ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০২ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

এক ম্যাচ নিষিদ্ধ তামিম

প্রকাশিত: ০৭:২০, ২৩ জুন ২০১৬

এক ম্যাচ নিষিদ্ধ তামিম

এক লাখ টাকা জরিমানা স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সুপার লীগের প্রথম ম্যাচে প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে ম্যাচে আবাহনীর অধিনায়ক তামিম ইকবাল আম্পায়ারদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছেন। এরপর খেলাও বন্ধ হয়ে যায়। এমন আচরণের জন্য তামিমকে ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ও এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। তামিম ইকবাল শুনলেন নিষিদ্ধ হওয়ার দুঃসংবাদও। শতক করে জয়ও পেল আবাহনী। কিন্তু তামিম যে দোলেশ্বরের বিপক্ষে সুপার লীগের প্রথম ম্যাচে আম্পায়ারদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছেন, তার ফলও পেয়েছেন। শতক করেই এ দুঃসংবাদ শুনলেন তামিম। তবে দল ঠিকই জিতেছে। এমন একদিনে তামিম এমন নিষিদ্ধ হওয়ার খবর শুনলেন, যখন তৃতীয় বিবাহবার্ষিকীর দিন তার। দলের পক্ষে এদিন সর্বোচ্চ ১৪২ রান করেন তামিম। ১৩২ বল মোকাবেলা ১১ চার ও ৪ ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। গত ১২ জুন প্রাইম দোলেশ্বর ও আবাহনীর মধ্যকার ম্যাচে রকিবুল হাসানের এক স্টাম্পিংকে কেন্দ্র করে আম্পয়ারদের সঙ্গে তামিম অসৌজন্যমূলক আচরণ করায় উক্ত ম্যাচের আম্পয়াররা মাঠ ছেড়ে চলে যান। পরে আর ঐদিন খেলাটি মাঠে গড়ায়নি। সাভারের বিকেএসপিতে দোলেশ্বরের বিপক্ষে ১২ জুনের ম্যাচটিতে তামিমের আচরণ নিয়ে কঠিন শাস্তির সুপারিশ করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি। বুধবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে তামিমের শাস্তির বিষয়ে ঘোষণা দেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। গত ১২ জুন বিকেএসপিতে আবাহনীর ফিল্ডারদের একটি স্টাম্পিংয়ের আবেদন আম্পায়ার তানভির হায়দার নাকচ করে দিলে আম্পায়ারদের সঙ্গে বাজে আচরণ, গালিগালাজ করেন তামিম। পরে প্রাইম দোলেশ্বর-আবাহনী ম্যাচটি স্থগিত করে দিতে বাধ্য হন আম্পায়াররা। টি২০ সিরিজও ভারতের স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ জিম্বাবুইয়ে সফরে ওয়ানডের পর টি২০ সিরিজও (১-২) জিতল ভারত। বুধবার প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ তৃতীয় টি২০তে স্বাগতিকদের ৩ রানে হারিয়েছে মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। এর আগে প্রতিপক্ষকে ওয়ানডেতে ৩-০তে ‘হোয়াইটওয়াশ’ করেছিল তারা। লো-স্কোরিং ম্যাচে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৩৮ রান করে ভারত। জবাবে সমান সংখ্যক উইকেট হারিয়ে ১৩৫Ñএ থামে গ্রায়েম ক্রেমারের জিম্বাবুইয়ে। ১৩ বলে ১ চার ও ২ ছক্কায় অপরাজিত ২৩ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেও শেষ রক্ষা করতে পারেননি তিমিচেন মারুমা। ভূসি সিবান্দা ২৮, পিটার মুর ২৬ রানে আউট হন। বিজয়ী দলের হয়ে ২টি করে উইকেট নেন বারিন্দার স্রান ও ধাওয়াল কুলকার্নি। টসে হেরে ব্যাটিং পাওয়া ভারতও অবশ্য খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি। জিম্বাবুইয়ের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে একমাত্র কাদের যাদবই ছিলেন সাবলীল। ২৭ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে টেনে তুলেছেন ক্যারিয়ারের পঞ্চম টি২০ খেলতে নামা মহারাষ্ট্র ব্যাটসম্যান। ম্যাচসেরা যাদব ৪২ বলে ৭ চার ও ১ ছক্কায় সর্বোচ্চ ৫৮ রান করে আউট হন। শেষদিকে অক্ষর প্যাটেল ১১ বলে ২০ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন, সমান একটি ইনিংস খেলে ফেরেন আমবাতি রাইডু। এছাড়া ওপেনার লোকেশ রাহুলের ২২ উল্লেখ্য। অধিনায়ক ধোনি আউট হন ৯ রান করে। স্বাগতিকদের হয়ে সফল পেসার ডোনাল্ড ত্রিপানো ২০ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। এদিন ৩২৪ আন্তর্জাতিক ম্যাচে অধিনায়কত্ব করে রিকি পন্টিংয়ের (১৯৯৫-২০১৩) রেকর্ড ছুঁয়েছেন ধোনি। আর একটি ম্যাচেই অধিনায়ক হিসেবে মাঠে নামলে এককভাবে এই রেকর্ডটির মালিক হবেন তিনি। সংক্ষিপ্ত স্কোর ॥ ভারত ১৩৮/৬ (২০ ওভার), জিম্বাবুইয়ে ১৩৫/৬ (২০ ওভার)। ফল ॥ ভারত ৩ রানে জয়ী সিরিজ ॥ তিন ম্যাচের টি২০ ভারত ২-১এ জয়ী
×