সোমবার ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭, ০৮ মার্চ ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বাংলাদেশিদের অর্থ আরও বেড়েছে সুইস ব্যাংকে

বাংলাদেশিদের অর্থ আরও বেড়েছে সুইস ব্যাংকে

অনলাইন রিপোর্টার ॥ সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকা রাখার পরিমাণ আরও বেড়েছে। এক বছরের ব্যবধানে এক হাজার কোটি টাকার বেশি অর্থ জমা হয়েছে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে। অথচ সারা দুনিয়া থেকে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে অর্থ জমার পরিমাণ কমেছে।

২০১৬ সালে সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশ থেকে জমা হওয়া অর্থের পরিমাণ ছিল ৬৬ কোটি ১০ লাখ সুইস ফ্রাঁ, বাংলাদেশি মুদ্রায় বিনিময় করলে এর পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৫ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকায় (বাংলাদেশি মুদ্রায় এক সুইস ফ্রাঁর বিনিময়মূল্য ৮৬ টাকা)। ২০১৫ সালে সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশ থেকে জমার পরিমাণ ছিল প্রায় ৫৫ কোটি সুইস ফ্রাঁ, বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ছিল প্রায় ৪ হাজার ৭৩০ কোটি টাকা। সেই হিসাবে আগের বছরের চেয়ে এ জমার পরিমাণ প্রায় এক হাজার কোটি টাকা বা ২০ শতাংশ বেড়েছে।

সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) গতকাল বৃহস্পতিবার ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড ২০১৬’ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এসএনবির বার্ষিক এ প্রতিবেদন থেকে বাংলাদেশের অর্থ জমার এ তথ্য পাওয়া গেছে। এসএনবির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৬ সালে সুইজারল্যান্ডে মোট ব্যাংকের সংখ্যা ছিল ২৬১। এ ২৬১টি ব্যাংকেই বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব থেকে অর্থ জমা রাখা হয়।

এসএনবির প্রতিবেদনে প্রকাশিত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, এক বছরের ব্যবধানে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশের অর্থ জমার পরিমাণ ২০ শতাংশ বেড়েছে। ২০১৫ সালে সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশ থেকে জমার পরিমাণ ছিল প্রায় ৫৫ কোটি সুইস ফ্রাঁ, বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ছিল প্রায় ৪ হাজার ৭৩০ কোটি টাকা।

এসএনবির প্রকাশিত প্রতিবেদনে ২০০৭ সাল থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অর্থ জমার তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, ২০১২ সাল থেকে সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশ থেকে অর্থ জমার পরিমাণ ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে। ২০১২ সালে সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশের জমা অর্থের পরিমাণ ছিল প্রায় ২২ কোটি ৮০ লাখ সুইস ফ্রাঁ, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১ হাজার ৯৬১ কোটি টাকা। ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল—এই সময়ের মধ্যে সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশের জমা রাখা অর্থের পরিমাণও তিন গুণ বেড়ে গেছে। তবে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের ক্ষেত্রে সুইস ব্যাংকগুলোতে অর্থ জমার পরিমাণ ২০১৬ সালে এসে আগের বছরের চেয়ে প্রায় অর্ধেক হয়ে গেছে। ২০১৫ সালে সুইস ব্যাংকগুলোতে ভারতের জমার পরিমাণ ছিল প্রায় ১২১ কোটি সুইস ফ্রাঁ, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১০ হাজার ৪০৬ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে এসে ভারতের জমার পরিমাণ কমে দাঁড়িয়েছে ৬৬ কোটি ৪০ লাখ সুইস ফ্রাঁ, বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৫ হাজার ৭১০ কোটি টাকা।

আবার ২০০৯ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের জমার পরিমাণ ছিল ১৪ কোটি ৯০ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা ১ হাজার ২৮১ কোটি টাকা, আর এখন তা ৩৪৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৫ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকা।

সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশের অর্থ জমার পরিমাণ বেড়ে যাওয়াকে উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, সুইস ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশের অর্থ জমার পরিমাণ বৃদ্ধি বিশ্বের অন্য দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম।

