ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

আজ ঘোষণা

ঋণ প্রবৃদ্ধির লাগাম টানতে আসছে নতুন মুদ্রানীতি

প্রকাশিত: ০৫:১০, ২৯ জানুয়ারি ২০১৮

ঋণ প্রবৃদ্ধির লাগাম টানতে আসছে নতুন মুদ্রানীতি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ঋণ কতটুকু বিতরণ হবে সে বিষয়ে মুদ্রানীতিতে নির্দেশনা থাকে। তবে চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতিতে যে ঋণ বিতরণের যে প্রাক্কলন করা হয়েছিল তা ছাড়িয়ে গেছে। দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই বেসরকারী খাতে ঋণ প্রবাহ বাড়তে থাকে। জুলাই থেকে ডিসেম্বর সময়ে বেসরকারী খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির হার ধরা হয়েছিল ১৬ দশমিক ২ শতাংশ। তবে ডিসেম্বর শেষে এ হার দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক ১৩ শতাংশ। ফলে নতুন মুদ্রানীতিতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লাগাম টানতে চায় বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু নির্বাচনী বছরে ব্যাংকের ঋণ ও আমানত অনুপাত বা এডি রেশিও (এডিআর) কমানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের বিপক্ষে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর এমডিদের সংগঠন এ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি)। সংগঠনটি বলছে, বাংলাদেশ ব্যাংক এডি রেশিও কমানোর যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেটা বাস্তবায়ন হলে ব্যাংকিং খাতে অতিরিক্ত ২০ থেকে ২৫ হাজার কোটি টাকার আমানত প্রয়োজন হবে। এসব দিক বিবেচনা নিয়ে চলতি বছরের দ্বিতীয়ার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা করতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আজ সোমবার দুপুরে বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর ফজলে কবির নতুন এ মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন। জানা গেছে, নতুন মুদ্রানীতিতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লাগাম টানতে চায় বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রথাগত ব্যাংকগুলোর ঋণ-আমানত অনুপাত (এডি রেশিও) ৮৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৮০ দশমিক ৫০ শতাংশ করা হতে পারে। আর ইসলামী ব্যাংকের ক্ষেত্রে ৯০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৮৮ শতাংশ করা হতে পারে। অনুৎপাদনশীল খাতে ঋণ কমাতে ব্যাংকগুলোকে চাপে রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংক এ সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। তবে এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর এডি রেশিও কিছুটা কমানো হতে পারে। তবে কতটুকু কমবে সে বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত নয়। আর এডিআর যতটা কমানো হতে পারে বলে বাজারে কথা উঠেছে ততটা কমানো সম্ভব নয়। এ ছাড়া বেসরকারী খাতে ঋণের লাগাম টানতে এডিআর কমিয়ে আনার পরিকল্পনার কথা এ মাসের শুরুতে অনুষ্ঠিত ব্যাংকার্স সভায় জানানো হয়। ব্যাংকগুলোর এমডিদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে এডিআর সীমা কিছুটা কমানো হতে পারে বলে জানায় বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে এ সংক্রান্ত কোন নির্দেশনা এখনও দেয়া হয়নি।
monarchmart
monarchmart