ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১

অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চের অবসর

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০১:১৩, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চের অবসর

অ্যারন ফিঞ্চের অবসর

পাঁচ বার বিশ্বকাপ জিতে ওয়ানডে শ্রেষ্ঠত্বের ট্রফিটাকে পৈতৃক সম্পত্তি বানিয়ে ফেলা অস্ট্রেলিয়া সপ্তম আসরে এসে প্রথম টি২০ শিরোপার স্বাদ পায়। আমিরাতে ২০২১ টি২০ বিশ্বকাপে কুলিন অসিদের পরম কাক্সিক্ষত সেই সাফল্যে নেতৃত্ব দেন অ্যারন ফিঞ্চ। কিন্তু পরের বছরই (২০২২) ঘরের মাঠে শিরোপা ধরে রাখতে ব্যর্থ হন তিনি। টেস্ট ও ওয়ানডে থেকে আগেই অবসর নেওয়া ফিঞ্চকে আরেকটি বিশ্বকাপ খেলতে হলে অপেক্ষা করতে হতো ২০২৪ পর্যন্ত।

বয়স ৩৬-এর ওপরে, সার্বিক বিবেচনায় তাই টি২০সহ সকল ধরনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিলেন। তবে ঘরোয়া বিগ ব্যাশ ও বিশ্বের বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি টি২০ খেলে যাবেন আরও কয়েক বছর, ‘২০২৪ বিশ্বকাপ পর্যন্ত আমি খেলে যাব না বোঝার পর মনে হলো সরে দাঁড়ানোর জন্য এবং ওই আসরের জন্য পরিকল্পনা করা ও দল গড়ে তোলার সঠিক সময় এখনই।’ মঙ্গলবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেন ফিঞ্চ।
ফিঞ্চ তার শেষের ঘোষণায় পরিবার ও ভক্তদের বিশেষ ধন্যবাদ জানিয়েছেন, ‘আমার পরিবার, বিশেষ করে স্ত্রী অ্যামি, আমার সব সতীর্থ, ক্রিকেট ভিক্টোরিয়া, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনকে ধন্যবাদ জানাই আমার সবচেয়ে প্রিয় খেলায় সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলে যেতে সহায়তা করায়। সব ভক্ত-সমর্থকদের প্রতিও বিশাল কৃতজ্ঞতা, যারা আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের পুরোটা আমার পাশে থেকেছেন।’

গত অক্টোবর-নভেম্বরে ঘরের মাঠে টি২০ বিশ্বকাপের শিরোপা ধরে রাখতে ব্যর্থ হওয়ার পর ফিঞ্চের এই অবসর অনেকটা প্রত্যাশিতই ছিল। ফিঞ্চ তবু বলেছিলেন, বিগ ব্যাশের সময় বিষয়টা নিয়ে ভাববেন। সদ্য সমাপ্ত বিগ ব্যাশে শুরুটা ভালো না হলেও মেলবোর্ন রেনিগেডসের জার্সিতে শেষ পর্যন্ত ৩৮.৯০ গড়ে করেছেন আসরের চতুর্থ সর্বোচ্চ ৪২৮ রান। টি২০তে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ১০০ ম্যাচ খেলা একমাত্র ক্রিকেটার ফিঞ্চ (১০৩)।

তিন হাজার রান করা (১৪২.৫৩ স্ট্রাইক রেটে ৩১২০) একমাত্র ব্যাটসম্যানও তিনি। ২০১৮ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে করা তার ১৭২ রানে ইনিংস টি২০ ইতিহাসের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ। সেখানে তিনি ভেঙেছিলেন নিজেরই ১৫৬ রানের রেকর্ড। টি২০তে অস্ট্রেলিয়াকে নেতৃত্ব দিয়েছেন রেকর্ড ৭৬ ম্যাচে।
তবে এসব ব্যক্তিগত অর্জন ছাপিয়ে নিশ্চিতভাবেই ফিঞ্চের ক্যারিয়ারের সেরা অর্জন ২০২১ টি২০ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়াকে অধরা শিরোপা উপহার দেয়া। ঘরের মাঠে ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী দলেরও সদস্য ছিলেন তিনি। ফিঞ্চের বিদায়ী বিবৃতিতেও ফুটে উঠেছে সেই তৃপ্তি ‘দলীয় সাফল্যের জন্যই আমরা খেলাটা খেলি এবং ২০২১ সালে টি২০ বিশ্বকাপ জয় ও ২০১৫ সালে ঘরের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপের ট্রফি উঁচিয়ে ধরার মুহূর্ত দুটি আমি সবচেয়ে বেশি লালন করব।

১২ বছর অস্ট্রেলিয়াকে প্রতিনিধিত্ব করতে পারা এবং সর্বকালের সেরা কিছু ক্রিকেটারের সঙ্গে ও বিপক্ষে খেলতে পারাও ছিল আমার জন্য অবিশ্বাস্য সম্মানের।’ টি২০ দিয়ে ফিঞ্চ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন ২০১১ সালের জানুয়ারিতে। 
ক্যারিয়ারে পাঁচটি মাত্র টেস্টের সবই খেলেছেন ২০১৮ সালে। ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে গত বছর সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৪৬টি ওয়ানডে খেলা ফিঞ্চের রান প্রায় সাড়ে ৫ হাজার। সেঞ্চুরি ১৭টি।

×