শনিবার ৮ মাঘ ১৪২৮, ২২ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

জীবনের শেষ কাজ হিসেবেই জতীয় ঐক্য গড়তে পা বাড়িয়েছি

  • আলোচনা সভায় ড. কামাল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সংবিধান বিশেষজ্ঞ ও প্রবীণ রাজনীতিক ড. কামাল হোসেন জানান, জীবনের শেষ কাজ হিসেবেই জাতীয় ঐক্য গঠন করার প্রক্রিয়ায় পা বাড়িয়েছি। আমার আর কোন চাওয়া-পাওয়া বা ইচ্ছে নেই। সোমবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা জানান।

‘জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া’ আয়োজিত এই আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অব) আব্দুল মান্নান, জাতীয় পার্টির (জেপি) মহাসচিব শেখ শহীদুল ইসলাম, বাংলাদেশের বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে কামাল হোসেন বলেন, এখনকার ছাত্রদের মধ্যেও জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কোন আলোচনা হয় না। দেশের সবাই রাজনীতিবিমুখ হয়ে যাচ্ছে। অথচ ভাষা আন্দোলন ছিল একটি রাজনৈতিক আন্দোলন। একাত্তরে দেশ স্বাধীনের মাধ্যমে দেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষের বিজয় হয়েছে। অথচ এখন দেশের মানুষের মধ্যে একটা অসহায় ভাব। গণতন্ত্র তো আমাদের দেশে থাকার কথা। সংবিধানের বঙ্গবন্ধুর স্বাক্ষরিত দলিলটি এখনও জাদুঘরে সংরক্ষিত। আমাদের সবার মিছিল নিয়ে গিয়ে দেখা দরকার দলিলটা আসলে আছে কিনা। সংবিধানে কি কি রয়েছে তা এখন মানুষের মধ্যে তুলে ধরা দরকার। সংবিধান মতে, জনগণই দেশের মালিক। মালিকের শুধু অধিকার থাকে না। কর্তব্য আরও বেশি। দেশে যা ঘটছে তাতে কেউ নিষ্ক্রিয় থাকলেও তিনি দায়ী থাকবেন। কারণ, তিনিও দেশের মালিক। এছাড়া গণতন্ত্র অর্থহীন হয়ে যাবে। নাগরিকের অনেক গুরুত্ব দেয়া আছে সংবিধানে, তা অনেকেই উপলব্ধি করেন না। পাঁচ বছর পরে শুধু একটি ভোট দিয়ে বিচার করবেন তা তো হয় না। এর চেয়ে বেশি সঙ্কট আর হতে পারে না। অথচ ষাটের দিকে ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে ঐক্য গড়ে উঠেছিল। দেশে সুস্থ রাজনীতির কোন বিকল্প নেই। ড. কামাল হোসেন বলেন, কেউ যদি ক্ষমতায় থেকে অন্যায় করেন আর মালিকরা যদি অপরাধীদের কিছু না বলেন সেটি হবে দায়িত্বহীনতা। কারণ আমরা তাদের শুধু প্রতিনিধি বানিয়েছি। দেশের ১৬/১৭ কোটি মানুষ যদি সংঘবদ্ধ হতে পারে তবে এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ সম্ভব হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীনের পর দেশে এসেই বলেছিলেন, স্বাধীনতা এদেশের মানুষের ঐক্যের ফসল। জনগণের ঐক্য ধরে রাখতে না পারলে স্বাধীনতা রক্ষা করা যাবে না। ‘জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া’ জীবনের শেষ কাজ বলে পা বাড়িয়েছি। সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে। দেশের মালিকের কাছে তাদের ক্ষমতা বুঝিয়ে দিতে হবে। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী তার বক্তব্যে বলেন, কোন সরকার জাতিকে উন্নত করতে পারেন না। জাতি উন্নত করতে প্রয়োজন বিরোধী দল। হিসাবে ধরতে গেলে বিএনপিকেই বিরোধী দল হিসেবে ধরতে হবে। কিন্তু খালেদা জিয়ার (বিএনপি) মতো বিরোধী দল না থাকলেই ভাল হতো। ড. কামালকে উদ্দেশ করে কাদের সিদ্দিকী বলেন, আপনি যদি জাতিকে পথ দেখাতে না পারেন, অস্বস্তি থেকে জাতিকে উদ্ধার করতে না পারেন তবে মানুষ ভালভাবে নেবে না। হাতে কোন সময় নেই। সবাইকে নিয়ে ঘর ভুলে রাস্তায় নামতে হবে।

শীর্ষ সংবাদ:
সাকিবের হাসিতে শুরু বিপিএল         ফের বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ॥ করোনার লাগাম টানতে পাঁচ জরুরী নির্দেশনা         বাবার সম্পত্তিতে পূর্ণ অধিকার পাবেন হিন্দু নারীরা ॥ ভারতীয় সুপ্রীমকোর্ট         উচ্চারণ বিভ্রাটে...         বাণিজ্যমেলার ভাগ্য নির্ধারণে জরুরী সিদ্ধান্ত কাল         আলোচনায় এলেও আন্দোলনে অনড় শিক্ষার্থীরা         ‘আমার প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়টি ভালো নেই’         করোনা ভাইরাসে আরও ১২ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১১৪৩৪         ‘১৫ ফেব্রুয়ারি বইমেলা শুরু’         ঢাবির হল খোলা, ক্লাস চলবে অনলাইনে         করোনারোধে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ৫ জরুরি নির্দেশনা         আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ স্কুল-কলেজ         ভরা মৌসুমে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি         মাদারীপুরে সেতুর পিলারে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, ২ শিক্ষার্থী নিহত         বিপিএম-পিপিএম পাচ্ছেন পুলিশের ২৩০ সদস্য         অভিনেত্রী শিমু হত্যা : ফরহাদ আসার পরেই খুন করা হয়         দিনাজপুরে মাদক মামলায় নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য গ্রেফতার         শাবিপ্রবিতে গভীর রাতে শিক্ষার্থীদের মশাল মিছিল         ঘানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে ৫শ’ ভবন ধস, নিহত ১৭         করোনায় রেকর্ড সাড়ে ৩৫ লাখ শনাক্ত, মৃত্যু ৯ হাজার