ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০২ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

আর্জেন্টিনা-হল্যান্ড হাইভোল্টেজ লড়াই

জাহিদুল আলম জয়

প্রকাশিত: ০১:১২, ৯ ডিসেম্বর ২০২২

আর্জেন্টিনা-হল্যান্ড হাইভোল্টেজ লড়াই

বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে খোশ মেজাজে হল্যান্ডের কোচ লুইস ভ্যান গাল ও ফরোয়ার্ড ডিপাই

একদলের দীর্ঘ ৩৬ বছরের হাহাকার ঘোচানোর মিশন। আরেক দলের শূন্য শোকেসে প্রথমবার ট্রফি সাজানোর পালা। একরাশ রঙিন স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে চলেছে দুদলই। কিন্তু ভাগ্য বিধাতা শেষ হাসি কার মুখে রেখেছেন সেটা সময়ই বলে। কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াই থেকেই যে একটি দলকে তল্পিতল্পা গোছাতে হবে। আর জয়ী দল সেমিফাইনালে ওঠার পাশাপাশি সোনার ট্রফি জয়ের সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রাখবে।
এমন সমীকরণ আর আবহ সামনে রেখে চলমান কাতার বিশ্বকাপের হাইভোল্টেজ কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে দুইবারের বিশ্বচাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা ও বিশ্বকাপের তিনবারের রানার্সআপ হল্যান্ড। কাতারের রাজধানী দোহার লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে শেষ আটের সবচেয়ে উত্তাপ ছড়ানো এই ম্যাচটি মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ সময় আজ রাত ১টায়।

এর আগে রাত ৯টায় রেকর্ড সর্বোচ্চ পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল ও গত আসরের রানার্সআপ ক্রোয়েশিয়ার মধ্যে হবে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম ম্যাচ। হল্যান্ড ও আর্জেন্টিনা দুদলই জিততে মরিয়া। কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনোর কল্যাণে আর্জেন্টিনা সেই তিন যুগ আগে ১৯৮৬ সালে সবশেষ বিশ্বকাপ জিতেছে। এবার দেশটির আরেক কিংবদিন্ত লিওনেল মেসি ক্যারিয়ারে শেষবার খেলছেন বিশ্বমঞ্চে। বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে এই একমাত্র অপূর্ণতা ঘোচাতে মরিয়া খুদে জাদুকর।

আর্জেন্টাইন অধিনায়ককে সতীর্থরাও বিশ্বকাপ উপহার দিতে চান। এই পথটা অবশ্য সহজ নয়। আপাতত ডাচ দেয়াল টপকানোই মেসিদের মূল চ্যালেঞ্জ। কঠিন হলেও নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে সেটা সম্ভব বলে মনে করছেন আজেন্টাইন অধিনায়ক লিওনেল মেসি ও কোচ লিওনেল স্কালোনি। সৌদি আরবের কাছে হার দিয়ে মিশন শুরু হলেও দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে শেষ পর্যন্ত নিজেদের গ্রুপে সেরা হয় আর্জেন্টিনা।

এরপর প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে উঠে এসেছে শেষ আটে। আর্জেন্টিনা দলটা অনেকটা মেসিনির্ভর। তবে এবারের আসরে তাঁকে যোগ্য সহায়তা দিয়ে চলেছেন একঝাঁক প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ। ডাচদের বিরুদ্ধে সেই তরুণদের এবার অগ্নিপরীক্ষা। বিশেষ করে মিডফিল্ডার রডরিগো ডি পলের আরেকবার নিজেকে মেলে ধরার পালা। গত চার ম্যাচের সব পুরো ৯০ মিনিট খেলা প্রতিশ্রুতিশীল মিডফিল্ডারকে সামলাতে হবে টোটাল ফুটবলের উত্তরসূরি ফ্রেংকি ডি জং, ডেভি ক্লাসেন, ডেনজেল ডামফ্রাইস, কোডি গাকপোদের।

ডাচদের হয়ে আগের চার ম্যাচে কখনো ডি জং, ক্লাসেন নিজেরা গোল করেছেন, কখনো মেমফিস ডিপাই, ডালে ব্লাইন্ডদের আক্রমণ শুরুর পথটা রেখেছেন মসৃণ। তাই পাসিংয়ে গতি, স্কিলের পসরা মেলে ধরার সঙ্গে পলকে মেলে ধরতে হবে আগের মতোই। আর্জেন্টাইন সমর্থকরা সামনের কঠিন পথে আস্থা রাখতেই পারেন ৪৮টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা এই মিডফিল্ডারের ওপর। চোটের যে শঙ্কা ছিল সেটা কাটিয়ে তিনি খেলবেন বলেই জানা গেছে। তবে বলার অপেক্ষা রাখে না, আর্জেন্টিনার সবচেয়ে বড় শক্তি তাদের প্রাণভোমরা মেসি।

