ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১

জানুয়ারিতে নির্যাতনের শিকার ২৪০ নারী ও কন্যাশিশু

প্রকাশিত: ১৯:০৯, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩; আপডেট: ১৯:১৯, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

জানুয়ারিতে নির্যাতনের শিকার ২৪০ নারী ও কন্যাশিশু

কন্যাশিশু নির্যাতন

বছরের প্রথম মাসে নানাভাবে নির্যাতনের ২৪০ জন নারী ও কন্যাশিশু। এদের মধ্যে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৩৮ জন কন্যাসহ ৫৪ জন। তার মধ্যে ৪ জন কন্যাসহ ৬ জন দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ৪ জন কন্যাসহ ৭ জনকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। আর ২ জন কন্যাসহ ৫ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের তথ্যের ভিত্তিতে এ পরিসংখ্যান তুলে ধরে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মহিলা পরিষদ আরও জানায়, জানুয়ারির ১ তারিখ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে ৫ জন কন্যাসহ ৬ জন। উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে ৫ জন কন্যাসহ ৬ জন, এরমধ্যে উত্ত্যক্তকরণের কারণে আত্মহত্যা করেছে ২ জন। নারী ও কন্যা পাচারের ঘটনা ঘটেছে ২ টি। অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে ৪ জন এরমধ্যে ৩ জনের অগ্নিদগ্ধের কারণে মৃত্যুর হয়েছে। 

শুধু তাই নয় মহিলা পরিষদের নেতারা বলছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের পর এবার স্মার্ট বাংলাদেশের পথে যাত্রা করলেও এখনো দেশে কমে নি যৌতুকের জন্য নারী নির্যাতন। জানুয়ারীতে যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১১ জন, এরমধ্যে ২ জনকে যৌতুকের কারণে হত্যাও করা হয়েছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে মোট ১৪ জন এরমধ্যে ১ জন কন্যা। ৫ জন গৃহকর্মী নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে, এরমধ্যে ১ জন গৃহকর্মীর হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বিভিন্ন কারণে ১৩ জন কন্যাসহ ৩৬ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়াও ২ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। ৪ জন কন্যাসহ ২৫ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। 

সম্প্রতি সবচেয়ে বেশি আলোচিত আত্মহত্যার ঘটনা। মহিলা পরিষদ বলছে, শুধু জানুয়ারিতেই ১২ জন কন্যাসহ ৩৭ জনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে, এরমধ্যে ১ জন কন্যাসহ ২ জন আত্মহত্যার প্ররোচনার শিকার হয়েছে। এছাড়াও ১ জন আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। ৮ জন কন্যাসহ ১১ জন অপহরণের ঘটনার শিকার হয়েছে। পুলিশী নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১ জন। ১ জন কন্যাসহ ৫ জন সাইবার অপরাধের শিকার হয়েছে। বাল্যবিবাহের ঘটনা প্রতিরোধ করা হয়েছে ৫ টি। এছাড়া ৮ জন কন্যাসহ ১০ জন বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে।

 

স্বপ্না

×