ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২৬ জুন ২০২৪, ১৩ আষাঢ় ১৪৩১

বরিশালকে শ্রমিকবান্ধব নগরী গড়তে চান খোকন

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল

প্রকাশিত: ২৩:০৩, ৯ জুন ২০২৩

বরিশালকে শ্রমিকবান্ধব  নগরী গড়তে চান  খোকন

.

বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত গত এক মাস ধরে নির্বাচনী মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন। আগামী ১২ জুনের নির্বাচনে সাত মেয়র প্রার্থীকে নিয়ে সাধারণ ভোটার থেকে শুরু করে সচেতন নগরবাসী চুলচেরা বিশ্লেষণ শুরু করেন। সবশেষে প্রত্যেক প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার নিয়ে ভোটাররা শুরু করেছেন বিশ্লেষণ। সব বিশ্লেষণ শেষ করে আগামীর নতুন বরিশাল গঠনে সাদামাটা জীবন যাপনে অভ্যস্ত খোকন সেরনিয়াবাতের ওপরই ভোটাররা আস্থা রাখছেন বলে জানা গেছে। এমনকি আলেম সমাজও নৌকার প্রচারে মাঠে নেমেছেন। ফলে প্রচারের একেবারে শেষ সময়ে এসে খোকন সেরনিয়াবাতের নৌকার পালে গণজোয়ার শুরু হয়েছে। এমনকি সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরণের সহধর্মিণী সাবেক এমপি জেবুন্নেসা আফরোজও তার স্বামীর রেখে যাওয়া অসমাপ্ত কাজ সম্পন্নের জন্য খোকন সেরনিয়াবাতের নৌকাকে বিজয়ী করার জন্য নগরবাসীর প্রতি অনুরোধ করেছেন।

আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাত (নৌকা) তার নির্বাচনী প্রচারে গত ১০ বছরে নগরীতে কোনো উন্নয়ন হয়নি, সে বিষয়টিকে মুখ্য হিসেবে বলে যাচ্ছেন। যার হিসাবটা স্পষ্ট করে তিনি বলছেন, শওকত হোসেন হিরণের মৃত্যুর পর বরিশালে কোনো উন্নয়নই হয়নি। তাই আমাকে (খোকন সেরনিয়াবাত) মেয়র নির্বাচিত করা হলে, আমি হিরণের স্বপ্নকে বাস্তবায়নে নিজেকে উৎসর্গ করে দেবো।

বরিশাল হবে শ্রমিকবান্ধব নগরী সিটি নির্বাচনে নৌকা মেয়রপ্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাত বলেছেন, আগামী ১২ জুনের নির্বাচনে আমাকে মেয়র নির্বাচিত করা হলে আমি সবার কল্যাণে কাজ করব। এখানে নাগরিকদের নানা মৌলিক চাহিদা রয়েছে, বর্তমান মেয়র তার কিছুই পূরণ করতে পারেনি। তাই প্রধানমন্ত্রী সেই অপূর্ণতা পূরণ করতে আমাকে এখানে পাঠিয়েছেন। নির্বাচিত হলে আমি অবহেলিত জনগোষ্ঠীর জন্য কাজ করব। আমি নির্বাচিত হলে শ্রমিক বান্ধব নগরী গড়ে তুলব। এখানে আরও যাতে শিল্প কারখানা আসতে পারে তার প্রয়োজনীয় পরিবেশ তৈরি করব। নগরীর হাটখোলাস্থ এমইপি গ্রুপের কারখানা শ্রমিকদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে গিয়ে শ্রমিকদের উদ্দেশে খোকন সেরনিয়াবাত এসব কথা বলেছেন। এসময় আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য বলরাম পোদ্দার, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহামুদুল হক খান মামুন, এমইপি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. মো. জাহাঙ্গীর হোসেনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরেকবার সুযোগ দিন জেলা ১৪ দলের নেতাদের প্রতি অতীত ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার প্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাতকে বিজয়ী করার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, আমাদের আরেকবার সুযোগ দিয়ে নৌকা মার্কায় ভোট দিন। বরিশাল ক্লাবের ক্যাফেটিরিয়ায় ১৪ দলের নেতৃবৃন্দদের নিয়ে মতবিনিময়কালে নানক আরও বলেন, কি হয়েছিল, কেন হয়েছিল, সেগুলো নিয়ে আর টানাটানি না করে, আসুন আমরা খোকন সেরনিয়াবাতকে কীভাবে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে বিজয়ী করতে পারি, সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়ে পরস্পরকে সহযোগিতা করি। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ১৪ দলের সমন্বয়ক তালুকদার মো. ইউনুসের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাহাঙ্গীর কবির নানক আরও বলেন, হাতপাখার প্রার্থীকে কে কতো টাকা দিয়েছে বা দেয়নি তা আমাদের আলোচ্য নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাত কীভাবে এই নির্বাচনে বিজয়ী হবেন, সেদিক বিবেচনায় আমাদের সামনে এগোতে হবে।