রেকর্ড সর্বোচ্চ ছয়বারের ফিফা সেরা ও সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকা একাই ম্যাচের গতিপ্রকৃতি ঘুরিয়ে দেয়ার সামর্থ্য রাখেন। তাকে আটকানো নিয়েই তাই বেশি ভাবতে হচ্ছে হল্যান্ডকে। তবে যত বাধাই আসুক না কেন তা পেরিয়ে প্রথম শিরোপা জয়ের খোঁজে আরেকধাপ এগিয়ে যেতে চায় হল্যান্ডও। দলটি তিনবার বিশ্বকাপের ফাইনালেও খেলেও শিরোপার দেখা পায়নি।

১৯৭৪, ১৯৭৮ ও ২০১০ বিশ্বকাপের ফাইনালে হেরে কাঁদতে হয়েছিল টোটাল ফুটবলের জনকদের। গতবার বাছাইপর্ব পেরুতে না পারায় খেলাই হয়নি বিশ্বমঞ্চে। এবার ফিরে এসে মরুর বুকে ফুল ফুটিয়ে চলেছেন ভার্জিল ভ্যান ডাইক, মেমফিস ডিপাই, ম্যাথিয়াস ডি লিট, কোডি গাকপোরা। গ্রুপ পর্বে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়ে আসা ডাচরা শেষ ষোলোতে সহজেই ৩-১ গোলে যুক্তরাষ্ট্রকে উড়িয়ে দেয়। এই ধারাবাহিকতা আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধেও ধরে রাখতে মরিয়া বিখ্যাত কমলা জার্সিধারীরা।

দলটির কোচ লুইস ভ্যান গাল তো ২০১৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে টাইব্রেকারে হারের বদলা নেয়ার হুঙ্কার ছেড়েছেন। সেবার ব্রাজিলে নির্ধারিত ৯০ ও অতিরিক্ত ৩০ মিনিটের খেলা গোলশূন্য ড্র থাকার পর টাইব্রেকারে আর্জেন্টিনা জয় পেয়েছিল ৪-২ গোলে। ওই ম্যাচের পর কেটে গেছে ৮ বছর। তবে এখনো সময়ের সেরা ফুটবলারদের একজন মেসি।

নিজের দিনে যে কোনো ম্যাচের ভাগ্য একাই গড়ে দেওয়ার সামর্থ্য আছে পিএসজি তারকার। চলতি বিশ্বকাপেও কয়েকবার দলের ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন, জালের দেখা পেয়েছেন তিন বার। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে দলকে নিয়ে এসেছেন কোয়ার্টার ফাইনালে। নিঃসন্দেহে এই লড়াইয়ে ডাচরা কেমন করবে তার অনেকটাই নির্ভর করছে তারা কিভাবে মেসিকে সামলাবে তার ওপর।
এক্ষেত্রে ডাচ কোচ অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন ২০১৪ বিশ্বকাপে তার দলের পারফরম্যান্স থেকে। ৭১ বছর বয়সী এই কোচ মনে করেন, মেসিকে আটকে রেখে এবার জয় তুলে নেবে তার শিষ্যরা। ভ্যান গাল বলেন, মেসি এমন একজন খেলোয়াড় যে একাই ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিতে পারে। ২০১৪ সালে সেমিফাইনালে আমরা আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে খেলেছিলাম।

ওই ম্যাচে মেসি সেভাবে বল স্পর্শই করতে পারেনি। কিন্তু আমরা পেনাল্টি শুটআউটে হেরেছিলাম। এখন আমরা প্রতিশোধ চাই। সবমিলিয়ে আর্জেন্টিনা ও হল্যান্ড এখন পর্যন্ত মুখোমুখি হয়েছে ৯ বার। যেখানে ৪ ম্যাচ জিতে এগিয়ে ডাচরা। মূল ম্যাচে আর্জেন্টিনার জয় মাত্র একটি। তবে আরও দুইবার তারা মূল ম্যাচ ড্রয়ের পর জিতেছে টাইব্রেকারে।

বাকি দুই ম্যাচ ড্র হয়। এই হিসেবে টাইব্রেকারে জয় বাদ দিলে বিশ্বকাপে হল্যান্ডকে ৪৪ বছর হারাতে পারেনি আর্জেন্টিনা। ডাচদের বিরুদ্ধে বিশ্বমঞ্চে আলবিসেলেস্তাদের সবশেষ জয় সেই ১৯৭৮ বিশ্বকাপে ৩-১ গোলে। ২০১৪ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা জিতলেও সেটা ছিল টাইব্রেকারে। টাইব্রেকারসহ ফলাফল একত্রিত করলে বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত দুদল খেলেছে পাঁচবার। এর মধ্যে দুদলই জিতেছে দুটি করে ম্যাচ। একটি ম্যাচ ড্র হয়। বিশ্বকাপে হল্যান্ড সবশেষ আর্জেন্টিনাকে হারিয়েছে ১৯৯৮ সালে। সেবার ডাচদের জয় ছিল ২-১ গোলে।

সম্পর্কিত বিষয়:

×