ইফতেখারুজ্জামান মনে করেন, অর্থ পাচার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় এই অবস্থা তৈরি হয়েছে। তাঁর মতে, যেকোনো অনিয়ম বন্ধ করা না গেলে তা আরও বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। বিনিয়োগ পরিবেশের ঘাটতি ও আর্থিক ব্যবস্থাপনার দুর্বলতার কারণে দেশ থেকে বিদেশে অর্থ নিয়ে যাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে বলে মনে করছেন তিনি।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ও আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘সুইস ব্যাংকগুলোতে অর্থ জমার যে পরিমাণ বলা হচ্ছে, তা পুরোটাই বাংলাদেশ থেকে গেছে বিষয়টি তেমন নয়। দেশের বাইরে বৈধভাবে যারা ব্যবসা-বাণিজ্য করছে, বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী প্রবাসীর পাশাপাশি সুইজারল্যান্ডে বসবাসকারী বাংলাদেশিরাও সেখানে অর্থ জমা করছে। তাই বাংলাদেশ থেকে কত অর্থ গেছে, সেই তথ্য পাওয়া গেলে অর্থ পাচার সম্পর্কে প্রকৃত চিত্র পাওয়া যাবে। অর্থ পাচার রোধে আমরা চেষ্টা চালাচ্ছি।’

টিআইবির ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ব্যবসায়ীরা সাধারণত আন্ডার ইনভয়েসিং এবং ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে অর্থ পাচার করে। অথচ আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় সরকার চাইলে অর্থ পাচার ও পাচারকারীদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করতে পারে। কিন্তু সেই কাজটি করছে না সরকার।

এদিকে, কালোটাকা ও অর্থ পাচার রোধে ভারত সুইস ব্যাংকগুলোর সঙ্গে তথ্য বিনিময়ের উদ্যোগ নেয় ২০১৬ সালে। এর আওতায় ২০১৯ সাল থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সুইস ব্যাংকগুলো থেকে ভারতীয় গ্রাহকদের তথ্য পেতে যাচ্ছে দেশটির সরকার। ভারতের এ ধরনের উদ্যোগের ফলে দেশটি থেকে সুইস ব্যাংকে অর্থ জমার পরিমাণ কমে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শীর্ষ সংবাদ:
গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি আবেদন শুরু ১ এপ্রিল, পরীক্ষা শুরু ১৯ জুন         করোনা: ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৪, শনাক্ত ৮৪৫         যোগ্যতা দিয়ে নারীদের অধিকার আদায় করে নিতে হবে ॥ প্রধানমন্ত্রী         খালেদা জিয়া দেশের যেকোনো জায়গায় চিকিৎসা নিতে পারবেন ॥ আইনমন্ত্রী         নিবন্ধনধারী শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ         অনুদান দেওয়া হবে, তবে সব শিক্ষার্থীকে নয় ॥ শিক্ষা মন্ত্রণালয়         ৭ মার্চের ভাষণ শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের সম্পদ ॥ পাটমন্ত্রী         দেশে করোনা মহামারীর এক বছর         নিবন্ধনধারী শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ         “বিএনপির আন্দোলন হচ্ছে দেশ-বিদেশে গোপন বৈঠক আর ষড়যন্ত্র”         শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণেই নারীদের জয়জয়কার : লিটন         চট্টগ্রামে প্রবাসী হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড         ছেলের গায়ের রঙ নিয়ে উদ্বেগ ছিল ব্রিটিশ রাজপরিবারে ॥ সাক্ষাৎকারে মেগান         ১৮০০ মেগাহার্টজ ব্যান্ডের তরঙ্গ কিনলো গ্রামীণফোন-রবি-বাংলালিংক         খালেদার মুক্তির মেয়াদ আরও ৬ মাস বাড়ছে         চট্টগ্রামে সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেতা নিহত         নয়াদিল্লিতে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপিত         সুইজারল্যান্ডে গণভোটে নিষিদ্ধ হল ‘মুখ ঢাকা পোশাক’         ষষ্ঠ ধাপে ১১ পৌরসভায় ভোট ১১ এপ্রিল         “লিঙ্গ সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল”