ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

মিরপুর টেস্টে বাংলাদেশ এগিয়ে ১১৭ রানে

প্রথম দিনেই কোণঠাসা নিউজিল্যান্ড

মো. মামুন রশীদ

প্রকাশিত: ২৩:৩৮, ৬ ডিসেম্বর ২০২৩

প্রথম দিনেই কোণঠাসা নিউজিল্যান্ড

উইকেট নিয়ে মিরাজের উল্লাস

মিরপুর চিরাচরিত নিয়মে স্পিন স্বর্গ আর ব্যাটারদের জন্য বধ্যভূমি। টেস্ট ক্রিকেটে এটাই ধ্রুব সত্য। কিন্তু টেস্টের প্রথম দিনেই ১৫ উইকেটের পতন এই প্রথম দেখা গেছে এখানে। গড়ে তোলা ঘূর্ণিজালের গোলকধাঁধায় বুধবার নিজেরাও ফেঁসেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। নিজেদের দোষ যেমন আছে, তেমনি ত্রুটিমুক্ত ব্যাটিং করেও হয়তো আহামরি কিছু করা অসম্ভবই হতো। কারণ ম্যাচের প্রথম বল থেকেই দুর্বোধ্য আচরণ করেছে উইকেট। তাই নিউজিল্যান্ডের স্পিনত্রয়ীর তোপে প্রথম ইনিংসে ১৭২ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পরও বাংলাদেশই আছে স্বস্তিদায়ক অবস্থানে। কারণ দিনশেষে স্বাগতিকদের ঘূর্ণি ছোবলে ৫৫ রান তুলতেই ৫ উইকেট খুঁইয়েছে সফরকারীরা।

১১৭ রানে পিছিয়ে থাকা নিউজিল্যান্ডের এখন এগিয়ে যাওয়ার আশা নিছকই অলিক স্বপ্নে পরিণত হয়েছে। ধারাভাষ্যে অভিষেক হওয়া ওপেনার তামিম ইকবাল বলছিলেন, ১৬-১৭ বছর মিরপুরে আমি ক্রিকেট খেলে বুঝে উঠতে পারিনি এখানে আসলে কি নারকীয় ব্যাপার ঘটে? তাই স্পিনারদের এ তীর্থস্থানে চারদিকে আশঙ্কা উঁকি দিচ্ছে আজ দ্বিতীয় দিনেই ম্যাচের নিষ্পত্তি ঘটার। যদিও মেহেদী হাসান মিরাজ জানিয়েছেন, এরকম চিন্তা করছে না বাংলাদেশ। আর কোণঠাসা কিউইরা যতটা সম্ভব জুটি গড়ে এগিয়ে যাওয়ার আশায় আছে। 
সিলেটে হওয়া প্রথম টেস্টে বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম দারুণ সফল হওয়াই নিউজিল্যান্ড মিরপুরে লেগস্পিনার ইশ সোধিকে বসিয়ে দুই বাঁহাতি মিচেল স্যান্টনার ও এজাজ প্যাটেলকে নিয়ে একাদশ সাজিয়েছে। আর অপরিবর্তিত বাংলাদেশ নেমেছে সিরিজ জয়ের আত্মবিশ^াস নিয়ে। সিলেটে জেতার পর পয়মন্ত মিরপুরে পরাজিত হওয়ার বিন্দুমাত্র ভীতি নেই স্বাগতিকদের। সিলেট টেস্টে মিরাজ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে তেমন সুবিধা করতে পারেননি। উভয় ইনিংসে ১টি করে উইকেট নিয়েছেন। কিন্তু মিরপুরে ফিরতেই নিজের ভয়ংকর রূপ ধারণ করে ঘূর্ণি ছোবল হেনেছেন এ অফস্পিনার। সেখানে তার লড়াই শুরু হয়েছে বাঁহাতি তাইজুলের সঙ্গে।