নৌকার প্রচারে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ নৌকার মেয়রপ্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাতের হাত ধরেই গড়ে উঠবে তিলোত্তমা বরিশাল নগরী। নতুন বরিশাল গড়ে ওঠার মধ্যদিয়ে নগরবাসীর ভাগ্য উন্নয়ন হবে। যার কারিগর হবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকার প্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১৫ বছরে যে উন্নয়ন করেছেন, তার সবচাইতে বেশি সুবিধাভোগী আমরা বরিশালবাসী। এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে খোকন সেরনিয়াবাতকে প্রধানমন্ত্রী মনোনয়ন দিয়ে বরিশালে পাঠিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর আস্থা বিশ্বাস খোকন সেরনিয়াবাত হবেন বরিশালের উন্নয়নের নতুন কারিগর। জন্য নগরবাসীকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে তাকে জয়যুক্ত করতে হবে।

আশংকা বৃদ্ধি পাচ্ছে জাতীয় পার্টির মেয়রপ্রার্থী (লাঙল) ইকবাল হোসেন তাপস বলেছেন, নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততোই আশঙ্কা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা কোনো সামাজিক সংগঠনের কাছে কর্মসূচি করতে গেলে সেই সংগঠনকে নিষেধ করা হচ্ছে। সাধারণ মানুষের জনরোষ যদি তৈরি হয়ে যায় তা হলে রক্ষা নেই। নগরীর বাকলার মোড় এলাকায় গণসংযোগকালে তাপস আরও বলেন, তারা (সংগঠকরা) বলে সরকারি দলের চাপ আছে। আপনাকে ভোট দেবো কিন্তু কোনো কর্মসূচি করতে পারব না। জনগণের মূল্যবান সম্পদ ভোট, সেই ভোট কতকাল জোর করে নেবে? এটা কিসের আলামত? বরিশালে কি হচ্ছে? এই নির্বাচনে যদি কারচুপি করার চেষ্টা করা হয়, তা হলে তা দেশের মানুষসহ বিশ্বের কাছে জানিয়ে দেব।

ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত করা হবে ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী (হাতপাখা) মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম বলেছেন, নগরীকে আমরা সম্প্রীতির মডেল নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি গড়ে তোলার লক্ষ্যে সকল ধর্মের প্রতিনিধিদের নিয়েসম্প্রীতি পরিষদগঠন করা হবে। রাজনৈতিক সহাবস্থান সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক তৈরির লক্ষ্যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা নয় বরং সকল রাজনৈতিক প্রতিনিধিদের পরামর্শক্রমে সিটি করপোরেশন পরিচালনা করা হবে। নগরীর বাজার রোড এলাকায় গণসংযোগকালে হাতপাখার মেয়র প্রার্থী এসব কথা বলেছেন।

চলছে ক্যামেরা স্থাপনের কাজ আজ শনিবারের মধ্যে বিসিসির নির্বাচনে সকল কেন্দ্র কক্ষে ক্যামেরা স্থাপন করা শেষ হবে। তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে ক্যামেরা স্থাপন কমিটির আহবায়ক নেছারবাদ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শাহিন শরীফ বলেন, গত তিনদিন থেকে নগরীর ১২৬টি কেন্দ্রে সিসি টিভি কামেরা স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। যা আজ শনিবারের মধ্যে শেষ করে রবিবার ট্রায়াল দেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, নির্বাচনে ৮৯৪টি ভোট কক্ষে ভোট গ্রহণ করা হবে। প্রতিটি কক্ষে একটি করে এবং প্রতিটি কেন্দ্রের প্রবেশ পথে দুটি করে ক্যামেরা স্থাপন করা হবে। এতে মোট এক হাজার ১৪৬টি ক্যামেরা থাকবে।

উল্লেখ্য, আগামী ১২ জুন বরিশাল সিটি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। এবার সাতজন মেয়র, ১১৯ জন সাধারণ ৪২ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নগরীতে মোট ভোটার দুই লাখ ৭৬ হাজার ২৯৮ জন। এরমধ্যে এক লাখ ৩৭ হাজার ৪৮৯ জন পুরুষ এক লাখ ৩৮ হাজার ৮০৯ জন নারী ভোটার রয়েছেন। প্রথমবারের মতো ইভিএমে নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে ভোটগ্রহণ করা হবে।

×