২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ক্যাম্পাস সংগঠন ॥ জাবি ক্যারিয়ার ক্লাব


পড়ন্ত বিকেলে চায়ের কাপের আড্ডাটা বেশ জমে উঠেছিল। অগত্যা ‘ক্যারিয়ার’ ঢুকে পড়ল আড্ডায়। পড়ালেখা শেষে কে কি করবে? শুরু হলো ভিন্ন প্রতিক্রিয়া। আরে লেখাপড়া আগে শেষ হোক তারপর না হয় দেখা যাবে। পাত্তাই দিল না অনেকে। পলাশ এবং রিপন অবশ্য বেশ গুরুত্ব দিল কথাটায়। কারণ তাদের পড়ালেখা যে আর দু-এক বছরের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। তারা পরিকল্পনা করল নিজেরা এখন থেকে ক্যারিয়ারকেন্দ্রিক পড়ালেখা করে প্রস্তুতি নেবে। কিন্তু তার আগে তো জানা দরকার ক্যারিয়ার সম্পর্কে। তাহলে কি করা যায়? হ্যাঁ একটা ক্লাব গঠন করা যায়। যার কাজ হবে ক্যারিয়ার নিয়ে জানাশোনা এবং পড়ালেখা করা। শুধু নিজেরা নয়, অন্যদেরও যেন উপকার হয়। সেই লাখ থেকে কিছু দিনের মধ্যেই গঠন করা হলো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব। বলছিলাম ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের কথা।

বসার জন্য একটা রুম নেই বলে নওয়াব ফয়জুন্নেসা হলের সামনের একটি যাত্রী ছাউনিতে তারা অস্থায়ীভাবে বসে এখন। প্রশাসন কতৃক একটা রুমের ব্যবস্থা দ্রুত হবে বলে আশা করছেন সভাপতি মাসুদ রেজা। এখন তারা এখানেই কাজ সারছেন। এর নাম দিয়েছেন ‘ক্যারিয়ার সেন্টার’। এখানে তারা প্রতি বুধবার নিজেদের মধ্যে ইংরেজী অনুশীলন করেন। সোমবার ব্যাংক জব এবং শনিবার স্কিল ডেভেলপমেন্ট, ভাইভা, সিভি প্রস্তুতকরণ, প্রেজেন্টেশন প্রস্তুতকরণ প্রভৃতি বিষয়ে ক্লাবের সদস্যরা অনুশীলন করে। সদস্যদের বাইরেও যে কেউ আসতে পারে এসব আয়োজনে। সামনে বিসিএস এবং বিদেশে উচ্চ শিক্ষার ওপরেও তারা অনুশীলনপর্ব যুক্ত করবে বলে জানান প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মনোয়ার হোসেন।

বাইরে থেকেও প্রশিক্ষক নিয়ে আসেন নিজেদের স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য। আবার মাঝে মাঝে বড় পরিসরে আয়োজন করা হয় ক্যারিয়ারকেন্দ্রিক নানা অনুষ্ঠান। এই তো সেদিন ২৪, ২৫ এবং ২৬ মে তিন দিনব্যাপী ‘ক্যারিয়ার প্লানিং উৎসব এবং নবীন বরণ অনুষ্ঠান-২০১৬’ পালন করা হলো। ২৪ মে দুপুর বারোটায় ক্যারিয়ার সেন্টার (নওয়াব ফয়জুন্নেসা হলের সামনে) থেকে র‌্যালি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পথ প্রদক্ষিণ শেষে বিকেলে অনুষ্ঠানের সূচী নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। পরের দিন ২৫ মে বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তনে নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেয়া হয়। পরে নবীন শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার শুরুতেই ক্যারিয়ার নিয়ে সচেতন করার উদ্দেশ্যে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন স্কয়ার গ্রুপের মালিক এবং প্রধান তপন চৌধুরী, নাভিদ কমেডি ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা নাভিদ মাহবুব, রেকিড বেঙ্কিসার বাংলাদেশের ট্রেড এ্যান্ড চ্যানেল ডেভেলপমেন্টের প্রধান সালাউদ্দীন আহমেদ তারেক, বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার ক্লাস্টারের সেলস ডিরেক্টর কাজী আরিফ জামান প্রমুখ। বক্তারা প্রণোদনামূলক বক্তব্য তুলে ধরেন। ক্যারিয়ার সচেতনতামূলক ডকুমেন্টারিও দেখানো হয়। শেষ দিন ২৫ মে সন্ধ্যায় সেলিম আল-দ্বীন মুক্তমঞ্চে ছিল বিশিষ্ট্য সঙ্গীতশিল্পী অর্ণবের কনসার্ট। ক্লাবের সদস্যরাও নাচ পরিবেশন করেন। এই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজারের অধিক অংশগ্রহণকারী ছিল বলে দাবি করেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দীক নাঈম। ক্লাবের ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানতে চাইলে ক্লাবের সহ-সভাপতি জয়ন্ত ফকির জানান, বিভিন্ন জব সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে জব ফেয়ার এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্যারিয়ার ক্লাবকে নিয়ে একটা ক্যারিয়ার সামিট আয়োজন করার পরিকল্পনা রয়েছে। উল্লেখ্য, গত বছরও এই অনুষ্ঠান আয়োজন করেছিল ক্লাব। ‘গত বছর সফল অনুষ্ঠান সম্পন্ন হলে নন্দন ৪০টি টিকেট ফ্রি দিয়েছিল। পরে সবাই মিলে সারা বিকেল নন্দনে টানা তিন দিনের ক্লান্তি ঘুচিয়েছিলাম।’ স্মৃতিচারণ করছিলেন প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি মিঞ্চা পলাশ আহমেদ।

ওয়ালীউল্লাহ মিঠু