২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

কোন দল জয় বাংলা স্লোগান না দিলে তাদের নিবন্ধন থাকা উচিত নয় ॥ রাজ্জাক

প্রকাশিত : ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল, ১১ ডিসেম্বর ॥ কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, যে সব রাজনৈতিক দল নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন নিয়েছে সেসব দল যেন জয় বাংলা স্লোগান অন্তর্ভুক্ত করে। আর নিবন্ধনের সময় কোন রাজনৈতিক দল যদি জয় বাংলা স্লোগান উল্লেখ না করে থাকে, তাহলে সেই দলের নিবন্ধন থাকা উচিত না। যারা নিবন্ধন হয়েছে তাদের যেন নির্বাচন কমিশন চিঠি দিয়ে জানায়। সেসব দলের গঠনতন্ত্রে জয় বাংলা স্লোগান যুক্ত করে।

বুধবার সন্ধ্যায় টাঙ্গাইল সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এরপর মন্ত্রী টাঙ্গাইল পৌরসভার আয়োজনে হানাদারমুক্ত ও বিজয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় শহীদ স্মৃতি পৌর উদ্যানে যোগ দেন।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, খালেদা জিয়ার দেশের সর্বোচ্চ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে। এখানকার চিকিৎসকরা যা বলবেন সেটাই চূড়ান্ত। তা সবাই মেনে নিবে। অথচ বিএনপি বলছে, তার চিকিৎসা নিয়ে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এখানে পরিষ্কার বলতে চাই খালেদা জিয়া কোন রাজনৈতিক মামলায় কারাভোগ করেনি। তিনি দুর্নীতির মামলায় কারাগারে রয়েছেন। সেই দুর্নীতির মামলায় দেশের আদালতের বিচারকরা এই রায় দিয়েছেন। সেই রায়ের ভিত্তিতেই তিনি কারাগারে রয়েছেন। এজন্য যদি কাউকে দায়ী করতে হয়। তাহলে বিচারকদের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হবে। সুপ্রীমকোর্টের জজকেই সুপ্রীমকোর্টে দাঁড় করাতে হবে। এখানে দল বা সরকারকে দোষারোপ করে কোন লাভ হবে না। আওয়ামী লীগ দীর্ঘ আন্দোলন, সংগ্রাম করে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা এনেছে। এটা জনগণের নির্বাচিত সরকার। এই সরকার কোন সেনাবাহিনী, কোন ক্যু বা লালকুটি ও নীলকুটি করে কোন অদৃশ্য অন্তরাল থেকে আসেনি। এই সরকার বিচার বিভাগের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়ে এমন কোন নির্দেশনা দিতে পারে না।

ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের কৃষক ও কৃষিকে উপলব্ধি করেন বলেই কৃষিকে লাভজনক করতে কৃষি-পণ্যের উৎপাদন খরচ কমাতে ৫ম বারের মতো সারের দাম কমালেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বেই বাংলাদেশের কৃষিতে বিপ্লব সাধিত হয়েছে। যার জন্য বিশ্ব¦ব্যাপী তিনি প্রশংসিত। আমরা উন্নত বিশ্বের মর্যাদা লাভের যে স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে হাঁটছি তা সফল করতে কৃষিকে বাণিজ্যিক, আধুনিক কৃষি ও শতভাগ যান্ত্রিকীকরণ করতে হবে। কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের কৃষিতে নানাবিধ সমস্যা রয়েছে, বিশেষ করে কৃষি শ্রমিকের হ্রাস, জমির উর্বরতা এবং পানি প্রাপ্যতা হ্রাস পাচ্ছে। এর পরেও আমাদের কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। কৃষির এই উৎপাদনশীলতাকে টেকসই করতে হলে কৃষির প্রক্রিয়াজাত, বাণিজ্যিকীকরণ ও রফতানিতে যেতে হবে। আমাদের সুন্দর ভবিষ্যত নির্ভর করে কৃষির ওপর। শুধু ধানের ওপর নির্ভর করলে হবে না এর পাশাপাশি লাভজনক ফসল আবাদ করতে হবে। আমাদের জমি বাড়ছে না, ক্রমান্বয়ে কমছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের এক জমিতেই বেশি ফসল উৎপাদন করতে হবে। এ বিষয়ে আমরা অনেক সফল হয়েছি।

টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের এমপি, ছানোয়ার হোসেন এমপি, তানভীর হাসান ছোট মনি এমপি, মমতা হেনা লাভলী এমপি, আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সামছুল হক, মুক্তিযুদ্ধকালীন কাদেরিয়া বাহিনীর প্রশাসক আবু মোহাম্মদ এনায়েত করিম প্রমুখ।

প্রকাশিত : ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

১২/১২/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: