি কার্গো পরিবহন। যুক্তরাজ্যের কার্গো নিরাপত্তা বিমান বিষয়ক এসিসি-৩ অডিট সনদ অর্জন করার পর এ কার্গো পরিবহন শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে বিজি ০০১ ফ্লাইটযোগে ঢাকা থেকে লন্ডনে সরাসরি কার্গো পরিবহন শুরু করে। সিভিল এ্যাভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল নাইম হাসান জানান,বিমান এদিন ১৫ টন কার্গো নিয়ে বিমানের একটি লন্ডন ফ্লাইট ঢাকা ছেড়ে যায়। এ সময় ডিএফটি নকীব আলি, বিমানের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আতিক সোবহান ও নুরুল ইসলাম হাওলাদার উপস্থিত ছিলেন। হাওলাদার জানান, এখন থেকে প্রতিটি ফ্লাইটেই এই কার্গো যাবে। এতে বিমানের রাজস্ব বাড়বে। এজন্য ইতোমধ্যে কাস্টমার সার্ভিস বিভাগ দিনরাত নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। যাতে সুনামের সঙ্গে সব ফ্লাইট নিরাপদ ও গতিশীল রাখা সম্ভব হয়। উল্লেখ্য, গত বছরের ১৩-১৬ নবেম্বর রেগুলেটরি এজেন্ট ফর থার্ড কান্ট্রি অডিট সম্পন্ন হয়। কার্গো হ্যান্ডলিং এজেন্ট হিসেবে ওই অডিটে সফলতার সঙ্গে উত্তীর্ণ হয় বিমান। ফলে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর ট্রান্সপোর্টেশন (ডিএফটি) বাংলাদেশ থেকে কার্গো নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেয়। কার্গো হ্যান্ডলিং এজেন্ট হিসেবে কার্গো নিষেধাজ্ঞামুক্ত হলেও কার্গো ক্যারিয়ার হিসেবে বিমানকে আলাদাভাবে এসিসি-৩-এর মুখোমুখি হতে হয়। গত ১৯-২২ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ওই অডিটেও বিমান সফলতার সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়েছে। সংশ্লিষ্ট অডিটর গত ২৪ ফেব্রুয়ারি অডিট রিপোর্ট সিভিল এ্যাভিয়েশন ইউকের কাছে জমা দেয়, যা পরবর্তীতে ডিএফটি ইউকের কাছে পাঠানো হয়। গত সোমবার রাতে বিমানকে ডিএফটি থেকে ই-মেইলে এসিসি-৩ অডিট সনদ অর্জনের বিষয়ে অবহিত করা হয়। সেইদিন থেকে বাংলাদেশ বিমানের লন্ডনগামী কার্গো পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা উঠে যায়। ২০১৬ সালের ৮ মার্চ যুক্তরাজ্য সরকার বাংলাদেশ থেকে আকাশপথে কার্গো পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এতে বিমানের ঢাকা-লন্ডন রুটে সরাসরি কার্গো পরিবহন বন্ধ হয়ে যায়।