ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

কেবল বক্স বদলে যাবার দিন আসছে

প্রকাশিত: ০৬:০২, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৬

কেবল বক্স বদলে যাবার দিন আসছে

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কমিউনিকেশন্স কমিশন সরকারের কাছে এমন এক প্রস্তাব দিয়েছে, যার ফলে কেবল বক্সের ওপর কেবল শিল্পের নিয়ন্ত্রণ শিথিল হয়ে যাবে। কেবল বক্স হলো একটা সমতল ধূসর বা কালো বর্ণের বক্স যা টিভি স্ট্যান্ডের ওপর থাকে এবং বাসাবাড়ি না বদলানো পর্যন্ত বহুলাংশে উপেক্ষিতই থাকে। এই উপেক্ষিত বা অবহেলিত বস্তুটিকে নিয়ে এত মাথা ঘামানোর কারণ কি? কারণ, কমিশনের ওই প্রস্তাবের ফলে ওই সাধারণ বক্সটা একটা কৌতূহলোদ্দীপক পণ্যে পরিণত হতে পারে। এতে আপনি কিভাবে টিভি শো, মুভি ও ভিডিও দেখছেন তার ওপরই শুধু যে প্রভাব পড়বে তা নয়, উপরন্তু এ্যাপল টিভি, এ্যামাজন কায়ার টিভির মতো পণ্য ঢের বেশি আপনার বাড়ির অবিভাজ্য অংশে পরিণত হবে। প্রস্তাবটি অনুমোদিত হলে ভোক্তার ওপর এর আশু প্রভাব পড়বে এই যে, প্রোভাইডারদের কাছ থেকে কেবল বক্স নেয়ার জন্য যে ভাড়া দিত সেই টাকাটা তারা বাঁচাতে পারবে। কেবল বক্সের জন্য গ্রাহককে প্রতিমাসে ২০ ডলার ভাড়া দিতে হয়। তবে এর চেয়েও ইন্টারেস্টিং একটা ব্যাপার আছে। এটা আমাদের টেলিভিশন দেখার পদ্ধতিটাই বদলে দিতে পারে। কারণ, অন্যান্য কোম্পানিও সেট টপ বক্স বানানোর সুযোগ পাবে, যা আপনার কেবল কোম্পানির কাছ থেকে পাওয়া বক্সটাকে সম্পূর্ণ হটিয়ে দিয়ে সে স্থান দখল করে নিতে পারে। আর এটা নিয়েই যত রকমের বিতর্ক। কেবল বক্স দারুণ কোন জিনিস নয়। আধুনিক যুগের জন্য এটা আপডেট করার প্রয়োজন আছে, এমনও নিশ্চয়ই নয়। কিন্তু এটা হলো ২০১৬ সাল। তাই প্রশ্ন ওঠে যে, আমি যখন জানি আমি কি দেখতে চাই তারপরও আমার কাক্সিক্ষত চ্যানেলটি খুঁজে নেয়ার জন্য এত খাটাখাটুনির কি দরকার। কমিশনের এ সুপারিশটি অনুমোদিত হলে কেবল ও স্যাটেলাইট গ্রাহক যে ধরনের সেট টপ বক্স চান না কেন, বসাতে পারবেন। প্রোভাইডারদের কাছ থেকে মাসিক ভাড়ায় কোন কেবল বক্স নিতে হবে না। এফসিসি প্রতিযোগিতা উন্মোচন করে দিয়ে গ্রাহকের হাতে একটি সহজ ও শক্তিশালী নিয়মবিধি তুলে দিয়েছে। সেটা হলো, তারা তাদের পছন্দের টেলিফোন ও মডেম টেলিফোন নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত করতে পারবে। অবশ্য এরপরও কেবল গ্রাহক চাইলে তাদের কেবল কোম্পানির বক্স রাখতে পারবে। এটা করা এতই সহজ যে, একে কোন ব্যাপার বলেই