ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

আইআরআই জরিপ

অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঠিক পথেই বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ০৫:৪৪, ২৭ জানুয়ারি ২০১৬

অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঠিক পথেই বাংলাদেশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বেশিরভাগ বাংলাদেশীই মনে করেন অর্থনীতির উন্নয়নের কারণে বাংলাদেশ ঠিক পথেই এগোচ্ছে। গণতন্ত্রের চেয়ে উন্নয়ন বেশি জরুরী এরকম বিশ্বাসী মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। উন্নয়নের চেয়ে গণতন্ত্র জরুরী এরকম বিশ্বাসী মানুষের সংখ্যা কমছে। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউটের (আইআরআই) একটি জরিপে এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে। গত ৩০ অক্টোবর থেকে ১৯ নবেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার ২ হাজার ৫৫০ জনের ওপর জরিপটি করা হয়। আইআরআই-এর এশিয়া বিষয়ক পরিচালক ড্রেক লুইটেন বলছেন, বাংলাদেশের মানুষের কাছে অর্থনীতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে বোঝা যাচ্ছে, যদিও প্রবৃদ্ধি বজায় রাখতে হলে সবক্ষেত্রেই স্থিতিশীলতা ধরে রাখতে হবে। বিশ্বের অনেক দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে জরিপ ও গবেষণা করে আইআরআই। বাংলাদেশেও ২০০৮ সাল থেকে এই জরিপ পরিচালনা করে আসছে সংস্থাটি। জরিপের ফলে বলা হয়েছে, গণতন্ত্রের চেয়ে উন্নয়ন বেশি জরুরী বলে যারা মনে করে, তাদের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। ২৭ শতাংশ থেকে এই হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৫ শতাংশে। অন্যদিকে উন্নয়নের চেয়ে গণতন্ত্র বেশি জরুরী, এরকম মনে করা মানুষের হার জুন মাসে ছিল ৬৮ শতাংশ, কিন্তু তা কমে এখন দাঁড়িয়েছে মাত্র ৫১ শতাংশে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ৮৮ শতাংশ মানুষ মনে করেন, গণতন্ত্রে সমস্যা থাকলেও, অন্য যে কোন ধরনের সরকারের চেয়ে তা ভাল। তবে বাংলাদেশের সংসদ নির্বাচনের আগে একটি নির্দলীয়, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনা দরকার বলে মনে করেন অনেক মানুষ। আইআরআই জরিপ অনুযায়ী, অর্থনৈতিক উন্নয়নের কারণে বাংলাদেশ সঠিক পথেই রয়েছে বলে বেশিরভাগ মানুষের বিশ্বাস করে। ৬৮ শতাংশ মানুষ এটি মনে করেন, তবে ২৩ শতাংশ নাগরিক মনে করেন, তার কোন দরকার নেই। জরিপে বেরিয়ে এসেছে, ৬৪ শতাংশ বাংলাদেশী মনে করেন, শিক্ষা, যোগাযোগ, অর্থনীতির উন্নয়নের কারণে দেশ ঠিক পথেই রয়েছে। তবে ৩২ শতাংশের মতে, বাংলাদেশ ভুল পথে হাঁটছে, কারণ দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা নেই। ২০১৩ সালে ৬২ শতাংশ মানুষ মনে করত, দেশ ভুল পথে যাচ্ছে। তাছাড়া ৮০ শতাংশের বেশি মানুষ বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে আশাবাদী। তাদের নিজেদের আর্থিক সক্ষমতা বেড়েছে। তারা আশা করছেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে এই সক্ষমতা আরও বাড়বে। তবে দুর্নীতি এখনও একটি বড় সমস্যা এবং সরকার সেটি মোকাবেলায় যথেষ্ট চেষ্টা করা উচিত।