শুক্রবার ২৬ আষাঢ় ১৪২৭, ১০ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মেহেরপুরের গরু খামারীদের কপালে চিন্তার ভাজ

মেহেরপুরের গরু খামারীদের কপালে চিন্তার ভাজ

সংবাদদাতা, মেহেরপুর ॥ দেশের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে গরু আসায় শঙ্কা আর উৎকন্ঠায় দিন কাটছে মেহেরপুরের গরু খামারীদের। এরই মধ্যে বাজার দর পড়তে শুরু করেছে। অন্যদিকে গো খাদ্যের দাম বৃদ্ধিতে লোকসানের মুখে পড়েছে জেলার খামারীরা। প্রাণি সম্পদ বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, দেশে চাহিদার তুলনাই বেশি গরু উৎপাদন হয়েছে। ফলে বাইরের দেশের গরুর কোন প্রয়োজন নেই।

গেল দুই বছরে ভারত থেকে গরু না আসায় লাভের মুখ দেখছেন মেহেরপুরের খামারীরা। কর্মসংস্থান হয়েছে অনেক বেকার যুবকের। চলতি বছরে জেলার ৪’শ টি খামার ও ঘরোয়াভাবে কুরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার গরু। অন্য বছরে ঈদকে সামনে রেখে কেনা বেচা শুরু হলেও এবার দেখা যাচ্ছে বিপরীত চিত্র। ব্যবসায়ীরা গরুর দাম বলছেন অনেক কম। ফলে খামারীরা গরু বিক্রি করতে পারছেন না। ভারত থেকে গরু আসায় বাজারের এ অবস্থা বলে অভিযোগ খামারীদের।

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার মালসাদহ গ্রামের গরু ব্যাবসায়ী এনামুল হক জানান, কোন ক্ষতিকর ওষুধ ছাড়াই খড়, কাঁচা ঘাস, গমের ভূসি, খৈল সহ বিভিন্ন প্রকারের প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে গরু মোটাতাজাকরন করছেন জেলার খামারীরা। গত বছরের তুলনায় গোখাদ্যের দাম বেড়েছে দ্বিগুন। তারপরও আশায় বুক বেধেছিলেন খামারীরা। কিন্তু দেশের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে গরুর আসায় চিন্তার ভাজ খামারীদের। বর্তমান বাজার দরে লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে তাদের। মেহেরপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চল সহ বিভিন্ন এলাকা ও গরুর হাটে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে একই চিত্র।

সদর উপজেলার শালিকা গ্রামের খামারী মাজহারুল ইসলাম জানান, এবার কোরবানির ঈদে ১৮ টি গরু বিক্রির জন্য প্রস্তুত করেছিলেন। গরু গুলো ২৬ লাখ টাকায় বেচার স্বপ্ন ছিল তার। কিন্তু সে স্বপ্ন এখন ভেঙে গেছে। একই অবস্থা এ গ্রামের খামারী তুহিনের। এবার গরুর হাটে ২৮ টি গরু বিক্রি করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু বর্তমান বাজার দরে আসল টাকা উঠবে কিনা শঙ্কায় রয়েছেন তিনিও।

মেহেরপুর মদনাডাঙ্গা গ্রামের গরু ব্যবসায়ী নাসির জানান, রাজশাহী ও চাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে প্রচুর পরিমানে গরু আসছে। সেখানে কম দামে গরু কিনতে পারছেন তারা। ফলে দেশের উৎপাদিত গরুর দাম কম।

জেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম জানান, দেশে চাহিদার তুলনায় বেশি গরু আছে। ফলে কোরবানির জন্য দেশের বাইরের গরুর কোন প্রয়োজন নেই। এভাবে সীমান্ত দিয়ে গরু আসলে লোকসানের মুখে পড়বে দেশের খামারীরা। বন্ধ হয়ে যেতে পারে সম্ভাবনাময়ী এই খাত। সীমান্ত দিয়ে যাতে গরু না আসে সেজন্য প্রাণি সম্পদ বিভাগ ও মন্ত্রনালয়ের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন তিনি।

শীর্ষ সংবাদ:
চলে গেলেন দেশের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন         বিনিয়োগে রুট বদল ॥ করোনা মহামারীর ধাক্কা         দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চলবে ॥ প্রধানমন্ত্রী         রিজেন্টের আইটি প্রধান গ্রেফতার, আটক সাহেদের ভায়রা         স্বাস্থ্য খাতে অনিয়মের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান চলবে         এই প্রথম সুস্থতার হার শনাক্তের চেয়ে বেশি         পাপুল কুয়েতের নাগরিকত্ব পাননি         তিন মাসের জন্য রোমে নিষিদ্ধ বাংলাদেশী যাত্রী ও ফ্লাইট         দীর্ঘমেয়াদী বন্যার শঙ্কা         বর্ষায়ও ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ নগরবাসী         এখন ফখরুল ও পুরো বিএনপি হোম আইসোলেশনে         শিক্ষার্থীদের হাতে ডিজিটাল ডিভাইস ও ইন্টারনেট দিতে হবে         ডিসেম্বর পর্যন্ত সরকারী প্রতিষ্ঠানে সব ধরনের গাড়ি কেনা বন্ধ         আধিপত্য ও চাঁদাবাজির কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠায় রক্ত ঝরছে পাহাড়ে         কেন্দ্রীয় ব্যাংক গবর্নরের বয়সসীমা বাড়ল দু’বছর         চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণ ছাড়াল ১১ হাজার         ১৪ প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর         করোনা: শনাক্তের তুলনায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়েছে         ক্ষুধায় প্রতিদিন ১২ হাজার মানুষের মৃত্যু হবে : অক্সফাম         গরুর ধাক্কায় আন্তঃনগর কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস বিকল        
//--BID Records