মিরাজ ৩টি ও তাইজুল ২টি উইকেট শিকার করেছেন দু’জন মিলিয়ে মাত্র ১১.৪ ওভার বল ছুড়েই। মিরপুরে বাংলাদেশী স্পিনারদের মধ্যে তীব্র লড়াই উইকেট শিকারের। সেই লড়াইয়ে দুই বাঁহাতি স্পিনার সাকিব আল হাসান ও তাইজুল ইসলামের সঙ্গে ২০১৬ সালে যোগ দিয়েছেন অফস্পিনার মিরাজ। তিনি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়ের নায়ক হয়েছেন মিরপুর টেস্টে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নেমে। সেই ম্যাচে উভয় ইনিংসে ৬টি করে ১২ উইকেট নিয়েছেন মিরাজ ১৫৯ রান খরচা করে। একই ভেন্যুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২০১৮ সালে এক টেস্টে ১১৭ রান দিয়ে ১২ উইকেট শিকার করে তিনি এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের পক্ষে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডধারী।

মিরপুরে ৩৬ ইনিংসে ৭৬ উইকেট নিয়ে শীর্ষে সাকিব, এই টেস্টের আগে পর্যন্ত তাইজুল ২৭ ইনিংসে ৬৯ ও মিরাজ ১৯ ইনিংসে ৫২ উইকেট নিয়েছেন। উইকেট নেওয়ার গড় ও স্ট্রাইকরেটে এই ভেন্যুতে সবচেয়ে সফল মিরাজ। তবে আবারও টস জিতেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। সাধারণত মিরপুরে টস জিতে আগে ব্যাট করতে পারলে ম্যাচে জয়ের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। 
অধিনায়ক হওয়ার পর শান্ত টানা দ্বিতীয় টেস্টে টস জিতে ব্যাটিং নিয়েছেন। তবে নিউজিল্যান্ডের স্পিনে দিশে হারিয়েছে বাংলাদেশ। শুরুতে যদিও দুই পেসার টিম সাউদি ও কাইল জেমিসন দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। তাদের বল কখনো নিচু হয়েছে, কখনো হঠাৎ লাফিয়েছে। তবে সাফল্য পাননি তারা। স্যান্টনার-এজাজ বোলিংয়ে আসতেই সাফল্যও ধরা দিয়েছে। তাদের জোড়া আক্রমণে ৪৭ রানেই ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। জাকির হাসান (২৪ বলে ৮), মাহমুদুল হাসান জয় (৪০ বলে ১৪), শান্ত (১৪ বলে ৯) ও মুমিনুল হক (১০ বলে ৫) সাজঘরে ফেরেন। কিন্তু পঞ্চম উইকেটে ৫৭ রান যোগ করে বাংলাদেশকে ভালো একটি সংগ্রহের দিকে নিয়ে যান মুশফিক ও শাহাদাত হোসেন দিপু।

৪১তম ওভারে খামখেয়ালিপূর্ণ ঘটনায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ‘অবস্ট্রাক্টিং দ্য ফিল্ড’ অপরাধে আউট হন ৮৩ বলে ৩ চার, ১ ছক্কায় ৩৫ রান করা মুশফিক। পরে শাহাদাতও ফিরে গেছেন দারুণ ধৈর্যশীল থাকার পরেও। শেষদিকে অফস্পিনার ফিলিপস ৩ উইকেট শিকার করেছেন। তবে টেলএন্ডারদের দৃঢ়তায় এদিন কিছু রান পেয়েছে বাংলাদেশ ১৩৫ রানেই ৭ উইকেট হারানোর পরও। ফিলিপসের প্রথম শিকার শাহাদাত ১০২ বলে ২ চারে ৩১ রানে আউট হন। পরে নুরুল হাসান সোহান (১৬ বলে ৭), তাইজুল (১২ বলে ৬) তার অফস্পিনে সাজঘরে ফিরেছেন।