মনে হবে না। তবে কেবল কোম্পানিগুলো ঢের বেশি বড় বাজারে প্রতিযোগী হয়ে দাঁড়াবে। ইন্টারনেট প্রযুক্তির অন্য সকল ক্ষেত্রে একটা বিভাজন রেখা আছে। এর একদিকে আছে নেটওয়ার্ক অপারেটর এবং অন্যদিকে আছে নেওয়ার্কের সঙ্গে যে ডিভাইসটি যুক্ত করা হয় সেটি। ভেরিজন, এটিএ্যান্ডটি, স্প্রিন্ট এবং টি-মোবাইল কখনও ঠিক করে দেয় না আপনার ফোনে কোন্ কোন্ এ্যাপ যুক্ত হতে পারে। আপনি কম কাস্ট থেকে আপনার ল্যাপটপ পান না। ভিডিও বাজারেরও সেভাবে চলা উচিত। সেট টপ বক্স কালক্রমে আপনার গৃহের আরও উল্লেখযোগ্য অংশে পরিণত হতে পারে। সেট টপ বক্সকে গৃহের একটি কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করার উপায় কেবল কোম্পানিগুলো আগে থেকেই সন্ধান করে এসেছে। শুধু কেন্দ্রবিন্দুতে নয় বরং গৃহের সেন্ট্রাল অপারেটিং পয়েন্ট বা সিকিউরিটি সিস্টেমে পরিণত করার চেষ্টা করেছে। এ্যাপল তার হোমকিট প্রযুক্তিকে নিজস্ব সেট টপ বক্সের সঙ্গে যুক্ত করে এ্যাপল টিভিকে নিঃসন্দেহে সেই লক্ষ্যেই নিয়ে গেছে। আপনার কেবল দর্শনের ব্যবস্থাটি স্মার্ট হোমের কেন্দ্রবিন্দুর সঙ্গে যুক্ত করতে সক্ষম হলে প্রযুক্তিবিদরা ভবিষ্যতের গৃহ সম্পর্কে ভাবতে গিয়ে যে ‘স্টার ট্রেকের’ স্বপ্ন দেখেন আমরা সেই স্বপ্নের পথে আরও একধাপ এগিয়ে যেতে পারব। এই উদ্ভাবনী কৌশলটা স্রেফ টেলিভিশন পর্যন্ত প্রসারিত করতে পারলে বেশিরভাগ গ্রাহক তা সাগ্রহে লুফে নেবে। আজ অধিক থেকে অধিকসংখ্যক লোক টিভি ও মুভি দেখার জন্য সম্পূরক সার্ভিস নেটফ্লিক্স, হুলু, এ্যামাজন ভিডিও ও আইটিউনের দিকে ঝুঁকছে। এ অবস্থায় যে সার্ভিসের সঙ্গে আপনি যুক্ত এবং যে স্ক্রিনে আপনি একটা শো দেখতে চান সেখানে সেই শো দেখতে পাওয়ার ব্যাপারটা বিরক্তিকর মনে হতে পারে। এ্যাপল, রোকু ও অন্যরা এ্যাপ ব্যবহার করে এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছে। আপনি যেসব এ্যাপ চান সেগুলো তাদের বক্সে ডাউনলোড করতে পারেন। তারপর যেটা চান তা দেখার জন্য সেই এ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন। তবে স্বতন্ত্র সেট টপ বক্স প্রস্তুতকারক ‘টিআইভিও’ এফসিসির প্রস্তাবে যে সুযোগটুকু দেয়া হয়েছে ঠিক সেইটি করার জন্য প্রচলিত নিয়মনীতির অধীনে প্রাপ্ত প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়েছে, যাতে আপনি কেবল প্রোভাইডারের বক্সের বদলে তাদেরই কোন একটি বক্স ব্যবহার করতে পারেন। মূল : হেলেই তাকামুমা সূত্র : ওয়াশিংটন পোস্ট
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২