মঙ্গলবার ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সরকার ভিন্ন মোড়কে একদলীয় শাসন চালাচ্ছে ॥ ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভিন্ন মোড়কে সরকার একদলীয় শাসন চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার দুপুরে রাজধানীর ভাসানী ভবন মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর বিএনপির যৌথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ অভিযোগ করেন। পরে রাজধানীর সেগুনবাগিচা কচিকাঁচা মিলনায়তনে ২০ দলীয় জোটের শরিক দল লেবার পার্টি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ১০ বছর ধরে দেশে গণতন্ত্র নেই বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল।

৭ নবেম্বরের সমাবেশে ব্যাপক জনসমাগম ঘটাতে ঢাকা মহানগরীর নেতাদের তাগিদ দিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, সেদিন যেন আমরা এমন একটা সমাবেশ করতে পারি, যা থেকে প্রমাণিত হবে যে বিএনপি এখনও দেশে এক নম্বর রাজনৈতিক দল। বিএনপি থেকে বড় কোন রাজনৈতিক দল নেই ৭ নবেম্বর এটা আমাদের প্রমাণ করতে হবে। তিনি বলেন, ৭ নবেম্বর সমাবেশ করতে পুলিশের কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ভিন্ন মতকে কখনই সহ্য করতে পারে না। তাই আওয়ামী লীগ ১৯৭২-৭৫ সালে একদলীয় বাকশাল কায়েম করেছিল। সরকার সভা-সমাবেশের জায়গাগুলো সঙ্কুচিত করে ফেলেছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আমরা যখনই কোন সভা- সমাবেশের আয়োজন করতে চাই সরকার তখনই বিধিনিষেধ আরোপ করে। আগে পল্টন ময়দানে, মুক্তাঙ্গনে সভা করা যেত। এখন সেগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। তারপর আইন করে দিয়েছে যে সভা করতে হলে পুলিশের অনুমতি লাগবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসের সভাপতিত্বে যৌথসভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, ওলামা দলের মহাসচিব শাহ নেসারুল হক, মহিলা দলের নেতা পেয়ারা মোস্তফা ও ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতা কাজী আবুল বাশার। দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচা কচিকাঁচা মিলনায়তনে ২০ দলীয় জোটের শরিক দল লেবার পার্টি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ১০ বছর ধরে দেশে গণতন্ত্র নেই বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল। বিএনপিকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া সাম্প্রতিক বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, এটা প্রতিহিংসার রাজনীতি নয়। এটা হচ্ছে, সুপরিকল্পিতভাবে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠিত করার নীল নকশা। আর এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিএনপিকে ক্ষমতায় আসতে দেয়া যাবে না। তিনি বলেন, কথা বলার জন্য সুশীল সমাজের নাগরিকদের হুমকি দেয়া হচ্ছে। ৩৭ টি গণমাধ্যম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সত্য কথা বলার অপরাধে মাহমুদুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দেশ কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সুতরাং, কেউ বিভক্ত হবেন না। বিভেদ ও বিভাজনের রাজনীতি করা যাবে না। আর এ সময় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বের বিকল্প নেই। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বেই জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ইস্পাতকঠিন আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। কারণ, আন্দোলন ছাড়া বিকল্প পথ আমাদের সামনে নেই। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে কঠোর আন্দোলনের মধ্য দিয়ে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার স্বার্থে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে একদলীয় শাসকদের পরাজিত করতে হবে।

লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, এনডিপির চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা প্রমুখ।

৭ নবেম্বর স্মরণকালের বড় সমাবেশ করবে বিএনপি- মির্জা আব্বাস ॥ ৭ নবেম্বর ‘বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে বিএনপি স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সমাবেশ করবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস। শনিবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টন ভাসানী ভবন মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর বিএনপি আয়োজিত যৌথসভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, ৭ নবেম্বর স্মরণকালের সমাবেশ করতে হবে। এজন্য সকলকে সকলস্তরের কমিটিকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। এই সভা থেকে সকলে এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার কাজে নেমে পড়বেন, এটাই আমরা চাই। তিনি বলেন, ‘বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়েছি। প্রত্যাশা করছি, সরকার আমাদের সমাবেশের অনুমতি দেবে। সমাবেশ সফল করতে নগর বিএনপির প্রতিটি এলাকায় প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। আওয়ামী লীগের কাউন্সিল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সারাদেশকে অন্ধকারে নিমজ্জিত করে ঢাকাকে আলোকিত করেছে ক্ষমতাসীনরা।

ক্ষমতার দ্বারপ্রান্তে বিএনপি- মোশাররফ ॥ বিএনপি ক্ষমতার দ্বারপ্রান্তে বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। দেশে নির্বাচন হলে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে বুঝতে পেরেই আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাসহ দলটির নেতারা বার বার বলছেন, বিএনপিকে আর ক্ষমতায় আসতে দেয়া যাবে না। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ’৯০’র ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য’ নামক একটি সংগঠন আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শীর্ষ সংবাদ:
বগুড়া-১ ও যশোর-৬ সংসদীয় আসনে ভোটগ্রহণ চলছে         ডিবি কার্যালয়ে ডা. সাবরিনা         বেসরকারি চাকরিজীবীদেরও ঈদে কর্মস্থলে থাকতে হবে         করোনা ভাইরাসে কমপক্ষে ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যু হয়েছে ॥ অ্যামনেস্টি         করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষের প্রতিরোধ ক্ষমতা স্বল্পস্থায়ী ॥ গবেষণা         এবার ট্রাম্প প্রশাসনের 'টার্গেট' ফাউচি         যুক্তরাষ্ট্রে ফাস্ট ট্র্যাক মর্যাদা পেলো করোনা ভাইরাসের দুই ভ্যাকসিন         হংকংয়ে গণপরিবহনে মাস্ক না পরলে ৫ হাজার হংকং ডলার জরিমানা         সুনামগঞ্জের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত         আফগান গোয়েন্দা কার্যালয়ে গাড়ি বোমা হামলায় নিহত ১১         কোয়ারেন্টাইনে বিরক্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট         হায়া সোফিয়া ইস্যুতে এরদোয়ানের পক্ষে রাশিয়া         দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের প্রকল্প অবৈধ ॥ যুক্তরাষ্ট্র         দোকানে মাস্ক না রাখলে জরিমানা         করোনা ॥ যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে শনাক্ত ৫৯,২২২         আশুলিয়ায় পত্রিকা এজেন্টকে মারধরের অভিযোগ         খুলনায় হচ্ছে শেখ হাসিনা মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়         পঙ্কিলতায় পূর্ণ সাবরিনার জীবন         অপরাধীর অপরাধকেই বিবেচনা করে সরকার ॥ কাদের        
//--BID Records