একাই লড়াই চালানো মিরাজও ৪২ বলে ২ চারে ২০ রান করার পর স্যান্টনারের তৃতীয় শিকার হন। পেসার হিসেবে একমাত্র উইকেটটি নিয়েছেন সাউদি, তিনি শরিফুল ইসলামকে (১২ বলে ১০) সাজঘরে ফেরাতেই ১৭২ রানে গুটিয়ে গেছে বাংলাদেশের ইনিংস। স্পিনারদের রাজ্যে তিনি ৫.২ ওভার বোলিং করে কোনো রানই দেননি। ৮ উইকেট ভাগাভাগি করেছেন তিন স্পিনার- স্যান্টনার ও ফিলিপস ৩টি করে এবং ২টি এজাজ। এরপর কিউইরা স্বস্তির ঢেঁকুর তুলে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্রুত রান করতে শুরু করে। কিন্তু ডেভন কনওয়েকে দলীয় ২০ রানে ষষ্ঠ ওভারে বোল্ড করে দেন অফস্পিনার মিরাজ। নিজের জন্য সবচেয়ে সুখকর ভেন্যুতে প্রথম সাফল্য তিনিই এনে দেন দলকে। এরপর উইকেটে টিকে থাকার এক কঠিন সংগ্রাম করেও টম লাথাম (২০ বলে ৪) ও হেনরি নিকোলস (১) পারেননি। দুজনকেই শিকার করেন তাইজুল।

এরপর কিছুটা চড়াও হয়ে খেলার প্রচেষ্টা চালিয়েছেন কিউই ব্যাটাররা। কারণ টিকে থাকার প্রাণপণ লড়াইও মিরপুরের এই উইকেটে ব্যর্থ! কিন্তু কেন উইলিয়ামসন (১৪ বলে ১৩) ও টম ব্লান্ডেলও (০) মিরাজের স্পিনে নতি স্বীকার করেছেন। ফলে ৪৬ রানেই ৫ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। কিন্তু এর কিছুক্ষণ পরেই আলোর স্বল্পতায় দিনের খেলা সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। মিরাজ ৩টি ও তাইজুল ২টি উইকেট নিয়েছেন এখন পর্যন্ত। তবে আরেক অফস্পিনার নাঈম হাসান এখনো বল হাতে নেননি। ৬ ইনিংসে মিরপুরে তারও ১৩ উইকেট আছে।
দুই দল মিলিয়ে প্রথম দিন ৭৯ ওভার ব্যাট করেছে। ১৫ উইকেটের পতনে রান হয়েছে ২২৭। দিনের ৮.২ ওভার বাকি থাকতেই খেলা শেষ। এর মধ্যেই ম্যাচের যে পরিস্থিতি তাতে করে মিরপুরের আকাশে-বাতাসে প্রশ্ন, ‘২ দিনেই ম্যাচ শেষ হয়ে যাবে না তো?’। কিন্তু মিরাজ বলেছেন, ‘আমরা এটা চিন্তা করছি না, আমরা প্রক্রিয়া অনুসরণ করছি। যদিও ওদের ৫ উইকেট ফেলে দিয়েছি। তবে টেস্টে অনেক কিছুই হতে পারে, অনেক পরিস্থিতি আসতে পারে। অনেক দৃশ্যপট বাকি থাকে। ৫ দিন ধরে খেলা হয়।’ আর সেজন্যই এখনো আশাবাদী কিউইরা আজ ভালো কিছু করতে। সেটি ছোটে কিছু জুটি হলেও সম্ভব হতে পারে। দুই স্বীকৃত ব্যাটার ড্যারিল মিচেল ১২ ও ফিলিপস ৫ রানে ব্যাট করছেন।

তাই দিনশেষে স্যান্টনার বলেছেন, ‘আমাদের কাজ হবে যে-ই উইকেটে থাকে, শুধু জুটি গড়ার চেষ্টা করা। এটা হয়তো ১০০-১২০ রানের জুটি হবে না। কিন্তু ৫০ রানের জুটি আমাদের এগিয়ে নিতে পারে। এজন্য যতটুকু সম্ভব আমাদের লড়াই করার চেষ্টা করে যেতে হবে। এরপর যখন তারা একটা খারাপ বল করবে, সাধারণত যেটা করে না, তাহলে সেটাকে কাজে লাগাতে হবে।’ আর বাংলাদেশেরও চিন্তা সেটি করতে না দেওয়ার। মিরাজ বলেছেন, ‘আমরা কালকের দিনটা (আজ) যেন নিজেদের করতে নিতে পারি। তাড়াতাড়ি খেলা শেষ করার চিন্তা করছি না। এখন আমরা ওপরে আছি, এক সময় ওরা ওপরে থাকবে। টেস্ট ক্রিকেট এরকমই। আমরা ওরকম অতিআত্মবিশ্বাসী নই।’ তার মানে মিরপুরে আজ অনেক কিছুই দেখার বাকি আছে।

×