ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯

নওগাঁয় কেচোঁ সারের ব্যবহারে রক্ষা পাচ্ছে পরিবেশ

প্রকাশিত: ২৩:৫১, ৩১ অক্টোবর ২০১৭

নওগাঁয় কেচোঁ সারের ব্যবহারে রক্ষা পাচ্ছে পরিবেশ

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ ॥ নওগাঁর পত্মীতলা ও রাণীনগরে দিন দিন কৃষকদের মাঝে কেচোঁ দ্বারা উৎপাদিত পরিবেশ বান্ধব জৈব সারের (ভার্মি কম্পোস্ট সার) ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে ফসলের জমিতে রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রবণতা যেমন কমছে, অপরদিকে পরিবেশ রক্ষাও পাচ্ছে, কৃষকের উৎপাদন খরচও কমছে। এই জৈব সার ব্যবহারের ফলে জমির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধির পাশাপাশি ফলনও বৃদ্ধি পাচ্ছে। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, কৃষি অধিদপ্তরের উদ্যোগে ও উপজেলা কৃষি অফিসের বাস্তবায়নে ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রজেক্টের(এনএটিপি) আওতায় উপজেলার ৬ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে কমন ইন্টারেস্ট গ্রুপ (সিআইজি) প্রকল্পের অধীনে ৬টি সিআইজি কৃষক সমিতির মাধ্যমে ভার্মি কম্পোস্ট প্রদর্শনী চলমান রয়েছে। প্রতিটি সমিতিতে ওই গ্রামের ৬০জন কৃষক-কৃষাণী সদস্য রয়েছে। এই সমিতির ১জন কৃষকের বাড়িতে এই ভার্মি কম্পোস্ট (কেচোঁ দ্বারা জৈব সার উৎপাদন) প্রদর্শনী চালু রয়েছে। সমিতির বাকি সদস্যরা এই প্রদর্শনী থেকে কেচোঁ সার উৎপাদনের যাবতীয় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছেন এবং উৎসাহিত হচ্ছেন। পরবর্তিতে উৎসাহী কৃষকদের এই থাই কেচোঁ দ্বারা জৈব সার তৈরির সকল সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে কৃষি অফিস থেকে। সারা বছরই এই সার তৈরি করা যায়। আস্তে আস্তে উপজেলায় এই ভার্মি কম্পোস্ট খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। উপজেলা কৃষি অফিসার এসএম গোলাম সারওয়ার জানান, জমিতে রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমানো ও কৃষকদেরকে পরিবেশ বান্ধব কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহারে উদ্ধুদ্ধ করতেই সরকার এই সব পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। বর্তমানে জৈব সার উৎপাদনের এই পদ্ধতিটি উপজেলার কৃষকদের মাঝে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।